kalerkantho


কাজ দেওয়ার নাম করে নেওয়া হয় মাগুরার দুই যুবককে

সৌদিতে ঘরে বন্দি রেখে নির্যাতন, টাকা দাবি

মাগুরা প্রতিনিধি   

২১ জুন, ২০১৮ ১৬:০৫



সৌদিতে ঘরে বন্দি রেখে নির্যাতন, টাকা দাবি

সংসারের অভাব ঘোচাতে ভালো কাজ পাওয়ার আশায় প্রতিবেশীর মাধ্যমে সৌদি আরবে যান মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার তল্লাবাড়িয়া গ্রামের দুই যুবক। কিন্তু সেখানে তাদের কাজ না দিয়ে ঘরে আটকে রেখে নির্যাতন করা হচ্ছে। বাড়ি থেকে আরো টাকা এনে দিতে বলা হচ্ছে। গতকাল বুধবার ওই দুই যুবকের পরিবারের সদস্যরা মাগুরা প্রেস ক্লাবে সংবাদিকদের কাছে এসব অভিযোগ করেন।

নির্যাতিত দুজন হলেন তল্লাবাড়িয়ার হতদরিদ্র কৃষক দুদু মোল্যার ছেলে জালাল মোল্যা (৩০) ও মোকসেদ শেখের ছেলে বক্কার শেখ (২৮)।

দুদু মোল্যা অভিযোগ করেন, তল্লাবাড়িয়ার মোকসেদ ফকিরের ছেলে প্রতিবেশী দিলু ফকির পাঁচ মাস আগে পাঁচ লাখ টাকার চুক্তিতে জালালকে রিয়াদে নিয়ে যান। কিন্তু সেখানে দিলু কাজ না দিয়ে জালালকে একটি ঘরে বন্দি করে রেখেছেন। সৌদি আরবে কাজের অনুমতিপত্র আকামার জন্য আরো টাকা দাবি করছেন। দুদু মোল্যা বলেন, সংসারের অভাব ঘোচাতে দিলুর কথায় বিশ্বাস করে চড়া সুদে টাকা ধার করে তিনি ছেলেকে বিদেশে পাঠিয়েছেন। এখন টাকা উপার্জন দূরের কথা, ছেলের জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে তিনি চরম দুশ্চিন্তায় আছেন। ছেলেকে ফেরত পেতে তিনি সরকারের সহযোগিতা চান।

বক্কার শেখের মেয়ে তন্নী বেগম কাঁদতে কাঁদতে অভিযোগ করে, তার বাবার সঙ্গে মাঝেমধ্যে ফোনে কথা হয়। সৌদি আরবে বাবা খুবই কষ্টের মধ্যে আছেন বলে জানিয়েছেন। প্রায়ই তাঁকে মারধর করে বাড়ি থেকে অতিরিক্ত টাকা নিয়ে যেতে বলা হচ্ছে। অথচ ভালো কাজ পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে দিলু ফকির বাংলাদেশে ছয় লাখ টাকা নিয়ে বক্কার শেখকে রিয়াদে নিয়ে গেছেন। এখন দিলু আকামার জন্য অতিরিক্ত দেড় লাখ টাকার পাশাপাশি আরো টাকা দাবি করছেন।



মন্তব্য