kalerkantho


বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইপনার জরিপ

দেশে প্রতি ১০ হাজারে ১৭ শিশু অটিজম বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন

মেয়ের চেয়ে ছেলে শিশুর সংখ্যা প্রায় আড়াই গুণ বেশি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ জুলাই, ২০১৮ ০৪:৫৮



দেশে প্রতি ১০ হাজারে ১৭ শিশু অটিজম বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন

দেশে প্রতি ১০ হাজারে ১৭ জন শিশু অটিজম বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন বলে তথ্য উঠে এসেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ইনস্টিটিউট অব পেডিয়াট্রিক নিউরো ডিস-অর্ডার অ্যান্ড অটিজমের (ইপনা) এক জরিপে। ১৬ থেকে ৩০ মাস বয়সী শিশুদের মধ্যে অটিজমের প্রভাব নিয়ে এ জরিপ করা হয়। ফলাফল অনুসারে অটিজমের শিকার মেয়ে শিশুর চেয়ে ছেলে শিশুর সংখ্যা প্রায় আড়াই গুণ বেশি। গতকাল বৃহস্পতিবার এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ওই জরিপের তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ২০১৭ সালের মে থেকে নভেম্বর পর্যন্ত সারা দেশের আটটি বিভাগের ৩০টি জেলার ৮৫টি এলাকা চিহ্নিত করে জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। ১৬ থেকে ৩০ মাস বয়সী মোট ৩৮ হাজার ৪৪০টি শিশুর ওপর পরিচালিত এই জরিপে প্রতি ১০ হাজারে ১৭ শিশুর অটিজম পাওয়া যায়। এদের মধ্যে পল্লী এলাকায় প্রতি ১০ হাজারে ১৪ জন, শহর এলাকায় প্রতি ১০ হাজারে ২৫ জন আক্রান্ত পাওয়া যায়। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়ার সভাপতিত্বে ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, আইসিডিডিআরবির উপনির্বাহী পরিচালক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম এবং সূচনা ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারপারসন ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত। অনুষ্ঠানে স্বাধীনতা চিকিত্সক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান, বিএসএমএমইউর উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ শিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, ইপনার পরিচালক অধ্যাপক ডা. শাহীন আখতারসহ অন্যরা বক্তব্য দেন। জরিপের ফলাফল তুলে ধরেন ইপনার গবেষক ডা. জান্নাত আরা শেফা। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার দেশের প্রতিবন্ধী শিশুদের প্রতি আন্তরিক। বিশেষ করে অটিজম ও অন্যান্য স্নায়ুবিকাশজনিত সমস্যায় আক্রান্ত শিশু ও তাদের পরিবারের সুরক্ষায় সরকার দুটি আইন করেছে। এই জরিপের মাধ্যমে প্রাপ্ত ফলাফলকে ভিত্তি করে ভবিষ্যতে অটিজম আক্রান্ত শিশু ও তাদের পরিবারের সেবায় সুনির্দিষ্ট আরো কার্যকর কর্মসূচি হাতে নেওয়া সম্ভব হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। 

উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রীকন্যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানসিক স্বাস্থ্যবিষয়ক অ্যাডভাইজারি প্যানেলের বিশেষজ্ঞ, বাংলাদেশের অটিজম বিষয়ক জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির সভাপতি সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুলের উদ্যোগে ও প্রেরণায় প্রতিষ্ঠা পায় ইপনা। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই এ কার্যক্রমের আওতায় অটিজম ও অন্যান্য স্নায়ুবিকাশজনিত সমস্যাসংক্রান্ত বিষয়ে প্রয়োজনীয় সেবা ও পরামর্শ দেওয়ার পাশাপাশি উচ্চতর গবেষণা ও প্রশিক্ষণ কর্মসূচি পরিচালনা করে আসছে।



মন্তব্য