kalerkantho


খালেদার জেলে প্রতিদিন আ. লীগের ১০ লাখ ভোট কমছে : মওদুদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘খালেদা জিয়াকে যতই কষ্ট দেবেন, আপনাদের ভোট ততই কমতে থাকবে। প্রতিদিন বেগম জিয়া জেলে থাকবেন, প্রতিদিন আপনাদের ১০ লাখ ভোটারের ভোট কমে যাবে। আওয়ামী লীগকে কে বুদ্ধি দিল বেগম জিয়াকে জেলখানায় পাঠাতে হবে, পাঠালে বোধ হয় বিএনপি একেবারে শেষ হয়ে যাবে—এটা ঠিক না। বিএনপি যেকোনো সময়ের তুলনায় এখন সবচাইতে শক্তিশালী ও সবচাইতে ঐক্যবদ্ধ।’ খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে উল্লেখ করে মওদুদ হুঁশিয়ারি দেন, তাঁকে ছাড়া কোনো নির্বাচন এ দেশে হবে না।

গতকাল সোমবার বিকেলে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ‘স্বাধীনতা হলে’ নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম নামের একটি সংগঠন আয়োজিত ‘খালেদা জিয়া ও তারেক রহমনাকে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় সাজা : প্রতিহিংসার রাজনীতি’ শীর্ষক প্রতিবাদী আলোচনাসভায় মওদুদ এসব কথা বলেন।

মওদুদ আহমদ বলেন, ‘বৃহস্পতিবার আমরা মামলার রায়ের কপি চেয়েছি, সেদিন আমরা সত্যায়িত কপিটি পাইনি। আজকে এখন পর্যন্তও (বিকেল সাড়ে ৪টা) আমরা পাইনি বলে শুনেছি। এভাবে তারা (সরকার) রায়ের কপি দেওয়া নিয়ে গড়িমসি করে যাচ্ছে, করছে।’ তিনি বলেন, এই সরকার একটা অমানবিক সরকার, মানবতাবোধ নেই তাদের।

বিএনপির সাবেক এই আইনমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে নির্জন কারাবাসে রাখা হয়েছে। উনি বলছেন, আমাকে দোতলায় একটি কক্ষে রাখা হয়েছে। সিঁড়ি দিয়ে অনেক কষ্ট করে আমাকে উঠতে হয়, নামতে হয়। অথচ আমরা খবরের কাগজে দেখেছি তাঁকে রাখা হয়েছে নাকি গ্রাউন্ড ফ্লোরে। আসলে না। প্রথম দিকে সরকার অনেক মিথ্যা প্রচার করেছিল—উনি ডিভিশন পেয়েছেন, ফাতেমাকে (গৃহপরিচারিকা) দেওয়া হয়েছে সঙ্গে থাকতে ইত্যাদি। এখন দেখা যাচ্ছে সব তথ্যই মিথ্যা ছিল।’

মওদুদ বলেন, ‘আগে ডিভিশনের জন্য আদালতে যেতে হতো, অনুমতি নিতে হতো। এসব আমরা (চারদলীয় জোট সরকার) তুলে দিয়েছি। আজকে তিন দিন যাবৎ সাবেক প্রধানমন্ত্রী, সাবেক বিরোধীদলীয় নেতা, সাবেক সাংসদকে অমানবিক পরিবেশে রাখা হলো, ডিভিশন না দিয়ে নির্জন কারাবাসে রাখা হলো—এটা সম্পূর্ণভাবে সংবিধান পরিপন্থী। আমি এই সরকারের আমলে দুইবার জেলে গেছি, কারাগারে আমার যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডিভিশনে দিয়ে দিয়েছে। জিজ্ঞাসা করে নিন। বেগম জিয়ার ব্যাপারে আইন নতুন করে কোথা থেকে আসল? এটা সরকার করেছে প্রতিহিংসার কারণে।’ শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে সাড়া না দিলে ভবিষ্যতে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন বিএনপির এই নেতা।

সংগঠনের উপদেষ্টা নাসির উদ্দিন হাজারীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় সভায় বিএনপি নেতা আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, শাহজাহান সম্রাট, ফরিদউদ্দিন আহমেদ, ভিপি ইব্রাহিম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

 


মন্তব্য