kalerkantho


প্রধানমন্ত্রীর বিমানে ত্রুটি

দুই প্রকৌশলীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে কর্তব্যে অবহেলা মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী বিমানে যান্ত্রিক ত্রুটির ঘটনায় কর্তব্যে অবহেলা করার অভিযোগে দুই প্রকৌশলীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এই মামলাটি গ্রহণ করে আসামিদের আগামী ১৭ জুন হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সুব্রত ঘোষ শুভ এই নির্দেশ দেন।

পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের পরিদর্শক মাহবুবুল আলম আসামিদের বিরুদ্ধে কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগ এনে দণ্ডবিধির ২৮৭ ধারায় প্রসিকিউশন দাখিল করলে তা শুনানি হয় আদালতে। যাঁদের আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তাঁরা হলেন প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমান, নাজমুল হক ও বিমানের টেকনিশিয়ান শাহ আলম।

২০১৬ সালের ২৭ নভেম্বর হাঙ্গেরি যাওয়ার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বোয়িং ৭৭৭ বিমান যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে তুর্কমেনিস্তানের রাজধানী আশখাবাতে জরুরি অবতরণ করে। ত্রুটি মেরামত করে সেখানে চার ঘণ্টা অনির্ধারিত যাত্রাবিরতির পর ওই উড়োজাহাজেই প্রধানমন্ত্রী বুদাপেস্টে পৌঁছান।

প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী ওই বিমানে ত্রুটি নাশকতার কারণে হয়েছিল—এই সন্দেহে বাংলাদেশ বিমানের পরিচালক (ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যাটেরিয়েল ম্যানেজমেন্ট) উইং কমান্ডার (অব.) এম এম আসাদুজ্জামান বাদী হয়ে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে বিমানবন্দর থানায় একটি মামলা করেন। ওই মামলা তদন্ত করে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট। তদন্ত শেষে তারা নিশ্চত হয় যে এটা নাশকতা ছিল না। ছিল তিনজনের দায়িত্বে অবহেলা। পরে গত বছর ৭ ডিসেম্বর ঢাকা চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১১ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাঁদের মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সুপারিশ করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। তবে এজাহারভুক্ত তিন আসামি সিদ্দিকুর রহমান, নাজমুল হক ও শাহ আলমের বিরুদ্ধে কর্তব্যে অবহেলার বিষয় প্রমাণিত হওয়ায় তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ারও অনুমতি চাওয়া হয়।

গত ৪ এপ্রিল ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক কামরুল হোসেন মোল্লা এই মামলার তদন্ত সংস্থা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশলাল ক্রাইম ইউনিটের দাখিল করা চূড়ান্ত প্রতিবেদন গ্রহণ করে ১১ আসামিকে অব্যাহতি দেন। তবে আসামি সিদ্দিকুর রহমান, নাজমুল হক ও শাহ আলমের বিরুদ্ধে কর্তব্যে অবহলোর অভিযোগে দণ্ডবিধির ২৮৭ ধারায় প্রসিকিউশন দাখিলের অনুমতি দেন। ওই অনুমতি নিয়ে তদন্ত সংস্থা তিন আসামির বিরুদ্ধে প্রসিকিউশন দাখিল করেন।


মন্তব্য