kalerkantho


নিকটাত্মীয় ‘সন্ত্রাসীদের’ হামলায় পুলিশ সদস্যের পরিবার বাড়িছাড়া

সংবাদ সম্মেলনে কান্নায় ভেঙে পড়ল পরিবারটি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ   

২৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০



নিকটাত্মীয় ‘সন্ত্রাসীদের’ হামলার শিকার হয়ে ময়মনসিংহের প্রত্যন্ত চরাঞ্চল বোরোর চরে এক পুলিশ সদস্যের মা-বাবা ও ভাই-বোন ১৬ দিন ধরে এলাকাছাড়া বলে অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ সদস্যের ভাই ত্রিশাল জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র জাবেদ আলী গতকাল শনিবার দুপুরে ময়মনসিংহ প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ তুলে ধরেন। এ সময় তাঁর মা, বাবা ও এক বোন উপস্থিত ছিলেন। কান্নাজড়িত কণ্ঠে পরিবারটি তাদের অসহায়ত্ব তুলে ধরে। এ পরিবারের পুলিশ সদস্য রবিউল আউয়াল বর্তমানে দিনাজপুরে কর্মরত।

লিখিত বক্তব্যে জাবেদ আলী বলেন, ক্ষেতে গরু-ছাগল চরানো ও ঘাস খাওয়ানো নিয়ে তাঁদের সঙ্গে চাচাতো ভাই দুলাল মিয়ার ঝগড়া হয় গত ৭ জুন। ওই রাতেই তাঁদের বাড়িতে হামলা করে দুলাল মিয়ার স্বজনরা। তাঁদের ঘরবাড়ি ভেঙে দেওয়া হয়। লুট করা হয় ঘরের জিনিসপত্র। এমনকি চারটি গরুও লুট করে নিয়ে যাওয়া হয়। জীবনের ভয়ে তখন তিনি বৃদ্ধ মা, বাবা, বোনসহ বাড়ি থেকে পালিয়ে আসেন। এ ঘটনায় ৯ জুন কোতোয়ালি থানায় তিনি মামলা দায়ের করেন। কিন্তু পুলিশ লুটের মামলা না নিয়ে চুরির মামলা গ্রহণ করে। এ ছাড়া পুলিশ কোনো আসামিকেও গ্রেপ্তার করেনি। ওই দিন থেকে তাঁরা শহরের নানা স্থানে দিন যাপন করছেন। তাঁদের এখন খাওয়ার টাকা নেই, পরনের কাপড়চোপড়ও নেই।

জাবেদের বাবা কদম আলী কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান, তিনি একটি লুঙ্গি পড়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে আসেন। এরপর একজন দয়া করে তাঁকে একটি পাঞ্জাবি দেয়। এভাবেই মানুষের দয়ার ওপর তাঁদের দিনযাপন চলছে। কদম আলী আরো জানান, তাঁরা বাড়ি ফিরে যেতে চান; কিন্তু ভয়ে ফিরতে পারছেন না।

জাবেদ আলী জানান, মামলার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও তাঁদের মালামাল উদ্ধার করেনি। তাঁরা সব কিছু হারিয়ে এখন পথের ফকির। হামলাকারীরা তাঁদের আত্মীয় হলেও এলাকায় তাঁরা বড় গোষ্ঠী। কয়েকজন কুখ্যাত সন্ত্রাসীও আছে দুলালের সঙ্গে। জাবেদ আলী জানান, তাঁর ভাই পুলিশ কনস্টেবল রবিউল আউয়াল বর্তমানে দিনাজপুরে কর্মরত। তিনিও বিভিন্নভাবে পুলিশের সাহায্য কামনা করছেন; কিন্তু এখনো কোনো লাভ হয়নি।

এ ব্যাপারে রবিউল আউয়ালকে ফোন দিলে তিনি ফোন ধরেননি। আর ফোন ব্যবহার না করায় অভিযুক্ত দুলাল মিয়ার সঙ্গে কথা বলা যায়নি। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার তদন্ত করছেন কোতোয়ালি থানার এসআই তানজিল আল আসাদুজ্জামান। তিনি বলেন, দুই পরিবারের বিরোধ ও ছোটখাটো মারামারির ঘটনা থেকে এমন হামলার ঘটনা ঘটেছে। আসামিদের গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আসামিরা জামিনে চলে এসেছে।

প্রসঙ্গত, ময়মনসিংহ সদর উপজেলার বোরোর চরে পাল্টাপাল্টি হামলাকালে বাড়িঘর ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। প্রত্যন্ত এলাকা বলে পুলিশও সেখানে ঠিকমতো দায়িত্ব পালন করতে পারে না। গোষ্ঠীগত বিরোধ সেখানে নিয়মিত ঘটনা।



মন্তব্য