kalerkantho


বাদল ফরাজীকে কারামুক্ত করতে হাইকোর্টে রিট খারিজ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



ভারতে একটি খুনের মামলায় আসামি হয়ে সাজা খাটা বাদল ফরাজীকে কারামুক্ত করার নির্দেশনা চেয়ে দাখিল করা রিট আবেদন উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, সরকার উদ্যোগ নিয়েই তাঁকে দেশে ফিরিয়ে এনেছে। তাঁর মুক্তির ব্যাপারে সরকারই হয়তো কোনো পদক্ষেপ নেবে। তাঁর মুক্তির ব্যাপারে সরকারকে স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে দেওয়া উচিত। তাই এ মুহূর্তে সরকারের প্রতি কোনো নির্দেশনা দেওয়া ঠিক হবে না।

বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল বুধবার এ আদেশ দেন। বাদল ফরাজীর মুক্তির নির্দেশনা চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের দুই আইনজীবী ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির পল্লব ও ব্যারিস্টার কাউছার এ রিট আবেদন করেছিলেন। তাঁদের মধ্যে ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির পল্লব শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মাসুদ হাসান চৌধুরী পরাগ। গতকাল শুনানিকালে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে বাদল ফরাজীর বিষয়ে ভারত সরকারের সঙ্গে করা বন্দি বিনিময় চুক্তির নথিপত্র আদালতে উপস্থাপনের পর এ আদেশ দেওয়া হয়।

আদালত আরো বলেন, ভারতের আদালতের রায়ে দেখা যাচ্ছে, তাদের দেশের হত্যা মামলায় বাংলাদেশের বাদল ফরাজীকেই সাজা দিয়েছে। তবে আমরা দেখতে পারছি সরকার তাঁর বিষয়টিতে ইতিবাচক। সরকার পদক্ষেপ নিয়ে বাদল ফরাজীকে তেহার কারাগার থেকে দেশে ফিরিয়ে এনে কারাগারে রেখেছে। এখন হঠাৎ করেই কোনো রুল বা পর্যবেক্ষণ দিলে সেটা হিতে বিপরীত হতে পারে। তাঁর মুক্তিতে সরকারকে স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে দেওয়া উচিত।

আদালতের আদেশের পর ব্যারিস্টার পল্লব সাংবাদিকদের বলেন, ভারতীয় আদালতের রায়ে বাদল ফরাজীর ঠিকানা হিসেবে বাংলাদেশের খুলনায় দেখানো হয়েছে। তাই এ রায়ের পর এখন বাংলাদেশের সংবিধানের ৪৯ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সাজা মওকুফ চেয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমার আবেদন করা ছাড়া বাদল ফরাজীর মুক্তিতে তাঁর সামনে আর কোনো আইনি প্রক্রিয়া খোলা নেই। তবে ভারতীয় সংবিধানের ১৬১ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সাজা মওকুফের জন্য ভারত সরকারের কাছেও আবেদন করার সুযোগ রয়েছে।



মন্তব্য