kalerkantho


নারায়ণগঞ্জে ব্যবসায়ীকে ছয় টুকরা

দোকান নিয়ে বিরোধে খুন

দিলীপ কুমার মণ্ডল, নারায়ণগঞ্জ   

১২ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জ শহরের কালীরবাজার এলাকার স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষকে হত্যা করা হয়েছে পরিকল্পিতভাবে। তাঁরই বন্ধু, আরেক স্বর্ণ ব্যবসায়ী পিন্টু একটি দোকানের পজেশন কেনা নিয়ে বিরোধের জের ধরে হত্যাকাণ্ডটি ঘটিয়েছে বলে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।

ডিবির তদন্তসংশ্লিষ্ট কয়েকজন জানান, সোমবার আটকের পর থেকেই পিন্টু একেক সময় একেক ধরনের তথ্য দেয়। মূলত সে প্রচণ্ড চতুর। ১৮ জুন প্রবীর নিখোঁজের পর ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন সংগঠনের বিক্ষোভে সে ছিল অগ্রভাগে। প্রবীরের পরিবারের লোকজনদেরও নিয়মিত সান্ত্বনা দিতে ছুটে যেত। মঙ্গলবার রিমান্ডে নেওয়ার পর সে হত্যাকাণ্ড ঘটানোর কথা স্বীকার করে।

গতকাল জিজ্ঞাসাবাদে পিন্টু জানায়, শহরের কালীরবাজার এলাকায় স্বর্ণ মার্কেটে ‘পিন্টু স্বর্ণালয়’ নামে একটি দোকান রয়েছে। কয়েক মাস আগে প্রবীরের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা নিয়ে এ দোকানের পজেশন ক্রয় করে পিন্টু। কিন্তু দুই মাস ধরে ওই টাকা ফেরত চাচ্ছিল প্রবীর। এ নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়। একপর্যায়ে প্রবীরকে হত্যার পরিকল্পনা করে পিন্টু। ১৮ জুন রাতে প্রবীরকে শহরের আমলাপাড়া এলাকায় নিজের বাসায় ডেকে নেয় পিন্টু। কথা বলার একপর্যায়ে চাপাতি দিয়ে তাঁর মাথায় আঘাত করে। পরে বিছানায় ফেলে বালিশ ও চাদর দিয়ে মুড়িয়ে তাঁকে হত্যা করে। পরে বাসায় বসেই চাপাতি দিয়ে খণ্ড খণ্ড করে লাশ। বাজার থেকে আনা ব্যাগে ভরে লাশ বাসার নিচের সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দেয়। আর পায়ের গোড়ালি জায়গা না হওয়ায় সেগুলো ফেলা হয় পাশের একটি ময়লার স্তূপে।

ডিবির কর্মকর্তারা বলছেন, মঙ্গলবার পিন্টু বলেছিল কিলিং মিশনে ভাড়াটে খুনি ছিল। কিন্তু বুধবার সে তথ্য থেকে সরে এসে নিজেই একা খুন করেছে বলে জানিয়েছে। কিন্তু সব তথ্যই যাচাইবাছাই চলছে।



মন্তব্য