kalerkantho


নিউ ইয়র্কে সিটি কাউন্সিলর প্রার্থী হচ্ছেন বাংলাদেশি তৈয়েবুর

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি   

৫ আগস্ট, ২০১৭ ২৩:৫৯



নিউ ইয়র্কে সিটি কাউন্সিলর প্রার্থী হচ্ছেন বাংলাদেশি তৈয়েবুর

যুক্তরাষ্টের নিউ ইয়র্ক প্রবাসী বাংলাদেশি মোহাম্মদ তৈয়েবুর রহমান নিউ ইয়র্কের স্থানীয় নির্বাচনে ২৪ ডিস্ট্রিক্ট-এর কাউন্সিলর প্রার্থী হচ্ছেন। শহরের বাসিন্দাদের একটি বড় অংশই দক্ষিণ এশীয় মুসলিম সম্প্রদায়ের।

সিটি কাউন্সিলে তিনি প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে নির্বাচিত হবেন বলে আশা তৈয়েবুর।

নিউ ইয়র্কের জ্যামাইকার বাসিন্দা তৈয়েবুর রহমান যুক্তরাষ্ট্রের সিটি ডিপার্টমেন্টের স্যোশাল সার্ভিসে ২১ বছর সুপারভাইজার হিসেবে কাজ করেছেন। নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য চলতি বছরের মার্চ মাসে তিনি পদত্যাগ করেন।
তৈয়েবুর রহমানের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগে অধ্যয়ন করেছেন। এর আগে স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে মানিকগঞ্জে পড়াশোনা করেছেন তিনি। তার মতে, সিটি কাউন্সিলে দক্ষিণ এশীয় মুসলিমদের কোনও প্রতিনিধিত্ব না থাকায় এই অঞ্চলের মানুষদের নিয়ে অবিশ্বাস বাড়ছে।

তিনি ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী হতে চাইছেন। টি রহমানের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে রয়েছেন কাউন্সিলম্যান ররি ল্যান্সম্যান। ১২ সেপ্টেম্বর ডিস্ট্রিক্ট ২৪-এর ডেমোক্র্যাটিক প্রাইমারি অনুষ্ঠিত হবে।

এই নির্বাচনী এলাকার আওতায় রয়েছে কিউ গার্ডেন্স হিলস, পোমোনোক, ইলেকচেস্টার, ফ্রেশ মেডোস, হিলক্রেস্ট, জ্যামাইকা এস্টেটস, ব্রায়ারউড, পার্কওয়ে ভিলেজ, জ্যামাইকা হিলস, জ্যামাইকা। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই মার্কিন নাগরিক জানান, ট্রাম্প প্রশাসনের নীতি বাস্তবায়নে মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে উদ্বেগ বিরাজ করছে। এ কারণেই তিনি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অনুপ্রেরণা পেয়েছেন।
 
তিনি মনে করেন, বৈষম্যমূলক আচরণ ও কর্মকাণ্ডের কারণে মুসলিমরা ধীরে ধীরে যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছেন। এ অবস্থায় প্রয়োজন হচ্ছে সব সম্প্রদায়ের মধ্যে স্বাভাবিক সম্পর্ক ও গণতান্ত্রিক প্রতিনিধিত্বকারী ব্যবস্থায় মুসলিমদের একীভূত হওয়া। নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি স্থানীয়ভাবে বাংলাদেশি জনগণের সংখ্যা বৃদ্ধি ও প্রভাবের প্রতিফলন বলে তিনি মনে করেন।

তিনি জানান, ২০১০ সাল থেকে ওই এলাকায় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মানুষের সংখ্যা ১ লাখের মতো বেড়েছে। তৈয়েবুর রহমান জানান, বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের সমর্থন রয়েছে তার পক্ষে। নির্বাচিত হলে তিনি অপরাধ প্রবণতা কমিয়ে আনা, প্রবীণ ও যুবকদের সহযোগিতা এবং সামগ্রিক উন্নয়নে মনোযোগী হবেন।


মন্তব্য