kalerkantho


চলচ্চিত্রের বৈশিষ্ট্যযুক্ত নাটক

বন্যার্তদের সাহাযার্থে যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় ‘পালকি’ মঞ্চস্থ

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি    

২২ আগস্ট, ২০১৭ ০৫:০১



বন্যার্তদের সাহাযার্থে যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় ‘পালকি’ মঞ্চস্থ

ছবি : কালের কণ্ঠ

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের আনানডেল শহরে ‘পালকি’ নাটকের প্রদর্শনী মঞ্চে সাম্প্রতি বাংলাদেশের বন্যাদূর্গত মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানিয়েছেন নাট্যকর্মী, কলাকুশলী ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা। আনানডেলের নোভা কমিউনিটি ক্লেজের আর্নেস্ট কালচারাল সেন্টারে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইঙ্ক (বাই) আয়োজিত গত শনি ও রবিবার দু’দিনব্যাপী ‘পালকি’ নামের চলচ্চিত্রের বৈশিষ্ট্যযুক্ত এ নাটকটি মঞ্চস্থ হয়।

ভার্জিনিয়া প্রবাসী লেখক সাংবাদিক সফি দেলোয়ার কাজলের লেখা এ নাটকটি পরিচালনা করেন কামরুল খান লিঙ্কন, কোরিওগ্রাফার হিসেবে ছিলেন রুমা খান। স্থানীয় তথ্য ও প্রযুক্তি প্রশিক্ষন প্রতিষ্ঠান ‘পিপল এন টেক’ এর পৃষ্ঠপোষকতায় আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর ও চলচ্চিত্রের বৈশিষ্ট্যযুক্ত পালকি নাটকটি বৃহত্তর ওয়াশিংটনের প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে প্রানের স্পন্দন জাগিয়েছে। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইঙ্ক (বাই) নিবেদিত পালকি নাটক মঞ্চায়নের অর্থ বাংলাদেশে চলমান বন্যা দূর্গত মানুষদের সাহাযার্থে ব্যয় করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।  

এর আগের ‘ঘুড়ি’ এবং ‘ঢেউ’ নামে আরও দু’টি নাটক মঞ্চায়ন করেছিল বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইঙ্ক। নাটক দু’টিতে দারুন সাফল্যের পর ‘পালকি’ ছিল তাদের তৃতীয় পরিবেশনা।

একজন ষোড়শী’ মেয়ের জীবনরহস্য আর স্বপ্নকে ঘিরে গড়ে উঠে নাটকের কাহিনী। বাংলাদেশের শহরতলীতে হিজলতলী গ্রামের ইছামতি নদীর পাড়ে মাস্টার বাড়ীর দুই মেয়ে শিমূল এবং পালকি। দুই বোনের জীবনের হাসি-কান্না, আনন্দ বেদনার এক রূপ কল্প নাটক-পালকি। তবে এর কাহিনী বিন্যাসে ষোড়শী পালকির জীবনের নানা বাঁক-ই ফুটে উঠেছে।

 

পালকির জীবনের দুরন্তপনা, ছেলে মানুষী, জীবনের কাছে তার চাওয়া-পাওয়া, তার ভাবনা, তার স্বপ্ন, সব কিছুই ফুটে উঠেছে পালকির কাহিনীতে। মা-মেয়ের সম্পর্ক, বোন-বোনে বাবা-মেয়ে, এবং মানুষে-মানুষে, বিশেষ করে ভালবাসা-ভাললাগার মানুষের সম্পর্ক। এই সম্পর্কের মাঝেই প্রকাশিত এবং বিকশিত হয়েছে আবেগ, ভালবাসা, রাগ-অনুরাগ, আনন্দ-বেদনা, আশা-অনুশোচনা এবং  কৃতজ্ঞতা প্রকাশের এক নিরন্তন প্রচেষ্টা।  

ঘুড়ি এবং ঢেউ এর পর পালকিও সকলের মন ভরিয়ে দিয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন নাট্যকার সফি দেলোয়ার কাজল। তিনি বলেন, অন্যান্য মাধ্যমের সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানের চেয়ে নাটক একটি সময় সাপেক্ষ ব্যায়বহুল প্রযোজনা। তাই গ্রেটার ওয়াশিংটন বাংলাদেশি কমিউনিটির সকলের সহযোগিতা একান্ত প্রয়োজন। বাই পরিবেশিত নাটক সুষ্ঠ বাংলা সংষ্কৃতির নির্যাস বিনোদনের পাশাপাশি একটি তহবিল উন্নয়ন প্রকল্প।

মঞ্চে পরিবেশনার সাথে প্রি-কম্পোজিতকৃত অংশের ফিউশন নাটকটিকে দিচ্ছে নতুন মাত্রা। মঞ্চে একেবারেই নতুন এই টেকনোলজি ব্যবহারে সহযোগিতা করছেন ভার্জিনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় এবং ক্যালিফোর্নিয়ার লোয়ালা ম্যারিমাউন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্য বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এছাড়া জর্জ ম্যাসন বিশ্ববিদ্যালয়, নর্দার্ন ভার্জিনিয়া কমিউনিটি কলেজ, ম্যারিল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা এ নাটকটি পরবেশনায় সার্বিক সহায়তা প্রদান করেছেন।

নাটকের নাম ভুমিকায় ছিলেন কিশোরী মেয়ে সামারা এলাহী। শিমুল চরিত্রে রূপদানকারী অদিতি চৌধুরী। অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করেন সফিকুল ইসলাম, কুলসুম রহমান, প্রণব বড়ুয়া, রমি মাহমুদ, শাহীন জাহাংগীর, তাসিনসহ আরো অনেকে।

তথ্য ও প্রযুক্তি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এবং চাকরির সুযোগ সৃষ্টি করে উত্তর আমেরিকার প্রবাসী বাংলাদেশীদের জীবনমান পরিবর্তনে সহায়তা প্রদানের জন্য নাটকের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ‘পিপল এন টেক’ এর সিইও প্রকৌশলী আবুবকর হানিপকে বিশেষ সম্মানন প্রদান করা হয়। এছাড়া সম্মাননা দেয়া হয়েছে প্লাটিনাম স্পন্সর প্রখ্যাত ইকোনমিস্ট, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস রিভিউয়ার ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ড. ফয়জুল ইসলামকে।

এ প্রসঙ্গে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে আবু বকর হানিপ বলেন, আজকের প্রাপ্ত সম্মাননা আমাকে  অনুপারনিত করবে। বাই আয়োজিত পালকি নাটকটি সত্যি এক অনবদ্য সৃষ্টি। প্রবাসী বাংলাদেশি আমেরিকান নতুন প্রজন্মকে বাংলাদেশি সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ও আমাদের শাশ্বত সম্পর্কগুলোর সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে বাই এর এ উদ্যোগকে সাদুবাদ জানাই। তিনি নাট্যকার সফি দেলওয়ার কাজল, পরিচালক লিঙ্কন খানসহ সকল কলা কুশলীদের ধন্যবাদ জানান।

তিনি বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতিতে লাখ লাখ পানিবন্দি মানুষদের সাহাযার্থে সামর্থবান সকল প্রবাসীদের এহিয়ে আসার জন্য আহবান জানান।  


মন্তব্য