kalerkantho


বাংলা ছবি 'ঢাকা অ্যাটাক' কলাকুশলীরাও আমিরাত মাতালেন

এম. আবদুল মন্নান, আমিরাত প্রতিনিধি   

৭ নভেম্বর, ২০১৭ ২২:৪৩



 বাংলা ছবি 'ঢাকা অ্যাটাক' কলাকুশলীরাও আমিরাত মাতালেন

বাংলাদেশ ও আমরিকায় সুপার ডুপার হিট করার পর আমিরাতেও বাজিমাত করল ঢাকা অ্যাটাক ছবিটি। আমিরাতে এ প্রথম কোন বাংলা ছবি এতটা ব্যবসা সফল হলো।

আমিরাতের তিনটি প্রদেশে তথা আবুধাবী, দুবাই আর আজমানের হলসমূহে নির্ধারিত ৩৫টি শো ছিল দেশীয় প্রবাসী দর্শকদের সরব উপস্থিতি।

প্রবাসী দর্শকদের দেশীয় ছবি দেখতে আরো আগ্রহী করে তুলতে আর হলমুখী করতে আমিরাতের দুবাইতে তিনদিনের সফরে ছুটে এসেছেন 'ঢাকা অ্যাটাক' কলাকুশলীরা। 'ঢাকা অ্যাটাক' কলাকুশলীরা দুবাইতে দেশি প্রবাসীদের সঙ্গে হলে বসে ছবিটি দেখেছেন। প্রবাসীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেছেন। প্রবাসীদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন ছবিটির কলাকুশলীরা। কাছ থেকে পর্দার নায়ক-নায়িকাদের কাছে পেয়ে প্রবাসী দর্শকরাও আনন্দিত।

আমিরাত প্রবাসীদের উদ্যোগে গত শনিবার (৪ নভেম্বর) রাতে দুবাইয়ের মভেনপিক হোটেলে ছবিটির কলাকুশলীদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ছবিটির সফল পরিচালক দীপংকর দীপন, কাহিনীকার অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সানি সানোয়ার, নায়ক আরেফিন শুভ, নায়িকা মাহিয়া মাহি, প্রযোজক ফারিয়া নওরিনসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

কানাডাভিত্তিক স্বপ্ন স্কেয়ারক্রো ছবিটি আমিরাতসহ বিশ্বের নানা দেশে মুক্তি দেবার উদ্যোগ নিয়েছে।

স্বপ্ন স্কেয়ারক্রো’র মধ্যপ্রাচ্য সমন্বয়কারী আহমদ ইখতিয়ার আলম পাভেল অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় বলেন, 'ঢাকা অ্যাটাক'-এ অভাবনীয় সাফল্য আমাদেরকে আস্থাশীল করেছে যে বাংলা ছবির একটা ভালো বাজার এখানে পাওয়া যাবে। ভবিষ্যতে আমিরাতসহ মধ্যপ্রাচ্যের হলগুলোতে সুস্থধারার বাংলা ছবি নিয়মিত মুক্তি দেয়া হবে।
 
সানি সানোয়ার বলেন, যে বিশেষ পুলিশ ফোর্স আমাদের আছে তাদের কাজের কথা আমরা কম জানি। তারা যে হাজার হাজারজঙ্গি, নাশকতা সৃষ্টিকারীর চেইন ব্রেক ডাউন করছেন, আপনাকে নিরাপদ রাখতে গিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিচ্ছেন, দেশের জন্য কাজ করতে গিয়ে নিজের আরাম-আয়েশ বিসর্জন দিচ্ছেন, তাদের কথা আমরা জানি না। এ ছবি তাদের কথাই বলে।
 
নায়িকা মাহিয়া মাহি তার বক্তব্যে বলেন, সুস্থ ধারার ভালো সিনেমা আমাদের দর্শকরা দেখতে চান। 'ঢাকা অ্যাটাক' তার প্রমাণ। এ ছবি করতে গিয়ে পুলিশ, সোয়াত টিম সবার সঙ্গে কাজ করেছি। এ ধরনের ছবিতে আরো কাজ করার সুযোগ পেলে তিনি করবেন বলে উল্লেখ করেন।

ছবিটির সফল পরিচালক দীপংকর দীপন বলেন, আমাদের যারা নিয়মিত সিনেমা দেখছেন, যারা দেখছেন না এবং দেখা ছেড়ে দিয়েছেন আমাকে তাদের দরকার। এদের বয়স ১৫ থেকে ৩৫। এ জেনারেশন যেকোনো পরিবর্তনের মূল ধারক। দেশের যত আন্দোলন, সংগ্রাম তার শুরুটা এ জেনারেশনের মাধ্যমে হয়েছে। এরা কীপছন্দ করেন, কী চান, কী দিলে তারা সিনেমা হলে যাবেন, সে জায়গাটায় আমি কাজ করতে চেয়েছি। তা ছাড়া পুলিশের যে চেহারা তার বাইরেও যে একটা স্মার্ট চেহারা আছে তা কীভাবে দেখানো যায়  ‘ঢাকা অ্যাটাক’-এর মাধ্যমে তা দেখাতে চেষ্টা করেছি।
 
নায়ক আরেফিন শুভ বলেন, 'গত ১৫-১৬ বছরে যারা বাংলা সিনেমা দেখতে যাননি তারা এখন যাচ্ছেন। তবে আমরা বলতে চাই, ‘ঢাকা অ্যাটাক’ আমাদের বেস্ট কাজ না। আমরা চেষ্টা করেছি, আমাদের অনেক ভুলছিল। কিন্তু আমরা যে চেষ্টা করেছি দর্শকরা সে চেষ্টা দেখতে পেয়েছেন। ৭১-এ লাঠিসোটা নিয়ে আমরা যদি দেশ স্বাধীন করতে পারি তাহলে আমরা সব পারব।

তিনি আরো বলেন, 'আমরা টেকনিক্যালি ভালো না, আমাদের ভালো রাইটার নেই, ভালো ডাইরেক্টার নেই, ভালো মিউজিক ডাইরেক্টার নেই, কিন্তু সেক্রিফাইস আছে। আমি স্বপ্ন দেখি একদিন বলিউডের মতো দুবাই, নিউ ইয়র্কে আমাদের ছবির প্রিমিয়ার শো হবে। '

অনুষ্ঠানে দুবাইতে নিযুক্ত বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল এস বদিরুজ্জামান প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, নরমালি তিনি হলে গিয়ে ছবি দেখেন না। আমিরাতে কখনো হিন্দি ছবি হলে গিয়ে দেখলেও ঘুমিয়ে পড়েন অধের্কে কিন্ত ঢাকা অ্যাটাক দেখতে গিয়ে তিনি বুঝতে পেরেছেন আমাদেরও ভাল ছবি আছে। আরব আমিরাতের মতো দেশে আমাদের সংস্কৃতি চর্চা এগিয়ে চলেছে।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন, সংবর্ধনা সভার মূখ্য পৃষ্ঠপোষক আমিরাতের অন্যতম নারী ব্যবসায়ী গুলশান আরা, কামাল হোসেন ও কামরুল হাসান।

পরিশেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দুবাইতে নিযুক্ত দেশের কনসাল জেনারেল এস, নায়ক আরেফিন শুভ, প্রতিভাবান শিল্পী তিশা সেন, টুম্পা, কাইছার, নওরীন প্রমুখের নানা পরিবেশনা প্রবাসীদের মাতিয়ে রাখেন।


মন্তব্য