kalerkantho


তরুণদের কণ্ঠ হতে চান সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক

জুয়েল রাজ, লন্ডন থেকে   

৩ জুলাই, ২০১৮ ২২:১২



তরুণদের কণ্ঠ হতে চান সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক

স্বপ্নবান যুবকরাই গড়বে আগামীর বাংলাদেশ। এই শ্লোগান নিয়ে বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরেই যুক্তরাজ্যের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছিল সরব। যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুকের সমর্থনে, যুক্তরাজ্যে বসবাসরত জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জের যুবসমাজের উদ্যোগে লন্ডনের অভিজাত অট্রিয়াম হলে সোমবার বৃহৎ যুব সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সৈয়দ ফারুককে নির্বাচনে দেখতে চাওয়ার দাবীতে ডাক দেয়া হয়েছিল এই  যুব সমাবেশের।

নিজের এলাকার ঐক্যবদ্ধ  যুব সমাবেশের ডাকে সাড়া দিয়ে সৈয়দ ফারুক যোগ দিয়েছিলেন সেই সমাবেশে।

জগন্নাথপুর পৌরসভার প্রথম পৌর প্রশাসক ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল মুকিতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সুলতান শরীফ বলেন,আগামী নির্বাচনে নৌকার বিজয় সু-নিশ্চিত করতে দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে হলে আবারও আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতায় আনতে হবে। আওয়ামীলীগ সরকার জনগণের জন্য কাজ করে।

তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা দেশে বিদেশে ছড়িয়ে দিতে হবে। আর সে কাজটি যুব সমাজকেই বেশী করে করতে হবে।

সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে যুব সমাজের উদ্দেশ্যে গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনা মূলক বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক মেধাবী ছাত্রনেতা, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের  সাধারণ সম্পাদক জননেতা সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক।

সৈয়দ ফারুক তার বক্তব্যে বলেন, আমার রাজনৈতিক কর্মপরিকল্পনার কেন্দ্রবিন্দু তরুণরা। সব বিষয়ে তারুণ্যের মতামত নেয়াই নয়, তাদের কণ্ঠও হতে চাই আমি। কারণ আমি মনে করি বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশে রূপান্তর করতে ও জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জকে একটি আধুনিক এলাকা হিসেবে গড়ে তুলতে তাদের ভূমিকাই মুখ্য।

সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক বলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নে আজকের এই বিশাল যুব সমাবেশ গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

ব্রিটেনের  বিভিন্ন শহর থেকে উপস্থিত জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জের সহস্রাধিক যুবকদের উদ্দেশে সৈয়দ ফারুক বলেন, আগামী নির্বাচনে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করতে এখন থেকে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। জননেত্রী শেখ হাসিনা যুবকদের নিয়ে স্বপ্ন দেখেন, তাঁর সরকার যুবকদের কল্যাণে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

অনুষ্ঠানে অধিকাংশ বক্তাই আগামী সংসদ নির্বাচনে তাঁকে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়ার দাবী জানান। পরে তিনি বলেন আপনারা অনেকেই আমার সম্পর্কে অনেক কথা বলেছেন কিন্ত আমি দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলতে চাই জননেত্রী শেখ হাসিনার একজন কর্মী হিসেবে তিনি আমাকে যে দায়িত্ব দেবেন নিজের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও আমি সেটাই পালন করে যাব।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন আলহাজ্ব জালাল উদ্দিন, হরমুজ আলী, নঈম উদ্দিন রিয়াজ, মারুফ চৌধুরী , সাজ্জাদ মিয়া , আব্দুল আহাদ চৌধুরী , আব্দুল আলী রউফ , মুহিব চৌধুরী , শাহ শামীম আহামেদ, চ্যানেল আই ইউরোপ এর সিইও রেজা আহমদ, ফয়সল চৌধুরী শোয়েব, সাবেক চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান কামালী, আজহারুল হক শিশু, আব্দুল মুমিন, সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আমিন, জামাল উদ্দিন চৌধুরী মখদ্দুছ, ড. রোয়াব উদ্দিন, প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন শহর থেকে হাজার হাজার যুবক যোগ দেন। সভা যৌথ ভাবে পরিচালনা করেন তারিফ আহমদ ও এম এ সালাম।

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন কবি মাসুক ইবনে আনিস।



মন্তব্য