kalerkantho


মানসিক চাপ, উদ্বেগ এবং দুঃশ্চিন্তা নিয়ন্ত্রণের ৯টি উপায়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ নভেম্বর, ২০১৭ ১৮:৩৭



মানসিক চাপ, উদ্বেগ এবং দুঃশ্চিন্তা নিয়ন্ত্রণের ৯টি উপায়

১. বাদাম
একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত এক মুঠো করে বাদাম খাওয়ার অভ্যাস করলে মস্তিষ্কের ভেতরে কর্টিজল নামক স্ট্রেস হরমোনের ক্ষরণ কমতে শুরু করে। ফলে একদিকে যেমন উদ্বেগ বা দুশ্চিন্তা কমে, তেমনি অন্যদিকে মনও চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

প্রসঙ্গত, বাদাম ছাড়াও মাছ, আখরোট এবং ফ্লেক্সসিডেও প্রচুর মাত্রায় ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা কর্টিজল হরমোনের ক্ষরণ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

২. মাছ-মাংস
বিশেষজ্ঞদের মতে এমন ধরনের খাবার খেলে শরীরে লে-লাইসাইন নামে এক ধরনের অ্যামাইনো অ্যাসিডের মাত্রা বৃদ্ধি পায়, যা নিউরোট্রান্সমিটারের ক্ষমতা বৃদ্ধির মধ্যে দিয়ে সার্বিকভাবে ব্রেন পাওয়া বাড়াতে সাহায্য করে। আর একবার ব্রেন পাওয়ার বেড়ে গেলে অ্যাংজাইটি কমতেও সময় লাগে না। প্রসঙ্গত, মাছ এবং মাংস ছাড়াও বিনিসেও লে-লাইসাইনের সন্ধান পাওয়া যায়।

৩. রোদ
গবেষণা বলছে শরীরে ভিটামিন ডি-এর মাত্রা বৃদ্ধি পেলে দুশ্চিন্তা কমে। তাই তো দেহে কোনওভাবেই যাতে এই ভিটামিনটির ঘাটতি দেখা না যায়, সেদিকে খেয়াল রাখা একান্ত প্রয়োজন। প্রসঙ্গত, ভিটামিন ডি-এর সবথেকে ভাল উৎস হল সূর্যালোক। তাই সকাল বেলা, এই ধরুন ৭-৯ টার মধ্যে প্রতিদিন গায়ে রোদ লাগানোর চেষ্টা করবেন, এমনটা করলে দেখবেন চিন্তা আর মগজ ধোলাই করতে পারবে না।

৪. শরীরচার্চায় ঠিক ২১ মিনিট
একাধিক কেস স্টাডি করে বিশেষজ্ঞরা জানতে পেরেছেন নিয়মিত মাত্র ২১ মিনিট শরীরচর্চা করলে এন্ডোরফিন নামক একটি হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যেতে শুরু করে।

এই হরমোনটি মনকে চাঙ্গা করে তুলতে বিশেষ ভূমিকা নেয়। তাই তো এন্ডোরফিনের ক্ষরণ যত বৃদ্ধি পায়, তত চিন্তা কমতে থাকে, বাড়তে থাকে আনন্দ।

৫. দু কাপের বেশি কফি নয়
ভুলেও দিনে দু কাপের বেশি কফি খাবেন না যেন! আসলে শরীরে ক্যাফেইনের মাত্রা বাড়তে থাকলে এনার্জির ঘাটতি দূর হয় ঠিকই, কিন্তু সেই সঙ্গে অ্যাংজাইটি লেভেলও বাড়তে শুরু করে, যা শরীরের জন্য একেবারেই ভাল নয়। তাই এবার থেকে কফির মাত্রা কমিয়ে গ্রিন টি খাওয়া শুরু করতে পারেন। এমনটা করলে শরীরের উপকার তো হবেই, সেই সঙ্গে অ্যাংজাইটি লেভেল বাড়ার আশঙ্কাও থাকবে না।

৬. ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন এবং জিঙ্কের ঘাটতি যেন না হয়
এই তিনটি উপাদান ব্রেন এবং শরীরের কর্মক্ষমতা বাড়াতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই ভুলেও যেন এদের ঘাটতি না হয়, বিশেষত ভিটামিন বি ১২-এর। এক্ষেত্রে ডায়েটের দিকে নজর দিতে হবে। যে যে খাবারে এই উপাদানগুলি বেশ মাত্রায় রয়েছে, সেগুলি খেলেই দেখবেন আর কোনও চিন্তা থাকবে না। প্রসঙ্গত, ভিটামিন বি১২ প্রচুর মাত্রায় থাকে মাছ, মাংস, ডাল, ডায়াটারি প্রডাক্ট এবং ডিমে।

৭. জাম
এই ফলটির শরীরে আছে অ্যান্থোসায়ানিন নামক বিশেষ এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যা শরীরে প্রবেশ করার পর এমন খেল দেখায় যে মানসিক চাপ কমতে সময় লাগে না। তাই তো এবার থেকে যখনই দেখবেন স্ট্রেস লেভেল হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে, তখনই এক মুঠো জাম খেয়ে নেবেন। দেখবেন নিমেষে মন চাঙ্গা হয়ে উঠবে।

৮. কাজু বাদাম
একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে শরীরে জিঙ্কের মাত্রা কমতে থাকলে ডিপ্রেশন এবং অ্যাংজাইটি মাত্রা ছাড়ানোর আশঙ্কা থাকে। তাই কোনওভাবেই যাতে শরীরে এই দুই খনিজটির ঘাটতি না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আর কিভাবে খেয়াল রাখবেন এই বিষয়টির? খুব সহজ একটা পদ্ধতি আছে। প্রতিদিন এক মুঠো করে কাজু বাদাম খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন স্ট্রেস কখনও আপনাকে ভোগাতে পারবে না। কারণ কাজু বাদামের মধ্যে মজুত থাকে প্রচুর মাত্রায় জিঙ্ক, যা মানসিক চাপের যম!

৯. রসুন
এই প্রাকৃতিক উপাদানটির শরীরে মজুত রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা শরীর থেকে টক্সিক উপাদানদের বের করে দেওয়ার মধ্যে দিয়ে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। প্রসঙ্গত, অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমতে থাকলে স্ট্রেস লেভেলও ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে। তাই তো রান্নায় রসুন ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিপটামি করবেন না যেন!

সূত্র: বোল্ডস্কাই


মন্তব্য