kalerkantho


সরাইলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত অর্ধশত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

১৫ জুন, ২০১৮ ০০:০০



ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয় বলে অভিযোগ।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাঠিপেটার পাশাপাশি সাউন্ড গ্রেনেড, টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, কলা কেনা নিয়ে দুই যুবকের মধ্যে কথা-কাটাকাটির জেরে সদর ইউনিয়নের উচালিয়াপাড়া ও নোয়াগাঁও ইউনিয়নের তেরকান্দা গ্রামের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ঘটনার পর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। 

আরো জানা যায়, গত বুধবার বিকেলে উচালিয়াপাড়া বাজারে কলার দাম নিয়ে নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক সদস্য ও তেরকান্দা গ্রামের মৃত ফজলু মিয়ার ছেলে সাব্বির মিয়ার সঙ্গে সদর ইউপি সদস্য সায়েদ মিয়ার ছেলে সুখন মিয়ার বাগিবতণ্ডা হয়। সাব্বির বিষয়টি তাঁর এলাকায় জানালে উত্তেজনা দেখা দেয়। গতকাল সকালে সাব্বিরের পক্ষ নিয়ে কিছু লোক উচালিয়াপাড়ায় হামলা চালায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। প্রথমে সরাইল থানার পুলিশ, পরে জেলা সদর থেকে আসা অতিরিক্ত পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. আব্দুল জব্বার বলেন, কলা কেনা নিয়ে দুই যুবকের মধ্যে কথা-কাটাকাটির জেরে এ সংঘর্ষ হয়। পুলিশের কয়েক ঘণ্টার চেষ্টায় বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে দুই পক্ষকেই সরিয়ে দিলে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়। বিষয়টি নিয়ে উভয় পক্ষের লোকজনের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সরাইল থানার ওসি মো. মফিজ উদ্দিন ভূঁইয়া গতকাল বিকেলে বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দুই শতাধিক সাউন্ড গ্রেনেড, রাবার বুলেট, টিয়ার শেল ছুড়তে হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



মন্তব্য