kalerkantho


পুরুষের জঘন্য দৃষ্টির প্রতিবাদ করুন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২১:২৬



পুরুষের জঘন্য দৃষ্টির প্রতিবাদ করুন

প্রতীকী ছবি

কারো দিকে একদৃষ্টে অথবা বারবার তাকানো এক ধরণের যৌন হয়রানি। এদেশের পুরুষেরা বেশ দাপটের সাথে সব যৌন হয়রানিমূলক কাজগুলো করে থাকে। এর মধ্যে মেয়েদের দিকে তাকানো এবং তাকিয়ে তাকা তার অন্যতম। এই তাকানো শুধু মেয়ের মুখমণ্ডলে সীমাবদ্ধ থাকে না, মেয়ের সারাশরীরে দৃষ্টি বুলানোর মধ্যদিয়ে পুরুষ তার পৌরুষ ঘোষণা করতে থাকে। 

আবার সব ধরণের যৌন হয়রানির মধ্যে মেয়েরা যে হয়রানিটার সবচেয়ে কম প্রতিবাদ করে সেটিও হল এই তাকিয়ে থাকা। পুরুষের জঘন্য তাকিয়ে থাকার প্রতিবাদ মেয়েরা সহজে করে না, বা বলা যায় সহজে করতে দ্বিধাবোধ করে, যেহেতু এই হয়রানি নীরবে নিভৃতে করা হয় এবং এটি প্রমাণ করার কোন সুযোগ থাকে না, সেই কারণেই হয়তো মেয়েরা চুপচাপ এই তাকানোর নোংরামিটা সয়ে যেতে থাকে।

আমি হইলাম সেই বেদ্দপ মহিলা, যে রাস্তাঘাটে হাটেবাজারে রেস্তোরায় অফিসে আদালতে সর্বত্র সব বয়সী সব শ্রেণির সব জাতের পুরুষের সব ধরণের তাকানোর প্রতিবাদ করি এবং পুরুষটারে বুঝায়ে ছাইড়া দিই যে সে যে আমার দিকে তাকায়া আছে এটা একটা কুৎসিত কর্ম এবং এর জন্য তারে জুতা দিয়া পিটায়া সিধা করাই সবচেয়ে সুন্দর ব্যবস্থা হইতে পারে। 

এই প্রতিবাদ করতে গিয়া হুজ্জত পোহাইতে হয়, সত্য, তবে এও সত্য, প্রতিবাদ না করলে নিজের মনের সাথে যে হুজ্জতের মুখোমুখি হইতে হয়, তা আরো জঘন্য।

পুরুষ, তা সে রিকশাওয়ালা কি ভ্যানওয়ালা কি অফিসার কি রাজা কি উজির কি বস কি চাকর কি পিয়ন কি ওয়েটার কি বড় ব্যবসায়ী কি ছোট ব্যবসায়ী কি বিশিষ্ট মডেল যিনিই হউক না কেন, তার দৃষ্টি যদি আপনাকে ব্যক্ত বিরক্ত অতীষ্ঠ বিব্রত ও অপমানিত করে, তবে অবশ্যই অবশ্যই প্রতিবাদ করবেন, তারে বুঝায়া ছাড়বেন কত ধানে কত চাল এবং আরো জানায়া দেবেন যে চক্ষু দিয়া নারীরে চেটে খাওয়ার দিন শেষ হইছে এবং এবং এই চাটাচাটির জবাবে তারে যথেষ্ট অপমান ও প্রয়োজনে সাজার মুখোমুখি হইতেই হবে এখন থেকে।

- শারমিন শামস্ এর ফেসবুক থেকে



মন্তব্য