kalerkantho


রোহিঙ্গা নির্যাতনের প্রতিবাদ : এবার উড়বে না ফানুস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ অক্টোবর, ২০১৭ ১৩:১২



রোহিঙ্গা নির্যাতনের প্রতিবাদ : এবার উড়বে না ফানুস

রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সরকারের জাতিগত নিধন, অত্যাচার, নির্যাতনের প্রতিবাদ জানাতে কক্সবাজারে বৌদ্ধ সম্প্রদায় তাদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব শুভ প্রবারণা পূর্ণিমার সকল অনুষ্ঠানিকতা স্থগিত করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার কক্সবাজারের বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু ও রামু কেন্দ্রীয় সীমা বিহারের অধ্যক্ষ পণ্ডিত সত্যপ্রিয় মহাথেরর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

মিয়ানমারে বৌদ্ধ ও মগরা রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর নির্যাতন চালালেও রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন কক্সবাজারের বৌদ্ধ সম্প্রদায়।

কক্সবাজারের বৌদ্ধনেতারা জানিয়েছেন, ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর দুষ্কৃতকারীরা সহিংসতা চালিয়ে রামুর বৌদ্ধমন্দির ও বৌদ্ধপল্লীতে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করেছিল। ওই সময় বাংলাদেশ সরকার ও দেশ-বিদেশের মানুষ রামুর অসহায় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের পাশে দাঁড়িয়েছিল। সহানুভূতি জানিয়েছিল জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে সকল সম্প্রদায়ের মানুষ। ধর্মের ওপর আঘাত হানায় সে সময়ও রামুর বৌদ্ধরা সকল প্রকার উৎসব বর্জন করেছিল।

তারা জানিয়েছেন, পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর সে দেশের সরকার অমানবিক নির্যাতন চালিয়ে নারী ও শিশুসহ মানুষ হত্যা করছে। তার প্রতিবাদে বৌদ্ধ সম্প্রদায় শুরু থেকেই প্রতিবাদ জানিয়ে মানববন্ধন করেছে।

বৌদ্ধরা মনে করেন, ২০১২ সালের রামু সহিংসতা আর বর্তমানে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নির্যাতন এক ও অভিন্ন। তারা সকল নির্যাতনের বিরুদ্ধে।

তাই রোহিঙ্গাদের প্রতি সহানুভূতি জানাতে এ বছর প্রবারণা পূর্ণিমায় জাহাজ ভাসানো ও ফানুস ওড়ানো উৎসবসহ সকল প্রকার উৎসব বর্জন করা হয়েছে।

 


মন্তব্য