kalerkantho


মিয়ানমার নাগরিকদের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন অব্যাহত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ নভেম্বর, ২০১৭ ২২:২১



মিয়ানমার নাগরিকদের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন অব্যাহত

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭টি ক্যাম্পের মাধ্যমে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন কাজ এগিয়ে চলছে। পাসপোর্ট অধিদপ্তর নিবন্ধন কাজ বাস্তবায়ন করছে।

সোমবার কুতুপালং-১ ক্যাম্পে ১ হাজার ১৬ জন পুরুষ, ১ হাজার ১ শত ৯৫ জন নারী মিলে ২ হাজার ২ শত ১১ জন, কুতুপালং-২ ক্যাম্পে ১ হাজার ৩ শত ১৪ জন পুরুষ, ১ হাজার ৪ শত ৪২ জন নারী মিলে ২ হাজার ৭ শত ৫৬ জন, নোয়াপাড়া ক্যাম্পে ৪ শত ৯৫ জন পুরুষ, ৬ শত ৮৪ জন নারী মিলে ১ হাজার ১ শত ৭৯ জন, থাইংখালী -১ ক্যাম্পে ৯ শত ৪৬ জন পুরুষ, ১ হাজার ১ শত ৬৭ জন নারী মিলে ২ হাজার ১ শত ১৩ জন, থাইংখালী -২ ক্যাম্পে ৬ শত ৮২ জন পুরুষ, ৬ শত ৬৭ জন নারী মিলে ১ হাজার ৩ শত ৪৯ জন, বালুখালী ক্যাম্পে ১ হাজার ৪ শত ৪২ জন পুরুষ, ১ হাজার ৪ শত ৩৯ জন নারী মিলে ২ হাজার ৮ শত ৮১ জন, শামলাপুর ক্যাম্পে ৫ শত ৪৪ জন পুরুষ, ৮ শত ৯১ জন নারী মিলে ১ হাজার ৪ শত ৩৫ জন এবং পুরোদিনে ৭টি কেন্দ্রে মোট ১৩ হাজার ৯ শত ২৪ জনের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা হয়েছে।

সোমবার পর্যন্ত বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মোট ৫ লাখ ১২ হাজার ৫৮ জনের নিবন্ধন করা হয়েছে।

সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক আজ পর্যন্ত ৩৬ হাজার ৩ শত ৭৩ জন এতিম শিশু শনাক্ত করা হয়েছে।  

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) রিপোর্ট মোতাবেক 
২৫ আগস্টের পর থেকে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিকের সংখ্যা ৬ লাখ ২৭ হাজার ৫ শত জন। অনুপ্রবেশ অব্যাহত থাকায় এ সংখ্যা বাড়ছে।

এদিকে, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের জন্য মানবিক সহায়তার অংশ হিসেবে বেসরকারি উৎস থেকে প্রাপ্ত ত্রাণ সরকারি উদ্যোগে বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।

উখিয়ায় স্থাপিত নিয়ন্ত্রণকক্ষে আজ ১৭ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ৩৪ ট্রাকের মাধ্যমে ৯০ মেট্রিক টন ত্রাণ জমা দিয়েছে। প্রাপ্ত এসব ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে ৯ হাজার ২৫ প্যাকেট শুকনো খাবার, ১ হাজার ৫ শত ৫২ প্যাকেট শিশু খাদ্য, ৮ হাজার ২ শত ৮০ পিস পোশাক, ৬ হাজার ২ শত পিস গৃহস্থালি সামগ্রী। এসব ত্রাণ আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

 

জেলা ত্রাণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, সোমবার পর্যন্ত কক্সবাজার ৪টি খাদ্য গুদামে প্রাপ্তি ও প্রদানের পর ৯৭৭ মেট্রিক টন চাল, ৭৯ মেট্রিক টন ডাল, ৯৬ হাজার ৬ শত ২৯ লিটার তেল, ৬১ মেট্রিক টন লবণ, ৮৩ মেট্রিক টন চিনি, ৮ হাজার ২ শত ৮ কেজি আটা, ৮০ হাজার ৬ শত ৭০ কেজি গুঁড়ো দুধ, ২৫ কেজি মুড়ি, ১৬ হাজার ১ শত পিস ও ৪৮৯ বান্ডেল কম্বল, ৫১১ টি তাঁবু ও ত্রিপল মজুত রয়েছে।

জেলা প্রশাসক, কক্সবাজার এবং জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকতা কর্তৃক যৌথভাবে পরিচালিত “অবৈধভাবে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিকদের মানবিক সহায়তা” নামক সোনালী ব্যাংক কক্সবাজার শাখার চলতি হিসাব নং- ৩৩০২৪৬২৫ এ আজ পর্যন্ত ৩ কোটি ৫৩ লাখ ২০ হাজার ৭৬ টাকা জমা রয়েছে।


মন্তব্য