kalerkantho


দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথ

দালাল না ধরলে গাড়ি আটকায় ট্রাফিক পুলিশ

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি   

২২ আগস্ট, ২০১৭ ১৩:০৯



দালাল না ধরলে গাড়ি আটকায় ট্রাফিক পুলিশ

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া থেকে মুন্সীগঞ্জের শিবালয় উপজেলার পাটুরিয়া যেতে দালাল ধরতে হচ্ছে ট্রাকচালকদের। তা না হলে ট্রাফিক পুলিশ ট্রাক আটকে দিচ্ছে। যশোরের বেনাপোল থেকে ছেড়ে আসা গাজীপুরগামী ট্রাকের চালক বিকাশ কুমার রায় জানান, গত শুক্রবার সকালে লোহার পাতবোঝাই ট্রাক নিয়ে তিনি দৌলতদিয়া ঘাটে আসেন। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডাব্লিউটিসি) কাউন্টার থেকে তিনি ফেরির টিকিট কেনেন। সন্ধ্যায় কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ বাজে মালের ট্রাক উল্লেখ করে তাঁর কাছ থেকে টিকিট নিয়ে নেয়। পাশাপাশি তাঁর ট্রাকটি টার্মিনালের পার্কিং ইয়ার্ডে ঢুকিয়ে দেয়। গতকাল সোমবার দুপুর ২টা পর্যন্ত ট্রাকটি ফেরির টিকিট পায়নি। কখন পাবে তাও চালক জানেন না। বিকাশ অভিযোগ করেন, দৌলতদিয়া ঘাটে উপরি টাকায় দালাল ধরলে বাজে মালও কাঁচামাল হয়ে যায়। কিন্তু আমি তা করিনি। এ কারণে আমার গাড়ি ফেরির সিরিয়াল পাচ্ছে না।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিকাশের মতো অনেক চালক দৌলতদিয়া ঘাটে এসে বিভিন্ন পণ্যবোঝাই ট্রাক নিয়ে দিনের পর দিন আটকা পড়ে আছে। গতকাল সোমবার দুপুরে দৌলতদিয়া ঘাট ঘুরে দেখা যায়, চার কিলোমিটারজুড়ে একপাশে ট্রাকের দীর্ঘ সারি। ট্রাকের চালক ও ঘাট শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী পণ্যবাহী ট্রাকগুলো ফেরির টিকিট সিরিয়ালে আটকা পড়ে আছে। এর মধ্যে চার-পাঁচ দিন আগে আসা শতাধিক ট্রাকও রয়েছে।

বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট অফিস সূত্রে জানা যায়, পদ্মায় পানি ধীরে ধীরে কমতে শুরু করলেও স্রোতের তীব্রতা কমেনি। এ কারণে এই নৌপথে চলাচলকারী ফেরিগুলো স্বাভাবিক গতিতে চলতে পারছে না। স্রোতের তোড়ে ফেরিগুলো নৌ চ্যানেল থেকে দেড়-দুই কিলোমিটার ভাটিপথ ঘুরে চলাচল করছে। এতে সময় বেশি লেগে যাচ্ছে। এতে ফেরি পারাপার প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে।

বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, তীব্র স্রোতের কারণে নৌপথে ফেরি পারাপার ব্যাহত হওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাটে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তবে যাত্রীদুর্ভোগ কমাতে বাস, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে। এ কারণে ঘাটে পণ্যবাহী ট্রাকগুলো আটকা পড়ে আছে বলে তিনি জানান।


মন্তব্য