kalerkantho


বিশ্বকাপে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ অস্বীকার মুরালিধরনের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ আগস্ট, ২০১৭ ১৮:২৫



বিশ্বকাপে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ অস্বীকার মুরালিধরনের

দুই লঙ্কান গ্রেট অর্জুনা রানাতুঙ্গা (বামে) এবং মুত্তিয়া মুরালিধরন (ডানে) ছবি: ক্রিকইনফো

একসময়ের বিশ্বকাপজয়ী শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটাঙ্গনে এখন দুর্যোগের ঘনঘটা। একের পর এক ম্যাচে বাজেভাবে হার; ক্রিকেটারদের নিয়ে মন্ত্রীদের নানা মন্তব্য আর সাবেক ক্রিকেটারদের পক্ষ থেকে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ নিয়ে ভয়ানক অবস্থায় আছে দ্বীপরাষ্ট্রটির ক্রিকেট।

এমন পরিস্থিতিতে সাবেক অধিনায়ক অর্জুনা রানাতুঙ্গার করা ২০১১ সালে ভারতের বিপক্ষে বিশ্বকাপ ফাইনালে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার করেছেন শ্রীলঙ্কার স্পিন কিংবদন্তি মুত্তিয়া মুরালিধরন।  

স্থানীয় একটি টেলিভিশন শোতে ৪৫ বছর বয়সী মুরালিধরন বলেছেন, 'ভারত সেই সময় সেরা দল ছিল এবং টুর্নামেন্টে আমরা ছিলাম দ্বিতীয় সেরা। '

মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে পরাজয়ের পিছনে নিজের এবং অল-রাউন্ডার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজের ইনজুরির বিষয়টিকে তিনি মূল কারণ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'ফাইনালে আমাদের জয়ের দারুন সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু এখানে দুটি বিষয় ঘটেছে। সেমিফাইনালে আমি কুঁচকির ইনজুরিতে পড়ি। আর ধারাবাহিক রানে থাকা ম্যাথুজ ইনজুরির কারণে ফাইনালে খেলতেই পারেননি। ব্যাটসম্যানরা ভালোই রান করছিল। কিন্তু মিডল অর্ডারে ব্যাটসম্যানরা ভালো করতে না পারায় নির্বাচকরা ৩-৪টি পরিবর্তন করে দল সাজায় যা নিয়মিত দলের সাথে ঐ দলটির পার্থক্য গড়ে দেয়। '

টসের বিষয় টেনে এনে মুরালি বলেন, 'টসে জয়ের পর সিনিয়র খেলোয়াড় ও নির্বাচকরা রান তাড়া করতে ভয় পেয়েছিল।

সে কারণেই প্রথমে ব্যাটিংয়ের চিন্তা করেছিল। কিন্তু আমার মাথায় ছিল পরে ব্যাট করার। কারণ আমার মনে হয়েছে ভারত যেকোনো রান তাড়া করতে সক্ষম। আর এই সিদ্ধান্তই আমার সাথে তাদের মত পার্থক্য দেখা দেয়। আগের কয়েকটি সফরের অভিজ্ঞতা থেকেই আমি তাদের এই পরামর্শ দিয়েছিলাম। এখানে শিশিরের বিষয়টি বড় হয়ে দেখা দেয়। কিন্তু সাঙ্গাকারা আমাকে বলেছিল ম্যাচ রেফারি প্রতিশ্রুতি দিয়েছে কেমিক্যাল ব্যবহারের কারণে মাঠে কোনো ধরনের শিশিরের উপদ্রব হবে না। '

কিন্তু এই শিশিরই শ্রীলঙ্কান খেলোয়াড়দের জন্য সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। মাত্র ১৫ ওভারের মধ্যেই ঘাসে শিশির দেখা দেয় এবং ঐ সময় আর কিছুই করার ছিল না। এখানে ম্যাচ পাতানোর কোন বিষয় আসতেই পারেনা বলে জোর দাবি জানিয়েছেন লঙ্কার সাবেক এই মায়াবী ঘাতক।


মন্তব্য