kalerkantho


জয়ে ফিরল মাহমুদউল্লাহর খুলনা টাইটান্স

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ নভেম্বর, ২০১৭ ২২:৪২



জয়ে ফিরল মাহমুদউল্লাহর খুলনা টাইটান্স

ফাইল ছবি

দুই দলের প্রথম দেখায় জয় পেয়েছিল খুলনা টাইটান্স। চিটাগং ভাইকিংসকে সহজেই হারিয়েছিল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।

আজ শুক্রবার দ্বিতীয় লিগের ম্যাচেও একই ফলাফল হল। চিটাগং ভাইকিংসকে ৫ উইকেটে পরাজিত করেছে খুলনা টাইটান্স।

১৬১ রানের টার্গেটে ব্যট করতে নেমে দলীয় ১৫ রানে প্রথম উইকেট হারায় খুলনা টাইটান্স।  সানজামুলের বলে ১ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরেন ক্লিঙ্গার। তবে অপর ওপেনার রুশো শুরু করে বিধ্বংসী ব্যাটিং। সিকান্দার রাজার বলে বোল্ড হওয়ার আগে ধীমান ঘোষ ৪ রানের বেশি করতে পারেননি। রুশোর ভাগ্য খারাপ। আল-আমিনের বলে বোল্ড হওয়ার আগে ২৬ বলে ৫ চার ৩ ছক্কায় তার সংগ্রহ ৪৯। একটুর জন্য হাফ সেঞ্চুরিটা হল না।

তানবীর হায়দারের বল নাজমুল হোসেন শান্ত কট অ্যান্ড বোল্ড হয়ে গেলে পরিস্থিতি আরও খারাপ আকার ধারণ করে। একপ্রান্ত আগলে লড়ছিলেন মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ। তার সঙ্গী হন আরিফুল হক। এর পরেই লড়াই চালিয়ে যেতে থাকেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তার সঙ্গে সমান তালে ব্যাট চালিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন আরিফুল হক।

এক পর্যায়ে তাণ্ডবের মাত্রা আরও বাড়িয়ে দেন দুজন। ২৪ বলে যখন ৩৪ রানে ব্যাট করছিলেন আরিফুল তখনই তাকে তালুবন্দী করেন পেসার তাসকিন।   অবশ্য তাতেও থেমে থাকেনি খুলনা। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ব্র্যাথওয়েট তাসকিনের এক বলে চার আরেক বলে ছয় মেরে দিয়ে ১৮তম ওভারে দলকে জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দেন। পরের ওভারের দ্বিতীয় বলে চার মেরে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন মাহমুদউল্লাহ। খুলনা অধিনায়ক অপরাজিত ছিলেন ৪৪ রানে। তার ৩৪ বলের ইনিংসে ছিল ৩টি চার ও একটি ছয়। সঙ্গে ১০ রানে ব্যাট করছিলেন ব্র্যাথওয়েট।

এর আগে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৬০ রান তোলে চিটাগং। পুরো ইনিংসজুড়েই চলেছে খুলনার ফিল্ডারদের ক্যাচ মিসের মহড়া। ইনিংসের প্রথম বলেই আবু জায়েদের বলে ক্যাচ দিয়ে বেঁচে যান চিটাগং ওপেনার লুক রনচি। অনেক দূর থেকে দৌঁড়ে এসে কঠিন ক্যাচটি তালুবন্দি করতে পারেননি রুশো। তবে দ্বিতীয়বার আর রেহাই পেলেন না। জায়েদের ওভারের শেষ বলে রনচির (৩) ক্যাচ নিলেন অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহ। তবে সৌম্য-বিজয় জুটিতে এই বিপদে দ্রুতই কাটিয়ে উঠে চিটাগং।

দ্বিতীয় উইকেটে সৌম্য-বিজয় মিলে ৯৫ রানের জুটি গড়েন। ৩৪ বলে ৩ বাউন্ডারিতে ৩২ রান করে মাহমুদ উল্লাহর শিকার হন সৌম্য। তবে তার আগেই হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন এনামুল হক বিজয়। তার ৪৭ বলে ৫ চার ৩ ছক্কায় ৬২ রানের বিধ্বংসী ইনিংসটি থামে আবু জায়েদের বলে উইকেটকিপার ধীমান ঘোষের গ্লাভসবন্দী হয়ে।  

আবু জায়েদের তৃতীয় শিকার হয়ে ০ রানে আউট হয়ে যান সিকান্দার রাজা। এরপর নাজিবুল্লাহ জার্দান (২৪) আর ভ্যান জাইলের (২৩) জুটিতে শেষ পর্যন্ত  ১৬০ পর্যন্ত যায় চিটাগং। ভাইকিংসদের নেতৃত্বে ছিলেন আজ লুক রনচি। একাদশে ছিলেন না নিয়মিত অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হক।


মন্তব্য