kalerkantho


কন্তের সঙ্গে জমজমাট ঝগড়া চলছে মরিনহোর!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ২০:১৭



কন্তের সঙ্গে জমজমাট ঝগড়া চলছে মরিনহোর!

ঝগড়ার জন্য ফুটবলবিশ্বে আলোচিত যুগলবন্দি হলেন হোসে মরিনহো আর আন্তনিও কন্তে। এই দুজনের ঝগড়া যেন থামারই নয়। মরিনহো এমনিতেই ঠোঁটকাটা স্বভাবের। কাউকে ছেড়ে কথা বলার লোক তিনি নন। এমনকী স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসনকেও একহাত নিয়েছিলেন তিনি। এবার কন্তের সঙ্গে 'শান্তি চুক্তি' করতে গিয়ে নতুন করে খোঁচা মারলেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বস।

এবারের কলহের শুরুটা অবশ্য মরিনহোই করেছিলেন। কিছুদিন আগে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের কোচদের উদ্দেশ করে ইউনাইটেড কোচ বলেছিলেন, ডাগ আউটে তাদের আচরণ পাগল আর জোকারদের মত। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম এই মন্তব্যকে পুঁজি করে রসালো সংবাদ পরিবেশন করতে থাকে। যার প্রধান টার্গেট কন্তে এবং ক্লপ।

জবাবে চেলসি কোচ ক্লপ মরিনহোকে তার অতীত স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, 'মরিনহো হয়ত তার অতীতে ফিরে গেছেন। আগের মতই মারমুখী তিনি।'

একটা সময় ডাগ আউটে প্রচণ্ড বদমেজাজি ছিলেন মরিনহো। কখনো দৌঁড়ে জড়িয়ে ধরেছেন খেলোয়াড়দের। কখনো আবার মারমুখী ভঙ্গিতে ছুটে গেছেন রেফারি কিংবা ম্যাচ অফিশিয়ালদের প্রতি। প্রতিপক্ষ কোচের প্রতি তার আচরণ এখনও সংশোধন হয়নি। তাই বলে মুখ বন্ধ করে বসে থাকার পাত্র নন মরিনহো।

কন্তের খোঁচার জবাবে পাল্টা খোঁচা দিয়ে তিনি বলেছেন, 'এই গল্পের (ঝগড়ার) শেষ টানতে আমি একটি কথাই বলতে চাই। অতীতে টাচলাইনে আমি কিছু ভুল করেছি; এখন সেটা কমানোর চেষ্টা করব। কিন্তু তারপরও হয়তো কিছু ভুল হবে। কিন্তু আমার ক্ষেত্রে যা কখনো ঘটেনি এবং ঘটবেও না। সেটা হল, আমি কখনো ম্যাচ পাতানোর অভিযোগে সাসপেন্ড হইনি।'

উল্লেখ্য, ২০১০ সালে সিয়েনার কোচ থাকার সময় কন্তের বিরুদ্ধে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ উঠেছিল। ২০১২-১৩ মৌসুমে জুভেন্টাসের কোচ থাকাকালীন সেই অভিযোগ থেকে নিস্তার পাননি তিনি। যে কারণে ৪ মাসের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছিল কন্তেকে। তবে ২০১৬ সালে আদালত কর্তৃক কন্তে নির্দোষ প্রমাণিত হন। সব জেনেই মরিনহো এই খোঁচাটা দিয়েছেন কন্তেকে। ঝগড়াটা জিইয়ে রাখতে হবে তো.....।


মন্তব্য