kalerkantho


বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের ঘুরে দাঁড়ানোর মিশন আজ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ জুন, ২০১৮ ২০:৪৫



বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের ঘুরে দাঁড়ানোর মিশন আজ

অনুশীলনে মেসুত ওজিল। ছবি : এএফপি

প্রথম ম্যাচে পরাজিত হয়ে বিশ্বকাপ থেকে বিদায়ের এক 'ভয়াবহ' পরিস্থিতির সামনে দাঁড়িয়ে আছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। সবকিছুকে পিছনে ফেলে জার্মানরা ঠিকই লড়াইয়ে ফিরে আসবে বলে আত্মবিশ্বাসী দলের তারকা ফরোয়ার্ড থমাস মুলার। আজ শনিবার রাত ৯টায় সোচিতে গ্রুপ-এফ'র গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে সুইডেনের মোকাবেলা করবে জোয়াকিম লোর শিষ্যরা। জার্মানি। মেক্সিকোর বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেই ১-০ গোলের পরাজয়ে অনেকটাই ব্যাকফুটে রয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়াকে পরাজিত করে সুইডেন রয়েছে শক্তিশালী অবস্থায়। ফিশে স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিতব্য ম্যাচটিতে ফলাফল নিজেদের দিকে আনতে না পারলে জার্মানদের শিরোপা ধরে রাখা কঠিন হয়ে পড়বে। যদিও মুলার এসব নিয়ে মোটেই চিন্তিত নন। মুলার বলেন, 'আমরা পুরো পরিস্থিতি ভয়াবহ করে তুলেছি। তবে নিজেদের ভুল আমরা নিজেরাই পর্যালোচনা করেছি। এখন সকলে একত্রিত হয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়াই মূল লক্ষ্য। আমাদের ওপর চাপটা অত্যন্ত বেশি। একে অপরের ভুল ধরে বসে থাকলে জয় সম্ভব নয়। সুইডেনের বিপক্ষে জয় ভিন্ন বিকল্প নেই। সে কারণেই নিজেদের ওপর বিশ্বাস রাখতে হবে।'

জার্মানি যেখানে প্রত্যাশার চাপে বেশ খানিকটা পিছিয়ে রয়েছে সেখানে প্রথম ম্যাচে এশিয়ান পরাশক্তি দক্ষিণ কোরিয়াকে ১-০ গোলে পরাজিত করে সুইডেন বেশ ফুরফুরে মেজাজেই রয়েছে। ভিএরআর এর সহায়তায় প্রাপ্ত পেনাল্টি থেকে আন্দ্রেস গ্রানভিস্টের একমাত্র গোলে সুইডেনের জয় নিশ্চিত হয়। পূর্ণ তিন পয়েন্ট নিয়ে তারা মেক্সিকোর সাথে টেবিলের শীর্ষে রয়েছে। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ভিক্টর লিন্ডেলফ অসুস্থতার কারনে প্রথম ম্যাচে না খেললেও জার্মানদের বিপক্ষে দলে ফিরছেন বলে জানা গেছে। জার্মানির বিপক্ষে জয়টা যে মোটেই সহজ হবে না তা তিনি ঠিকই বুঝতে পারছেন।

সুইডিশ ফরোয়ার্ড এমিল ফোর্সবার্গ বলেছেন, 'আমি কিছু সাংবাদিকের সাথে কথা বলেছি, সে কারণেই আমি জানি চারিদিকে কি হচ্ছে। অবশ্যই এখানে অনেক ধরনের সমালোচনা রয়েছে। অন্যতম ফেবারিট দল হিসেবেই তারা রাশিয়ায় এসেছে। অবশ্যই তারা অনেক বড় দল। এই ধরনের দল জয় না পেলেই সমালোচনা শুনতে হয়। কিন্তু তারা মানসিকভাবে বেশ শক্তিশালী। তাদের বিপক্ষে আমাদের কঠিন লড়াইয়ের মুখে পড়তে হবে। আমাদের ১১০ শতাংশ পারফর্ম করতে হবে। সঠিক সময়ে সুযোগ কাজে লাগাতে না পারলেও তাদের বিপক্ষে জয় সম্ভব নয়। এমনকি ড্র নিয়েও মাঠ ছাড়া কঠিন হয়ে যাবে। কিন্তু আমরা মানসিক ভাবে প্রস্তুত আছি। বড় কিছু করার স্বপ্নে আমরা বিভোর আছি।

বিশ্বকাপের জন্য লেরয় সানের মত খেলোয়াড়কে বাদ দেয়ায় দারুণ সমালোচনা মুখে পড়েছিলেন জার্মান কোচ জোয়াকিম লো। তার ওপর মেক্সিকোর বিপক্ষে মার্কো রিউসকে মূল একাদশে না রাখাটা ছিল হতাশাজনক। পুরো জার্মানির আশা ছিল বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের এই তারকা ফরোয়ার্ড মূল একাদশে খেলবেন। আজকের ম্যাচে হয়তবা মুলারের সাথে জার্মান আক্রমণভাগে থাকবেন রিউস। কিন্তু তাদের আটকানোর জন্য প্রথম ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় ৩৩ বছর বয়সী ডিফেন্ডার আন্দ্রেস গ্রানভিস্টের ওপর সকলের চোখ থাকবে।

সুইডেনের বিপক্ষে শেষ ১১টি ম্যাচে অপরাজিত রয়েছে জার্মানি। স্ক্যান্ডেনেভিয়ার দলটি ৪০ বছর আগে ১৯৭৮ সালে ৩-১ গোলের সর্বশেষ জয় পেয়েছিল। অতি সম্প্রতি এই দুই দলের দুই মোকাবেলায় গোল হয়েছে সর্বমোট ১৬টি। ২০১২ সালে অক্টোবরে ৪-৪ গোলে ড্র হবার পরে ২০১৪ সালের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে সুইডেন ঘরের মাঠে ৫-৩ গোলে পরাজিত হয়। ১৯৩৪, ১৯৭৪ ও ২০০৬ সালে সুইডেনের বিপক্ষে তিনটি বিশ্বকাপ ম্যাচেই জয়ী হয়েছে জার্মানি। ১৯৫৮ সালে একমাত্র ম্যাচে পরাজিত হয়েছিল জার্মানরা। ঐ আসরে স্বাগতিক সুইডেন ফাইনালে খেলেছিল।



মন্তব্য