kalerkantho


ফতুল্লায় না হলে কোথায়?

১৩ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



ফতুল্লায় না হলে কোথায়?

ক্রীড়া প্রতিবেদক : শেষ চেষ্টা তবু একটা চলছিল। পাম্প বসিয়ে ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে জমে থাকা পানি নিষ্কাশনের সে চেষ্টায়ও জল ঢেলে দিয়েছে গত দুই দিনের বৃষ্টি।

আগামী তিন দিনেও ঢাকা এবং এর আশপাশে ভারি বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা ওই মাঠে অস্ট্রেলিয়ার দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজনের কার্যত কোনো সুযোগই আর রাখছে না।

যে বাস্তবতা মেনে এখান থেকে ২২-২৩ আগস্ট অনুষ্ঠেয় ম্যাচটি সরিয়ে নেওয়ার জোর প্রস্তুতিও চলছে তাই। যদিও একটু বৃষ্টিতেই এ ভেন্যুর জলমগ্ন হয়ে পড়ার ব্যাপারটি নতুন নয়। বেশ কিছুদিন ধরেই চলছে এ অবস্থা। তার পরও কেন প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য এই মাঠকে বেছে নেওয়া? কেনই বা অস্ট্রেলিয়া আসার দিন পাঁচেক আগেও প্রস্তুতি ম্যাচের ভেন্যু নিয়ে অনিশ্চয়তায় ঝুলে থাকা?

এ রকম নানা প্রশ্নও উঠছে এখন। এর একটি ব্যাখ্যাও অবশ্য মিলেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) মুখপাত্র জালাল ইউনুসের কাছ থেকে। তিনি কাল সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘প্রস্তুতি ম্যাচের ভেন্যু হিসেবে ফতুল্লাকে চূড়ান্ত করা হয়েছে আরো বছরখানেক আগেই। বিসিবি এবং ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) মধ্যে এমওইউ (সমঝোতা চুক্তি) সইয়ের সময়ই এটি ঠিক হয়ে আছে। ’

আগে থেকেই ঠিক হয়ে থাকায় আশা না ছেড়ে শেষ চেষ্টা করে গেছে বিসিবি।

কিন্তু সেই চেষ্টা ভেস্তে যাওয়ার স্বীকারোক্তি জালালের কথায়, ‘আমরা তো চেষ্টা করছিলামই। পানি বের করার জন্য পাম্পও বসিয়েছিলাম। টানা বৃষ্টিতে যদিও পরিস্থিতি ক্রমে জটিল আকার ধারণ করেছে। বলতেই হচ্ছে, ফতুল্লায় ম্যাচ আয়োজনের সম্ভাবনা কমেই চলেছে। ’ সেটি একরকম শেষও করে দিচ্ছে আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমানের বক্তব্য, ‘আগামী দু-তিন দিনেও ভারি বৃষ্টিপাতের বেশ ভালো সম্ভাবনা রয়েছে। ’

মিজানুর আরো জানিয়েছেন, শনিবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টার মধ্যে তাঁরা ২২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছেন। সেই সঙ্গে আগামী কয়েক দিনের বৃষ্টিও যোগ হলে নিশ্চিতভাবেই পানিতে আরো তলিয়ে যাবে সমতলের চেয়ে একটু নিচু ফতুল্লা। অবশ্য ফতুল্লা নিয়ে অনিশ্চতার কারণে আগাম প্রস্তুতিও ছিল বিসিবির। তাই বিকেএসপির একটি মাঠ এরই মধ্যে ওই প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য তৈরি রাখা আছে। বিসিবির কর্মকর্তারা সম্ভাব্য যাচাইয়ে এমনকি ঢাকার মোহাম্মদপুরের বেড়িবাঁধসংলগ্ন একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠও পরিদর্শনে গিয়েছিলেন। বিকল্প ভেন্যু হিসেবে সক্রিয় বিবেচনায় আছে সিলেটও।

ফতুল্লায় আয়োজন করা না গেলে ম্যাচটি তাহলে কোথায় হবে? জালাল জানিয়েছেন, অস্ট্রেলিয়ার অগ্রবর্তী দলের সঙ্গে আলোচনা না করে সেই সিদ্ধান্তে এখন পৌঁছানো সম্ভব নয়। বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান গতকাল বলছিলেন, ‘সিএর অগ্রবর্তী দল চলে আসছে ১৫ আগস্ট। তাঁদের সঙ্গে কথা বলেই চূড়ান্ত হবে প্রস্তুতি ম্যাচের ভেন্যু। ’ সিএর তিন সদস্যের দলে নিরাপত্তা প্রধানসহ থাকছেন বোর্ডের ক্রিকেট অপারেশন্স এবং প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিও। এখন ডারউইনে প্রস্তুতি শিবিরে থাকা স্টিভেন স্মিথরা ঢাকায় পা রাখবেন ১৮ আগস্ট।

তাঁদের প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য একাধিক বিকল্প ভেন্যুর মধ্যে সিলেটও আছে বলে জানিয়েছেন বিসিবির মুখপাত্র, ‘বিকেএসপিসহ কয়েকটি বিকল্পই আমাদের হাতে আছে। বিকেএসপিতেও যদি সম্ভব না হয়, তাহলে অন্য ভেন্যু আছে আমাদের। ’ সেটি কোথায়? ‘আমাদের আরেকটি বিকল্প হলো সিলেট। কিন্তু সিলেটের কথা সিএ এখনো জানে না। ’ আসলে জানানো হবে সিলেটের কথাও। তবে সিলেটে হলে নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনাসহ আনুষঙ্গিক আরো অনেক বাড়তি হ্যাপাও আছে। সেসব এড়াতেই বিসিবি সম্ভবত চায় প্রস্তুতি ম্যাচটি ফতুল্লায় না হলে হোক বিকেএসপিতেই। জালালের কথায়ও সেই আভাস, ‘প্রটোকল এবং এসকর্ট দিয়ে যদি নিয়ে যাওয়া যায়, তাহলে তো ম্যাচটি বিকেএসপিতেই হতে পারে। ’ সেই সঙ্গে তিনি আরো যোগ করেছেন, ‘বিকেএসপিতে যাতায়াতের ব্যাপারটিই শুধু সমস্যার। কারণ যেতে এক ঘণ্টারও বেশি সময় লাগে। যদি আমরা যাওয়া এবং আসার সময়টা এক ঘণ্টার কমে নামিয়ে আনতে পারি, তাহলে ম্যাচটি বিকেএসপিতেই হওয়ার সম্ভাবনা। তবে বিষয়টি সিএর সঙ্গে এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি। ওদের অগ্রবর্তী দল আমাদের সঙ্গে আলোচনার পর কী ঠিক করে, তার ওপরই নির্ভর করছে সব কিছু। ’


মন্তব্য