kalerkantho


ওলাদিপোয় ছুটেছে চট্টগ্রাম আবাহনী

১৩ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



ওলাদিপোয় ছুটেছে চট্টগ্রাম আবাহনী

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আবার বুঝি গতবারের দুঃস্বপ্ন ভর করেছে শেখ রাসেলের ঘাড়ে! প্রথম ম্যাচে সেই ফরাশগঞ্জ জয়ের পর আবার পড়েছে দুর্বিপাকে। পরের তিন ম্যাচের একটিতেও জয় নেই। গতকাল চট্টগ্রাম আবাহনীর কাছে ৩-১ গোলে হেরে পেয়েছে টানা দ্বিতীয় পরাজয়ের বিস্বাদ। ৪ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে রাসেল আছে সপ্তম স্থানে। আর চট্টগ্রাম আবাহনী ১২ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের কাদা মাঠই হয়ে গেছে ফুটবল লিগের নিয়তি। এই মাঠে আগে ব্রাদার্সের সঙ্গে ড্র করে এবং শেখ জামালের কাছে হেরে ভীষণ চাপে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। শুরু থেকে এই চাপ ফুটে উঠছিল তাদের খেলোয়াড়দের শরীরী ভাষায়। কারো পায়ে নেই স্বাভাবিক ছন্দ। অবস্থা এমন হলে প্রতিপক্ষ চেপে ধরবেই। চট্টগ্রাম আবাহনী মিনিট পনেরো একচেটিয়া খেলেই গোল বের করে নেয়।

জাহিদ হোসেনের কর্নার কিকে হেড করেন নাইজেরিয়ান আফিজ ওলাদিপো। পিছিয়ে পড়ার পর একটু খেলে শেখ রাসেল কিন্তু অ্যাটাকিং থার্ডে গিয়ে আর পারে না। যেখানে পাসগুলো নিখুঁত হওয়া দরকার, তা আর হয় না। ক্রসগুলোও হয় না ঠিকঠাক। এর পরও ২৫ মিনিটে একবার সম্ভাবনা জেগেছিল দাউদা সিসের ফ্রি-কিকের কল্যাণে। কিকটা পোস্টে লেগে চলে যায় বাইরে। শুধু ফরোয়ার্ডে নয়, ডিফেন্সেও সেই এলোমেলা অবস্থা। ৪০ মিনিটে আরেক গোল হজমের রাস্তা তৈরি করে দিয়েছেন  জিয়াউর রহমান। শেখ রাসেলের এই গোলরক্ষক পোস্ট ছেড়ে বেরিয়ে এসে বিপদ ডেকে আনলেও চট্টগ্রাম আবাহনী সুযোগটা নিতে পারেনি।

উল্টো আত্মঘাতী গোল খেয়ে শেখ রাসেলকে ম্যাচে ফিরিয়ে এনেছে! লং বলে আবাহনীর নাইজেরিয়ান ডিফেন্ডার ও গোলরক্ষকের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝিতেই হয়েছিল এই গোল। অ্যালিসন উদোকা হেড করে বলটা আশরাফুল রানার হাতে দিতে গিয়ে জমা করে দিয়েছেন নিজের পোস্টে। শেখ রাসেলের সৌভাগ্যই বলতে হবে, তারা ম্যাচে ফিরেছে। কাজে লাগাতে পারেনি এ সুযেগটাও। অথচ ডান দিক থেকে উড়ে যাওয়া মনসুর আমিনের ক্রসটি দৃশ্যত নিরীহই ছিল। সেটাকে ধারালো করে দিয়েছেন দুই ডিফেন্ডারের ঠায় দাঁড়িয়ে থেকে। তাদের পেছন থেকে দৌড়ে এসে ওলাদিপো করেন নিজের দ্বিতীয় গোল। সুবাদে গত ম্যাচে গোলের খাতা খোলা এই নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ডের হয়ে গেছে ৩ গোল। লিগে ৪ গোল নিয়ে তাঁর আগে আছেন তৌহিদুল আলম সুবজ। আগের তিন ম্যাচে ৩ গোল করা এই দেশি ফরোয়ার্ডের গোলহীন ম্যাচ যেন হতেই পারে না! সুশান্ত ত্রিপুরার থ্রু-বলে হা হয়ে যাওয়া ডিফেন্সে গিয়ে করেছেন নিজের চতুর্থ গোল। টানা দ্বিতীয় হারের পর শেখ রাসেল কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক খুবই হতাশ, ‘এই মাঠে খেলা খুব কঠিন। তবে খেলোয়াড়দের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি আছে। দ্বিতীয় গোল খাওয়ার পরও তো ফেরা যায়। ’


মন্তব্য