kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

লক্ষ্য সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার

গতবার মোহামেডানের হয়ে দারুণ খেলেছেন। দেশি ফুটবলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছিলেন তৌহিদুল আলম। সেই সুবাদে এবার চট্টগ্রাম আবাহনীতে তাঁর জায়গা পাওয়া এবং লিগের প্রথম ম্যাচ থেকে গোলের মিছিল শুরু করেছেন। গতকাল শেখ রাসেলের বিপক্ষে নিজের চতুর্থ গোল করার পর এই স্ট্রাইকার মুখোমুখি হয়েছেন কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের

১৩ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



লক্ষ্য সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : চার ম্যাচে ৪ গোল ! আপনার গোল ছাড়া চট্টগ্রাম আবাহনীর কোনো ম্যাচ থাকবে না মনে হয়।

 

তৌহিদুল আলম : সে রকম হলে তো ভালোই হয়। প্রতিটি ম্যাচেই আমি গোল পেয়েছি, এটা একজন স্ট্রাইকারের জন্য অনেক বড় আনন্দের বিষয়। সামনের ম্যাচগুলোতে এর ধারাবাহিকতা ধরে রাখাটাই চ্যালেঞ্জিং। গত বছর দেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে আমি সর্বোচ্চ ৮ গোল করেছি মোহামেডানের হয়ে। এবারও আমার লক্ষ্য সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়া, দেশি-বিদেশি মিলিয়ে সর্বোচ্চ গোল করা।

প্রশ্ন : এ রকম লক্ষ্য নিয়েই কি লিগ শুরু করেছিলেন?

তৌহিদ : লিগে প্রথম লক্ষ্য হলো আমাদের দলকে চ্যাম্পিয়ন করানো। এরপর ছিল দেশিদের মধ্যে সেরা গোলদাতা হওয়া। ৪ গোল যখন হয়ে গেছে, তখন সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার স্বপ্ন দেখছি। তা ছাড়া এবার একজন বিদেশি কম হওয়ায় ভালো সুযোগ আছে।

প্রশ্ন : আপনার সঙ্গে মাঝমাঠের যোগাযোগটা ভালো হয়।

সেটাই কী গোল পাওয়ার কারণ?

তৌহিদ : আমাদের দলের সব জায়গা খুব ব্যালান্সড। মাঝমাঠ থেকে ভালো বল পাই, এটা অনেক দিনের ট্রেনিংয়ের ফসল। প্রতিটি পজিশনে দুজন করে খেলোয়াড় আছে। যেমন আমার পজিশনে রনি ও চমরিন রাখাইন আছে, তাই খারাপ করলেই বাদ পড়ার শঙ্কা থাকে। এটাই যেন প্রত্যেককে ভালো পারফরম করতে উদ্দীপ্ত করে। তা ছাড়া ফরোয়ার্ডে আমার সঙ্গে ওলাদিপোর বোঝাপড়া খুব ভালো। আমি সাধারণত নাম্বার নাইন পজিশনে খেলি। মাঝেমধ্যে জায়গা বদল করি দুজনে। আজ যেমন যে দুইবার সে ভেতরে ঢুকেছে, গোল পেয়েছে।

প্রশ্ন : গতবারও আপনি গোলের মধ্যে ছিলেন; কিন্তু সর্বশেষ ভুটানের বিপক্ষে ম্যাচে জাতীয় দলে ডাক পাননি। এটা কেন?

তৌহিদ : এর জবাব তো আমার কাছে নেই। জাতীয় দলের কোচ-কর্মকর্তারাই ভালো বলতে পারবেন। ভুটানের ম্যাচের সময় আমাদের লিগ চলছিল। তখন আমি ও তৌহিদুল ইসলাম দেশি স্ট্রাইকারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৫ গোল করে এগিয়ে ছিলাম। কিন্তু আমাদের দুজনের কাউকে প্রাথমিক দলে ডাকা হয়নি। যাদের ডাকা হয়েছিল তারা গোলে ছিল না। আসলে কিসের ভিত্তিতে জাতীয় দলে ডাকা হয়, সেটা আমার কাছে পরিষ্কার নয়।

প্রশ্ন : আপনার উচ্চতাটা একটু কম হওয়াটাই কী সমস্যা?

তৌহিদ : না, সেটা মনে হয় না। কারণ আমার মতো উচ্চতা নিয়ে অনেকে জাতীয় দলে ডাক পেয়েছে এবং খেলেছে। তা ছাড়া আমি যে শুধু নাম্বার নাইন পজিশনে খেলি তা নয়, উইংয়েও খেলতে পারি।


মন্তব্য