kalerkantho


তাই বলে এমন মিল!

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



তাই বলে এমন মিল!

ভেন্যু এক। স্কোর এক। হারের ব্যবধানও এক। পার্থক্য শুধু জয়ী দলের নামে! আফগানিস্তান-জিম্বাবুয়ে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হয়েছে এমনই কাকতাল। গত ৯ ফেব্রুয়ারি সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ৫ উইকেটে ৩৩৩ করেছিল আফগানিস্তান। জিম্বাবুয়ে অল আউট হয়ে যায় ১৭৯ রানে। আসগর স্টানিকজাইয়ের দলের জয় ১৫৪ রানে। গত পরশু সেই শারজায় প্রথমে ব্যাট করতে নেমে জিম্বাবুয়েও করে ৫ উইকেটে ৩৩৩। আর আফগানিস্তান অল আউট ঠিক ১৭৯ রানে। গ্রায়েম ক্রেমারের দলের জয় সমান ১৫৪ রানে! ক্রিকেট ইতিহাসেই অভাবনীয় ব্যাপারটা।

মিল আছে আরো। প্রথম ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি করে ম্যাচসেরা হয়েছিলেন আফগানিস্তানের রহমত শাহ। গত পরশু সেঞ্চুরি করে ম্যান অব দ্য ম্যাচ জিম্বাবুয়ের ব্রেন্ডন টেলর! প্রথম ম্যাচে টস জিতে ব্যাট নেয় আফগানিস্তান, দ্বিতীয় ম্যাচে টস জিতে ব্যাট করে জিম্বাবুয়ে। ৯ ফেব্রুয়ারি জিম্বাবুয়ে গুটিয়ে যায় ৩৫ ওভারের আগে (৩৪.৪)। গত পরশু আফগানিস্তানও অল আউট ৩৫ ওভারের আগে (৩০.১)। আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খান প্রথম ম্যাচে নিয়েছিলেন ৪ উইকেট। এবার জিম্বাবুয়ের লেগ স্পিনার গ্রায়েম ক্রেমারের শিকার ৪ উইকেট! আছে ‘দুইয়ের’ যোগও। প্রথম ম্যাচের ৩৩৩ রান আফগানিস্তানের ওয়ানডে ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ। আর গত পরশুর ১৭৯ রান তাদের দ্বিতীয় বড় ব্যবধানে হারের লজ্জা।

এমন অদ্ভুত মিলের ম্যাচটা স্মরণীয় হয়ে থাকবে ব্রেন্ডন টেলরের জন্য। গত বছর সেপ্টেম্বরে অবসর ভেঙে ফেরেন জিম্বাবুয়ের সাবেক অধিনায়ক। এরপর গত পরশুই পেলেন ওয়ানডেতে প্রথম সেঞ্চুরি। ১২১ বলে ৫ বাউন্ডারি ৮ ছক্কায় ১২৫ করেছিলেন তিনি। এ ছাড়া সিকান্দার রাজার ব্যাট থেকে আসে ৭৪ বলে ৯ বাউন্ডারি ৪ ছক্কায় ৯২। এমন রান উৎসবের ইনিংসেও দুরন্ত বোলিং রশিদ খাদের। এই লেগ স্পিনার ১০ ওভারে ৩৬ রানে নেন ২ উইকেট। জবাবে ৮৯ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় আফগানিস্তান। শেষ দিকে দৌলত জাদরান ২৯ বলে ২ বাউন্ডারি ৬ ছক্কায় হার না মানা ৪৭ করলে স্কোরটা পৌঁছে ১৭৯-তে। গ্রায়েম ক্রেমার ৪১ রানে ৪ ও টেন্ডাই চাতারা নেন ২৪ রানে ৩ উইকেট। ক্রিকইনফো


মন্তব্য