kalerkantho


ভ্রমণ : চীনের অপূর্ব সুন্দর কিছু স্থান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ অক্টোবর, ২০১৭ ১৭:০৭



ভ্রমণ : চীনের অপূর্ব সুন্দর কিছু স্থান

হুনানের অপরূপ ফেংহুয়াং

চীনের এমন অনেক বিষয়ই আছে যা নিয়ে মানুষের আগ্রহের কমতি নেই। বিশেষ করে অপূর্ব সুন্দর সব স্থান নিয়ে তো গোটা বিশ্বের পর্যটকদের কথা নতুন করে বলার প্রয়োজন নেই।

চীনের অসংখ্য স্থান আছে যা একপলক দেখার স্বপ্ন দেখেন অনেকে। বিশাল দেশটিতে আসলে দৃষ্টিনন্দন জায়গার অভাব নেই। ছবির মতো স্থানগুলো সুযোগ পেলে দেখে আসতে ভুলবেন না। এখানে এমন কয়েকটি স্থানের সন্ধান দেওয়া হলো, যেখানে পর্যটকরা ঘুরে আসতে পারেন। এই ভ্রমণের কথা আজীবন মনে থাকবে।  

১. আনহুলের প্রাচীন গ্রাম হংকান  


৯০০ বছরের পুরনো একটি গ্রাম। চীনের পর্যটকরাই সুযোগ পেলে ছুটে আসেন এখানে। প্রশান্ত প্রকৃতি আর অনন্য স্থাপত্যকলা আপনাকে বিস্মিত করবে। যুগ যুগ ধরে এখানকার মুন লেক আর গোটা দৃশ্যপট চিত্রশিল্পীদের ক্যানভাসের অন্যতম মডেল হয়ে রয়েছে।

কোয়ার্টজাইটের সরু লেন দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে মাঠে কৃষকদের কাজ দেখতেই অনেক ভালো লাগে। চীনের আনহুল প্রদেশের হুয়াংশান শহর থেকে ৭০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত এই গ্রাম।  

২. আনহুলের মাউন্ট হুয়াংশান 
এক বিস্ময়কর স্থান। ইতিমধ্যে ইউনোস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। অদ্ভুতদর্শন পর্বতগুলো। দেখার মতো এক স্থান। সব সময় এক রহস্যময় কুয়াশা ছেয়ে থাকে তাদের। যারা ট্র্যাক করতে আগ্রহী তাদের জন্যেও আকর্ষণীয় এক স্থান। সেকানে আছে মাউন্ট হুয়াংশান, মাউন্ট ইয়েলো ইত্যাদি। এখানে একবার আসলে পর্বতসমান প্রশান্তির অনুভূতি নিয়ে বাড়ি ফিরতে পারবেন।  

৩. ফুজিয়ানের জিয়াপু মাডফ্ল্যাট 
জেনে অবাক হবেন যে, কোনো বিশাল কাদাময় প্রান্তরও পর্যটকদের আকর্ষণীয় গন্তব্য হতে পারে। দক্ষিণ-পূর্ব চীনের উপকূলের এক অঞ্চল। এখানেই দেশের সর্ববৃহৎ কাদাময় প্রান্তরটি অবস্থিত। এমনিতেই এই স্থান চাইনিজদের কাছে জনপ্রিয়। সেখানে গেলে আরো মিলবে সৈকত, বাঁশের কাঠামো, পুল আর মাছ ধরার নৌকা।  

৪. গুয়াংডংয়ের দুর্গ টাওয়ার কাইপিং 


কাইপিং তৈরি করেছিল কাইপিঞ্জাররা। এরাই স্থাপত্যকলার অধিকাংশ শৈলী বাইরে থেকে চীনে নিয়ে আসে। চীনের স্থাপত্যে ইসলামিক, রোমান এবং প্রাচীন গ্রিসের নকশা এরাই এনেছিল। এখানকার টাওয়ারগুলো আসলে বানানো হয়েছিল সম্পদের প্রদর্শনস্বরূপ। এখনও এই স্থানে ১৮০০টি টাওয়ার দাঁড়িয়ে রয়েছে। আর আছে ধানক্ষেত। বিশাল অঞ্চলজুড়ে ধানক্ষেত। গুয়াংডংয়ের প্রাদেশিক রাজধানী গুয়াংঝু এর ১৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে রয়েছে কাইপিং।

৫. হুনানের ফেংহুয়াং 
এখানকার বাড়িগুলোর অলংকরণ দেখলে আপনি ভাষা হারিয়ে ফেলবেন। চাইনিজ সাহিত্যিকদের কাছে খুবই প্রিয় এক জায়গা। তরুণ প্রজন্ম প্রায়ই কাঁধে ব্যাগ ঝুলিয়ে চলে আসেন এখানে। তারা প্রাচীন শহর ফেংহুয়াংকেই বেশি ভালোবাসেন। এটা হুনান প্রদেশের রাজধানী চাংশার ৪৩০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত।  
সূত্র : সিএনএন 


মন্তব্য