kalerkantho


ভ্রমণ : গন্তব্য যখন যমুনার উৎস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩১ অক্টোবর, ২০১৭ ১৪:৪৮



ভ্রমণ : গন্তব্য যখন যমুনার উৎস

ভারতের উত্তরের উত্তরখাণ্ড রাজ্যের এক প্রাচীন শহর হরিদ্বার। বিশেষ করে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্যে পূণ্য ভূমি।

যমুনার উৎস সন্ধানে সেখান থেকেই যাত্রা শুরু। সেখান থেকে গাড়িতে পথ চলতে হবে। কখন যে হনুমান চটিতে পৌঁছে যাবেন সেটা বুঝতেই পারবেন না। আরও কিছুদূর এগিয়ে জানকী চটি। এখান থেকেই হাঁটা পথে যমুনোত্রীর মন্দির। এখান থেকে হাঁটা পথ ৫ কিলোমিটার হলেও এই পথে অনেকটাই চড়াই আছে। কাজেই যাত্রাটা অভিযানে মোড় নেবে।  

যমুনা নদীকে ডানদিকে রেখে যমুনোত্রী যাওয়ার পথ ক্রমশ ওপরের দিকে উঠে গিয়েছে। পথ চলতে চলতে অনেক বেপোরোয়া ঘোড়া ও ডান্ডিওয়ালাকে অতিক্রম করতে হবে।

ভারতের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ এখানে তো আসেনই, বিশ্বপর্যটকদেরও ভীড় জমে। দেখবেন পূণ্যার্থীরা সবাই উচ্চারণ করছেন 'যমুনা মাতা কি জয়'।  

যমুনোত্রী কিন্ত যমুনা নদীর উৎসস্থান নয়। এখানে যমুনার উষ্ণ প্রস্রবন। যমুনার উৎসমুখ এই মন্দির থেকে আরও ১১ কিলোমিটার দূর্গম ও ভয়ংকর পথে অবস্থান করছে। এই পথ সাধারণ যাত্রীদের জন্যে নয়। উত্তর-পশ্চিম ভারতে প্রবাহিত এই নদী টিহরি গাড়োয়ালের হিমালয় শৈলের যমুনোত্রী শৃঙ্গের ৫ মাইল উত্তরে এবং বন্দরপুঞ্চ শৃঙ্গের ৮ মাইল উত্তর-পশ্চিমে উদ্ভুত হয়েছে। যমুনোত্রীর উচ্চতা প্রায় ৩,৩৩২ মিটার। এখানে একটি হ্রদও আছে। যমুনার উৎপত্তিস্থল সমুদ্রগর্ভ থেকে প্রায় ১০,৮৪৯ ফুট উচ্চতায় অবস্থান করছে। যমুনার দু-দিকই জমজমাট। মন্দিরে যেতে হলে যমুনার সেতু পার হয়ে আসতে হয়। এখানে দেখতে পাবেন উষ্ণকুণ্ডে বহু লোক গোসল করছেন। এই উষ্ণকুণ্ডের পানি আবার হিমশীতল যমুনার জলে গিয়ে মিশছে। এখানকার কুণ্ডগুলোরর মধ্যে বিখ্যাত হলো সূর্যকুণ্ড। এর পাশেই একটা বিশাল প্রস্তরশিলা আছে যা দিব্যশিলা নামে পরিচিত। আগে এখানে কোনও মন্দির ছিলো না। পরবর্তীকালে ১৮৯২ সালে জয়পুরের মহারানী গুলারিয়া এই মন্দিরের প্রতিষ্ঠা করেন। এখানে ভক্তরা দেবী দর্শনের জন্য বহু দূর দূরান্ত থেকে পাড়ি জমান।  

পূণ্যার্থীদের দেখে পথ চলাতে উৎসাহ পাবেন। মাত্র দেড় ঘণ্টায় আবার ফিরে আসবেন জানকীচটিতে। এবার ফেরার পালা। কাছেই বারকোট বলে এক জায়গায় রাত কাটিয়ে পরের দিন হরিদ্বারে ফিরে যেতে পারেন।  

কীভাবে যাবেন : প্রথমেই হাওড়া যাওয়ার পরিকল্পনা নিতে হবে। হাওড়া থেকে হরিদ্বার যাওয়ার যেকোনো ট্রেনে উঠে হরিদ্বারে নেমে গাড়ি ঠিক করে উত্তরকাশী থেকে ধারাসু হয়ে অথবা মুসৌরির পথে বারকোট হয়ে যেকোনো একটি পথে জানকীচটিতে আসা যেতে পারে। তারপর এখান থেকে ৫ কিলোমিটার হাঁটা পথে যমুনোত্রী আসতে হবে। রাস্তার ধকলের জন্যে মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকুন।

কোথায় থাকবেন: বাজেট অনুযায়ী প্রচুর থাকার জায়গা পাবেন। কিছু প্রতিষ্ঠানের বুকিং ইন্টারনেটে বা কলকাতা থেকেই সম্ভব। দরকারে আঞ্চলিক ট্যুর অপারেটরের সাহায্য নিন।

সূত্র : এই সময়


মন্তব্য