kalerkantho


ভ্রমণ : প্রাচীন শহরে বিস্ময়কর স্থাপত্যশৈলী 'পেত্রা'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ নভেম্বর, ২০১৭ ১৯:০৪



ভ্রমণ : প্রাচীন শহরে বিস্ময়কর স্থাপত্যশৈলী 'পেত্রা'

পাহাড়ের বিস্ময়কর স্থাপনাশৈলী

আপনি পেত্রার ছবি দেখেছেন বা নাম দেখেছেন ইন্টারনেটে ছবি থেকে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের পর্যটকরা জানেন যে, পেত্রা হলো আধুনিক সপ্তমাশ্চর্যের একটি।

কিন্তু অনেকেই এর সম্পর্কে অন্যান্য তথ্য তেমন জানেন না। দক্ষিণ জর্ডানের রাকমু শহরের এক অনবদ্য স্থাপত্যশৈলী পেত্রা। আরবের সেই প্রাচীন সময়ের নাবাতাইয়ান্সের রাজধানীতে গড়ে তোলা হয় পাহাড় খোদাই করে বানানো স্থাপত্যশৈলী। ৩১২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে এটি তৈরি করা হয়েছে। পৃথিবীর যে স্থানগুলোতে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক পর্যটকরা ছুটে যান, তার মধ্যে অন্যতম পেত্রা।  

এমনিতেই নাবাতাইয়ানরা পানির উৎস নির্মাণে দক্ষ ছিল। পাশাপাশি পাথরে খোদাই করে ভাস্কর্য নির্মাণেও বিখ্যাত হয়ে ওঠে তারা। জেবেল-আল-মাধবা পর্বতের ঢালে অবস্থিত পেত্রা। ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছে ১৯৮৫ সালে।

 

জর্ডানের রাজধানী আম্মান থেকে ৩০ কিলোমিটার দক্ষিণের জিজিয়াতে অবস্থিত কুইন আলিয়া ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে যেতে হবে। সেখান থেতে পেত্রা পৌঁছতে আড়াই ঘণ্টার পথ। অবশ্য হাইওয়েতে যানজট না থাকলে এ সময় ব্যয় হবে। তবে অনেকে পর্যটক পরামর্শ দেন যে, কিংস হাইওয়ে দিয়ে গেলে একটু বেশি ভালো হয়। পাহাড়ী রাস্তা দিয়ে যেতে অপূর্ব প্রকৃতি অবলোকনের সুযোগ মেলে। তবে এ পথে গেলে এক ঘণ্টা সময় বেশি লাগবে।  

পেত্রায় থাকার জন্য অনেক গেস্ট হাউজ রয়েছে। সেখানকার সবচেয়ে বিখ্যাত হোটেল মোভেনপিক। এটা একটা পাঁচ তারকা হোটেল। তবে কম খরচেও অনেক হোটেল রয়েছে।  

যদি হাতে সময় খুব কম থাকে তবুও একদিনের মধ্যে পেত্রা দেখে আসতে পারবেন। তবে অধিকাংশ পর্যটক অন্ত দুই দিন থঅকেন। আর যদি আরও একদিন বের করতে পারেন তো কথাই নেই।  

পাস কিনে পেত্রায় প্রবেশ করতে হবে। যখন পাস কিনবেন তখন প্রতি বাড়তি দিনের জন্যে ডিসকাউন্ট মিলবে। একদিনের জন্যে পাস কিনলে লাগবে ৭০ ডলার। ভেতরে অনেক কিছুই করার আছে। কেবল পাথরে খোদাই করা শিল্পকর্ম দেখেই আপনার গোটা দিন চলে যেতে পারে। তবে ভেতরে উটের পিঠে চড়ে ঘোরার ব্যবস্থা রয়েছে। হাঁটতে হাঁটতে অস্থির হয়ে গেলে চ্যারিয়টে চড়েও ঘুরতে পারবেন। তবে অনেক জায়গায় হয়তো যেতে পারবেন না। যেমন- গাধার পিঠে চড়ে ২০ মিনিট ভ্রমণ না করতে পারলে মোনাস্টেরিতে যেতে পারবেন না। বিভিন্ন স্থানে বিশ্রাম নেওয়ার, চা-নাস্তার অনেক ব্যবস্থা রয়েছে।  

সকাল সকাল পৌঁছালেই ভালো। তখন অনেক আরামের সঙ্গে ঘুরতে পারবেন। অনেক ভালো লাগবে। মোনাস্টেরিতে গিয়ে ফিরে আসা এবং চারপাশ ঘুরে দেখতে ৭ ঘণ্টার মতো সময় ব্যয় হবে।  

সেখানে অনেক পর্যটক ডেনিমের হাফপ্যান্ট পরেই চলে যান। কিন্তু উত্তম হয় নিজেকে ঢেকে নিয়ে গেলে। তবে পাতলা পোশাকে নিজেকে মুড়ে নেওয়া ভালো। সঙ্গে রোদ চশমা আর ত্বকের নিরাপত্তায় সানস্ক্রিন নেবেন। হাঁটতে আরাম হয় এমন জুতা পরতে ভুলবেন না।  
সূত্র : হ্যাপি ট্রিপস 


মন্তব্য