kalerkantho


ছুটছে সবাই বাঁশবাড়িয়া সমুদ্র সৈকতে

মাহতাব হোসেন   

২৮ নভেম্বর, ২০১৭ ১৯:১৬



ছুটছে সবাই বাঁশবাড়িয়া সমুদ্র সৈকতে

চলে এসেছে শীত। আর এই শীতই হলো বেড়ানোর আসল সময়।

কোথায় বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন? কক্সবাজার  বাঁ সেন্টমার্টিন? তাহলে হাতে একটা দিন বেশি সময় নিন। এই দিনটি চট্টগ্রামে ব্যয় করুন। চট্টগ্রামে দেখার মতো অনেক কিছুই আছে, আছে নেভাল, পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত, বায়োজিদ বোস্তামির মাজার। তবে প্রবণতা এখন বাঁশবাড়িয়া সমুদ্র সৈকতে। সীতাকুণ্ডের কাছেই এই সৈকত। ঘুরে দেখে যেতে পারেন।

অনিন্দ্য সুন্দর বাঁশবাড়িয়া সমুদ্র সৈকত; তবে তা জোয়ারের সময়। সকালের দিকে গেলে নিরানন্দ লাগবে, যেতে হবে দুপুরে তখন জোয়ারের টান থাকে। বাঁশবাড়িয়ায় সমুদ্র সৈকতে একটি লোহার জেটি ঘাট রয়েছে।

অনেকের মুখে আবার ব্রিজ নামেও চলছে এটা। জোয়ারের সময় ব্রিজের ওপর দাঁড়িয়ে থাকেন মিহি অনুভূতি দিয়ে পায়ের পাতা ছুঁয়ে যাবে সমুদ্রজল।

বাঁশবাড়িয়া সৈকতের সামনে উন্মুক্ত সবুজ চত্বর, অদূরে ঝাউবন

কিছুটা সময় সমুদ্রের ধারে কাটাতে পারেন। বোট কর্তৃপক্ষ বিচের ধারে বসার ব্যবস্থা করে দিয়েছে। এটার জন্য কোনো টাকা পয়সা লাগবে না। তবে ব্রিজে ওঠার জন্য ও স্পিডবোটে চেপে এক কিলোমিটার ঘুরিয়ে আনতে জনপ্রতি ১০০ টাকা নেবে।

সহজপথ- দেশের যেকোনো স্থান থেকে একে খান মোড়। সেখান থেক লোকাল বা দূরপাল্লার বাসে বাঁশবাড়িয়া বাজারে নামতে হবে। দূরপাল্লার- ফেনী, নোয়াখালী এসব বড় বাসে উঠে পড়বেন সময় কম লাগবে। ৩০-৪০ টাকা ভাড়া।

বাঁশবাড়িয়া বাজার থেকে ২০ টাকা ভাড়ার সিএনজিতে সৈকতে চলে যেতে পারবেন।

একনজরে দেখে নিতে পারেন সেই ব্রিজের ওপরের চিত্রটা


মন্তব্য