kalerkantho


প্রতারণা এবং দাস ভিত্তির অভিযোগে একই পরিবারের ১১ সদস্য দোষী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ আগস্ট, ২০১৭ ০০:৩৯



প্রতারণা এবং দাস ভিত্তির অভিযোগে একই পরিবারের ১১ সদস্য দোষী

গৃহহীন, মাদকাসক্ত এবং প্রতিবন্ধীদদের বিনা বেতনে কাজ করানোর পাশাপাশি তাদের উপর বিভিন্নভাবে নির্যাতনের অভিযোগে ব্রিটেনের লিঙ্কনশায়ারের একই পরিবারের ১১ সদস্যকে শুক্রবার দোষী সাব্যস্ত করেছে নটিংহাম ক্রাউন কোর্ট। তাদের বিরুদ্ধে প্রতারণা এবং দাস ভিত্তির অভিযোগ আনা হয়েছে।

দোষী পরিবার স্থানীয়ভাবে রনি পরিবার হিসেবেই পরিচিত। এই পরিবারের সদস্যরা নিজে বিলাশবহুল জীবনযাপন করলেও একেবারে কম বেতন এবং কোন কোন ক্ষেত্রে বিনা বেতনে ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশে কাজ করানোর পাশাপাশি অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বসবাস করতে বাধ্য করত অসহায় মানুষদের যাদের মধ্যে এক ব্যক্তি এই পরিবারের জন্য প্রায় ২৬ বছর দুর্বিষহ পরিবেশে থেকে কাজ করেছেন। তার হাত দিয়ে তার নিজের করব খুঁড়িয়ে ভয় দেখানো হয়েছে, কথা মত মিথ্যা কাজের চুক্তি না করলে এই কবরে তাকে মরতে হবে বলে।

২০১৪ সালে লিঙ্কনশায়ার থেকে স্থানীয় পুলিশ এবং ন্যাশনাল ক্রাইম এজেন্সি এক বিশেষ অভিযানে এই পরিবারের কবল থেকে ১৮ বছর থেকে ৬৪ বছর বয়সের ১৮ জন ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করে। এদের মধ্যে কেউ কেউ গৃহহীন, প্রতিবন্ধী  এবং মারাত্মকভাবে মাদকাসক্ত রয়েছেন। অভিযুক্ত পরিবারের সদস্যরা লিঙ্কনশায়ারের ড্রিনসি নুক এবং ওয়াশিংবারার শল্টোর হোম এবং হোটেল থেকে ভুক্তভোগীদের কাজ দেবার কথা বলে নিয়ে যেত। নিয়ে তাদের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বসবাস এবং জোরপূর্বক কাজ করতে বাধ্য করানোর পাশাপাশি তাদের ব্যাংক একাউন্টের নিয়ন্ত্রণ করে সব টাকা হাতিয়ে নিয়ে নিজের বিলাশ বহুল জীবন যাপনে ব্যয় করত পরিবারটি।

এছাড়া স্থানীয় বৃদ্ধ পরিবার, যাদের নামে ঘরবাড়ি আছে তাদেরকেও টার্গেট করত রনি গ্যাং। বৃদ্ধ বা বৃদ্ধার সম্পত্তি জোরপূর্বক নিজের নামে লিখিয়ে নিয়ে ভোগ করত তারা।

এভাবে ৪টি বয়স্ক। পরিবারের ৩টি সম্পত্তি বিক্রি করে প্রায় আড়াই শ হাজার পাউন্ড আয় করেছে ওই দোষি পরিবার। তারা ওই বয়স্কদের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে নিতো। তাদের নিয়ন্ত্রণে থেকে এক বয়স্ক ব্যক্তি মারা গেছেন, তার আসল পরিবারের সদস্যরা পর্যন্ত খবর পায়নি।

আগামী সেপ্টেম্বরে দোষী এই পরিবারের সাজার মেয়াদ ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছে আদালত।


মন্তব্য