kalerkantho


পাচারের পথে ১০০ কোটির সাপের বিষ উদ্ধার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১০:১৯



পাচারের পথে ১০০ কোটির সাপের বিষ উদ্ধার

বঙ্গোপসাগর থেকে জলদস্যুদের লুট করা এক শ কোটি টাকার সাপের বিষ উদ্ধার করল সীমা সুরক্ষা বল (এসএসবি) এর জওয়ানরা। বাংলাদেশ থেকে ভারত হয়ে ওই বিষ পাচার হচ্ছিল।

তবে মাঝপথেই ধরা পড়ে গেল পাচারকারীরা। মঙ্গলবার, উত্তর ২৪ পরগনার বারাসত থেকে তিনটে বিষের পাত্রসহ তিন পাচারকারীকে আটক করলেন সীমা সুরক্ষা বলের জওয়ানরা। সঙ্গে ছিল বন দপ্তর, সিআইডিও। তিনটি বুলেটপ্রুফ বেলজিয়াম কাচের সিল করা পাত্রে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল ছয় পাউন্ড গোখরোর বিষ। ওই বুলেটপ্রুফ পাত্রগুলির প্রত্যেকটির দাম ৪৫ লাখ টাকা। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে এ দিন ফাঁদ পেতে এই পাচারকারীদের ধরা হয়। বুধবার এই তিনজনকে আদালতে পেশ করা হবে। একটি মারুতি আইটেন গাড়িতে করে এদিন সাপের বিষ ভরা পাত্রগুলি নিয়ে দমদম বিমানবন্দরে যাচ্ছিল তিন পাচারকারী। বারাসতের রথতলা মোড়ের কাছে তাদের আটকায় এসএসবি, বন দপ্তর ও সিআইডি। গাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ওই তিনটি বুলেটপ্রুফ পাত্র উদ্ধার হয়।

উত্তর ২৪ পরগনার ডিএফও মানিক সরকার জানিয়েছেন, তিনটি পাত্রে তিন রকম বিষ পাওয়া গিয়েছে। তরল, পাউডার ও ক্রিস্টাল। এই তিনটির আনুমানিক বাজার মূল্য এক শ কোটি টাকা। এসএসবির ৬৩ নম্বর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক ডি কে সিং জানিয়েছেন, সম্প্রতি একটি জাহাজে করে ফ্রান্স থেকে জাপানে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল এই বিষের পাত্রগুলি। বঙ্গোপসাগরে সেই জাহাজটি লুট করে জলদস্যুরা। ওই লুট হওয়া বিষের পাত্র বিভিন্ন হাত ঘুরে বাংলাদেশে পৌঁছায়। সেখান থেকে চোরাপথে এ রাজ্যে ঢোকে। এই তিন পাচারকারী ওই তিনটে বিষের পাত্র দমদম বিমানবন্দরে অন্য এক দলের হাতে তলে দিত। তারা এগুলি চীনে পাচার করত।

এসএসবি ও বন দপ্তর সূত্রে খবর, চীনের কালোবাজারে ব্যাপক চাহিদা এই বিষের। ওষুধ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন মাদক তৈরির কাজেও ব্যবহার হয় এই বিষ। মূলত দুরারোগ্য অসুখের ওষুধ তৈরি হয় এই বিষ থেকে। বন দপ্তর সূত্রে জানা যায়, ধৃত তিনজনের মধ্যে একজন ডেবরার বাসিন্দা। বাকি দুজন মধ্যমগ্রাম আর টালিগঞ্জের। বুধবার তাদের বারাসত আদালতে পেশ করা হবে।

তদন্তকারীদের থেকে জানা যায়, সাপের বিষ মূলত তরল পদার্থে থাকে। সেগুলি শুকিয়ে পাউডার আর ক্রিস্টালে রূপান্তর করা হয়। ওষুধ তৈরি করতে বিষের এই তিনটি ধরনই প্রয়োজন হয়। এর আগেও শিলিগুড়ি থেকে এ ধরনেরই সাপের বিষের পাত্র উদ্ধার করা হয়। তবে এসএসবি সূত্রে খবর, এই দলের সঙ্গে আরো কয়েকজন ছিল। তবে তাদের ধরা সম্ভব হয়নি।

 


মন্তব্য