kalerkantho


কিমের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের যা বললেন ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ জুন, ২০১৮ ১৭:৫৯



কিমের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের যা বললেন ট্রাম্প

বহু জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে সুষ্ঠুভাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উত্তর কোরিয়ার সর্বোছ্চ নেতা কিম জং উনের ঐতিহাসিক বৈঠক হয়েছে। বৈঠকটি সিঙ্গাপুরে আয়োজন করার কারণে সে দেশের প্রধানমন্ত্রী লি সেইন লুংকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ট্রাম্প।

জানা গেছে, বৈঠকের জন্য দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও চীনের রাষ্ট্রপ্রধানদের কাছেও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন তিনি। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, দক্ষিণ কোরিয়া যেহেতু উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনার মধ্য দিয়ে বৈঠকের সূত্রপাত ঘটিয়ে দিয়েছে সে কারণে সে দেশের প্রতি ট্রাম্পের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করারই কথা।

এছাড়া চীন যেহেতু উত্তর কোরিয়ার মিত্র রাষ্ট্র। সে কারণে বৈঠকের ব্যাপারে চীনের উদারতা আছে বৈ কি। আর জাপানের প্রশংসা করা নিয়ে কারো উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো ব্যাপার নেই।

মঙ্গলবার সেন্তোসা দ্বীপের ক্যাপেল্লা হোটেলে বৈঠকের পর শিডিউল অনুযায়ী সাংবাদিকদের সামনে আসেন ট্রাম্প। সেখানে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন তিনি। জানা গেছে এক ঘণ্টা পাঁচ মিনিট সেই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ট্রাম্প।

এর আগে গত এক বছরে এতক্ষণ ধরে সংবাদ সম্মেলন করেননি ট্রাম্প। এমনকি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবও এভাবে দেননি। ২০১৭ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি ট্রাম্পের দীর্ঘ সংবাদ সম্মেলনের স্থায়ীত্ব ছিল এক ঘণ্টা ১৭ মিনিট।

সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন, প্রকৃত পরিবর্তন যে সম্ভব তা প্রমাণ হয়েছে। কিমের সঙ্গে তার ওই বৈঠককে আন্তরিক, খোলামেলা ও ফলপ্রসূ হিসেবেও  বর্ণনা করেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, আমরা একটি নতুন ইতিহাস, একটি নতুন অধ্যায় শুরু করার জন্য প্রস্তুত। আমরা একটি যৌথ বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছি; যাতে কোরীয় উপদ্বীপকে সম্পূর্ণ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে উত্তর কোরিয়ার দ্বিধাহীন অঙ্গীকার রয়েছে। চেয়ারম্যান কিম আমাকে বলেছেন, উত্তর কোরিয়া ইতোমধ্যে প্রধান ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার একটি স্থাপনা ধ্বংস করতে শুরু করেছে।

ট্রাম্প অারো বলেন, আমরা এমন একটি ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখি; যেখানে সব কোরীয় ঐক্যবদ্ধভাবে বসবাস করবেন। যেখানে যুদ্ধে অন্ধকারকে দূর করবে শান্তির আলো। এটাই হবে যৌক্তিক এবং এটা আমাদের নাগালের কাছে। মানুষ মনে করেছিল, এটা কখনই হবে না।

 


মন্তব্য