kalerkantho


মোদির ঘুম ছুটিয়ে নেপালে ঢুকছে চীনের ট্রেন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ জুন, ২০১৮ ১৭:৪৯



মোদির ঘুম ছুটিয়ে নেপালে ঢুকছে চীনের ট্রেন

হিমালয় কন্যার তরফে ভারতকে বড়সড় ধাক্কা। নেপালের মাটিতে ঢুকতে চলেছে চীনা ট্রেন। তিব্বত থেকে আসা এই রেলপথ চালুর বিষয়ে মৌ স্বাক্ষর করেছে দুই দেশ। চীনা ও নেপালি সংবাদ মাধ্যমে সেই খবর গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করা হয়েছে। একাধিক আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের দাবি, ভারতের নাকের ডগায় যেভাবে চীনের ট্রেন ঢুকছে তাতে চিন্তা বাড়বেই মোদির।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নেপালি প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলির চীন সফরে কি ভারতীয় প্রভাব কাটানোর চেষ্টা চলছে? যদিও চীনের সরকারি সংবাদপত্র ‘গ্লোবাল টাইমস’-এর রিপোর্ট, নেপালি কমিউনিস্ট প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরে ভারতের হতাশ হওয়ার কোনও কারণ নেই। এতে নেপালের উপর দিল্লির প্রভাব কমবে না। তবে নেপাল-ভারত-চীনের মধ্যে ত্রিপাক্ষিক সম্পর্ক গড়ে তোলা উচিৎ এমনই উল্লেখ করা হয়। যদিও নেপালি সংবাদপত্রে লেখা হয়েছে, সময় এসেছে এবার ভারতের প্রভাব থেকে বেরিয়ে আসার।

গত মঙ্গলবার থেকে চীন সফর শুরু করেছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। রবিবার পর্যন্ত তাঁর সফর চলবে। বৃহস্পতিবার বেইজিংয়ের গ্রেট পিপলস হলে ওলি দেখা করেন চীনের প্রেসিডেন্ট লি কেকিয়াংয়ের সঙ্গে। তাঁদের উপস্থিতিতে কাঠমান্ডু ও বেইজিংয়ের মধ্যে ২৪টি মৌ স্বাক্ষর হয়। তারমধ্যে সর্বাধিক আলোচিত হল তিব্বত থেকে নেপাল পর্যন্ত রেলপথ চালু। চীনের তরফে নেপালের উন্নয়নের জন্য ১৬ হাজার কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজ দেওয়া হবে।

নেপালের ক্ষমতায় এখন সেদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সিপিএন (ইউএমএল) ও নেপালি মাওবাদীদের জোট। সম্প্রতি দুই দল একীভূত হয়েছে। ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধান লাগু হওয়ার পরই জাতীয় নির্বাচনে বিপুল জয় পায় নেপালের কমিউনিস্ট-মাওবাদী জোট। ফের প্রধানমন্ত্রী হন কেপি শর্মা ওলি।

কূটনৈতিক মহলের অনেকের ধারণা, ওলির চীন নীতি ভারতের পক্ষে বড়সড় চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। যদিও দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হয়েই দিল্লি এসেছিলেন ওলি। সফরে প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে সাক্ষাত হয়। বলা হয় ভারত ও নেপাল একে অপরের সাহায্যেই এগিয়ে যাবে।



মন্তব্য