kalerkantho

পুষ্টিমূল্য

আমড়া

কাঁচা আমড়া টক বা টক-মিষ্টি স্বাদের হয়। আর পাকা আমড়া মিষ্টি হয়। আমড়া কাঁচা বা পাকা দুভাবেই খাওয়া যায়। আবার রান্না করে বা আচার বানিয়েও খেতে পারেন। আমড়ার উপকারিতা জানালেন উত্তরার ফিটনেস সেন্টার শেপ আপের পুষ্টিবিদ রীদা নাজনীন

১৪ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০




আমড়া

কী আছে

 

একটা আমড়ায় ৮৫ শতাংশ জলীয় আংশ থাকে। এছাড়া খাদ্যশক্তি থাকে ৬৬ কিলোক্যালরি, প্রোটিন ১.১ গ্রাম, ফ্যাট ০.১ গ্রাম, ক্যালোরি ১৫ গ্রাম, ০.৬ গ্রাম খনিজ, ভিটামিন ‘সি’ ৯২ মিলিগ্রাম, আয়রন ৩.৯ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ৫৫ মিলিগ্রাম এবং ক্যারোটিন ৮০০ মাইক্রোগ্রাম,ভিটামিন এ ও অল্প পরিমান নিয়াসিন।

উপকারিতা

আমড়া ভিটামিন ‘সি’র ভালো উত্স। ত্বক উজ্জ্বল করতে এবং ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা যেমন—ব্রণ, ফুসকুড়ি ইত্যাদি নিরাময়ে আমড়া বেশ কার্যকর।

ঠাণ্ডাজনিত নানা রকম সমস্যা যেমন—হাঁচি, কাশি, সর্দি ইত্যাদি উপশমে আমড়া ওষুধের মতো কাজ করে।

আমড়া আঁশজাতীয় ফল। এটি নিয়মিত খেলে হজমের সমস্যা সমাধান হয় এবং কোষ্ঠকাঠিন্য থাকে না।

রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায় আমড়া। এর ফলে হূদরোগ ও স্ট্রোকের আশঙ্কা কমে।

ক্যালসিয়ামের পরিমাণ বেশি থাকায় এটি দাঁত ও হাড়ের জন্য বিশেষ উপকারী। তা ছাড়া অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের ভালো উত্স।

ক্যান্সারসহ নানা রকম রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

রক্তস্বল্পতা ও রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে আমড়া খাওয়া ভালো।

আমড়া কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে ওজন কমাতে সাহায্য করে।

ক্ষুধামান্দ্য দূর হয়।

আমড়ায় যথেষ্ট পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট-জাতীয় উপাদান থাকায় বলিরেখা প্রতিকার করে।

স্কার্ভি রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে আমড়ার ভিটামিন ‘সি’।


মন্তব্য