kalerkantho


বাংলা বিভাগে মানবিক ও সাহিত্যবোধসম্পন্ন মানুষ তৈরি হচ্ছে

১৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



এই বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। ২০০৯ সালে ফল সেমিস্টারে এই বিভাগের যাত্রা। এতে চার বছরের বিএ (অনার্স), এক বছরের এমএ ডিগ্রি দেওয়া হয়। বিভাগের অধীনে একাডেমিক লেখাপড়ার পাশাপাশি ছাত্র-শিক্ষকের সৃজনশীল ও মননশীল জার্নাল প্রকাশিত হয়। বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী অধ্যাপক ড. রকিবুল হাসান বলেন, ‘শিক্ষাদানের পাশাপাশি আমাদের শিক্ষকরা নিয়মিত মানসম্পন্ন গবেষণা সাময়িকী প্রকাশ করেন। তাতে দেশের প্রায় সব বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলার অধ্যাপকরা লেখেন। বাংলা ভাষার গবেষকদের লেখাও প্রকাশিত হয়।’ তাঁর কাছে জানা গেল, বাংলা বিভাগের শিক্ষকদের গবেষণা ও জ্ঞানের পরিধি বাড়াতে বিভাগের উদ্যোগে তাঁরা নানা সময়ে সেমিনার-সিম্পোজিয়ামের আয়োজন করেন। তিনি বললেন, ‘আমাদের বিভাগের সিলেবাস খুব উন্নত। আমরা বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শিক্ষার্থীদের শেখাতে চেষ্টা করি। লেখালেখিতে আমাদের উৎসাহের মাধ্যমে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের গ্রন্থ প্রকাশিত হয়। বিখ্যাত লেখকদের বইগুলো রেফারেন্স বই হিসেবে সিলেবাসে আছে।’ বিভাগের চেয়ারম্যান আরো খুশির খবর দিলেন, তাঁদের বিভাগের আয়োজনে সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয় সাহিত্য পুরস্কার দেওয়া শুরু হয়েছে। কেন এই পুরস্কার? তিনি বললেন, ‘বাংলা সাহিত্যের লালন, বিকাশ এবং সাহিত্যকর্ম সৃষ্টি ও পাঠে উৎসাহ প্রদানের জন্যই এটি চালু করা হয়েছে।’ বাংলা ভাষার দুই খ্যাতিমান ব্যক্তিত্ব ও দুই ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান ও ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীকে এই পুরস্কার দিতে পেরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গর্বিত বলে তিনি জানালেন। বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ড. শামসুজ্জামান খানকে আজীবন সম্মাননা স্বর্ণপদক দেওয়া হয়েছে। তরুণ লেখকদের সাহিত্যকর্মে আরো উৎসাহিত করতে বদরুন নাহারকে ‘সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয় সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭’ দেওয়া হয়েছে বলে জানালেন তিনি।


মন্তব্য