kalerkantho


নির্বাচনে ‘জালিয়াতি’ তদন্ত কমিটি ভেঙে দিলেন ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



নির্বাচনে ‘জালিয়াতি’ তদন্ত কমিটি ভেঙে দিলেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে প্রায় ৩০ লাখ ভোট বেশি পেয়েছিলেন তাঁর ডেমোক্রেটিক প্রতিদ্বন্দ্বী হিলারি ক্লিনটন। ট্রাম্প নির্বাচিত হন ইলেকটোরাল ভোটের ভিত্তিতে। যদিও তাঁর দাবি ছিল, ব্যালটে দেওয়া ভোটেও (পপুলার ভোট) তিনিই জিতেছেন। ‘ভুয়া ভোটাররা জালিয়াতি’ করে হিলারির পক্ষে ভোট দিয়েছেন। তিনি এই জালিয়াতি তদন্তে একটি কমিটিও গঠন করেন। ওই কমিটি গত বুধবার ‘সহযোগিতার অভাবে’ ভেঙে দিয়েছেন ট্রাম্প।

ভেঙে দেওয়ার আগে পরে এ নিয়ে বিস্তর সাফাই গেয়েছেন ট্রাম্প ও হোয়াইট হাউস। এক বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, ‘ভোট জালিয়াতির বহু প্রমাণ থাকার পরও বহু অঙ্গরাজ্য এ ব্যাপারে প্রেসিডেনশিয়াল কমিশন অন ইলেকশন ইন্টেগ্রিটির কাছে মৌলিক তথ্য সরবরাহ করতে চাইছে না। এ নিয়ে করদাতাদের অর্থে দীর্ঘ সময় আইনি লড়াই চালিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে এই কমিটি ভেঙে দিতে আজ আমি একটি নির্বাহী আদেশে সই করেছি। অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা দপ্তরকে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণের আদেশ দেওয়া হয়েছে।’ ট্রাম্প নিজেও অবশ্য বেশি ভোট পাওয়ার কোনো প্রমাণ কখনো দেননি।

ট্রাম্পের গঠিত এই কমিটি নিয়ে অঙ্গরাজ্যগুলোর মধ্যে খেদ ছিল। কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ক্রিস কোবাক দায়িত্ব নেওয়ার পর ভোটারদের নাম, ঠিকানা, জন্মতারিখ, দলীয় পরিচয়, সামাজিক নিরাপত্তা কার্ডের শেষ চারটি নম্বর, সামরিক মর্যাদা ও ‘ভোটারের ইতিহাস’ চেয়ে ৫০টি অঙ্গরাজ্যে চিঠি পাঠান। বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্য এসব তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে সতর্কতা উচ্চারণ করে বলেছে, ভোটারদের তথ্যের অপব্যবহার হতে পারে, এমন আশঙ্কা রয়েছে।

ট্রাম্প অঙ্গরাজ্যগুলোর এই সতর্কতা সম্পর্কে এক টুইটে বলেন, ‘বহু অঙ্গরাজ্য ভোটার ফ্রড প্যানেলকে তথ্য দিতে চায় না। কী লুকাতে চাইছে তারা?’ সূত্র : এএফপি, বিবিসি। 


মন্তব্য