kalerkantho


‘বোমা সাইক্লোনে’ বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বাঞ্চল

মৃত ১৭, তিন অঙ্গরাজ্যে জরুরি অবস্থা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



‘বোমা সাইক্লোনে’ বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বাঞ্চল

তীব্র তুষারঝড়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর জীবনযাত্রা। এক সপ্তাহে অন্তত ১৭ জন মারা গেছে। বিমান, রেল ও সড়কপথে যোগাযোগ মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। ছবিটি নিউ ইয়র্কের। ছবি : এএফপি

তীব্র তুষারঝড়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্যগুলোর জীবনযাত্রা। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের খবর অনুযায়ী গত এক সপ্তাহে অন্তত ১৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে উইসকনসিনে ছয়জন, টেক্সাসে চারজন, নর্থ ক্যারোলাইনায় তিনজন এবং মিশিগান, মিসৌরি, নর্থ ডাকোট ও ভার্জিনিয়ায় একজন করে মারা যায়। বিরূপ আবহাওয়ার কারণে বিমান, রেল ও সড়কপথে যোগাযোগ মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। বিভিন্ন উপকূলে বন্যা দেখা দিয়েছে। বেশ কয়েকটি এলাকায় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে স্কুল। আবহাওয়াবিদরা তুষারঝড়টিকে ‘বোমা সাইক্লোন’ নাম দিয়েছেন।

তবে বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় দুই রাজ্য নর্থ ও সাউথ ক্যারোলাইনায় বরফ জমা রাস্তায় গাড়ি দুর্ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছে। এ ছাড়া ঠাণ্ডাজনিত কারণে ১৭ জন মারা গেছে।

শৈত্যপ্রবাহের তীব্রতা আগামী এক সপ্তাহ পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে বলে জাতীয় আবহাওয়া দপ্তরের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। পাশাপাশি ‘বোমা সাইক্লোন’-এর কারণে বহুমাত্রিক দুর্যোগের আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।

ঝড়ে নিউ ইয়র্কের পূর্বে নায়াগ্রা জলপ্রপাতে তাপমাত্রা অবিশ্বাস্যভাবে কমে গেছে। সন্ধ্যায় সেখানে তুষারপাত বন্ধ হলেও তাপমাত্রা মাইনাস ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছায়। ভার্জিনিয়া ও উত্তর ক্যারোলাইনায় ৩০ হাজার গ্রাহক বিদ্যুত্হীন হয়ে পড়ে বলে সিএনএন জানিয়েছে। এ ছাড়া নিউ ইয়র্কে তিন হাজার ও বোস্টনে ১০ হাজার মানুষ বিদ্যুিবচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

বোস্টন উপকূলে ঝড়ের সঙ্গে বিশাল আকৃতির ঢেউয়ের দেখা মেলে। ম্যাসাচুসেটসের গভর্নর চার্লি বেকার একে ‘ঐতিহাসিক বন্যা’ আখ্যা দিয়েছেন।

উত্তর ফ্লোরিডা ও জর্জিয়ার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের উপকূলে তুষারপাতে রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। ঘোষণা করা হয় জরুরি অবস্থা। গত তিন দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো তুষারপাত দেখা যায় ফ্লোরিডায়। নিউ ইয়র্ক, ওয়াশিংটনসহ বেশ কিছু এলাকায় স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়।

বিমান চলাচল পর্যবেক্ষণকারী ফ্লাইটঅ্যাওয়ারের হিসাব মতে, ঝড়ের কারণে যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় চার হাজার ফ্লাইট বাতিল হয়েছে এবং দুই হাজার ফ্লাইট বিলম্বিত হয়েছে। এয়ার ফ্রান্স গত দুই দিনের প্যারিস থেকে বোস্টন ও নিউ ইয়র্কে চলাচলকারী সব ফ্লাইট বাতিল করেছে। নিউ ইয়র্কে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইট জরুরি অবতরণ করতে বাধ্য হয়। এ ছাড়া বরফ জমে থাকার কারণে অনেক রাস্তায় বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বেশ কিছু এলাকায় বন্ধ করা হয় রেলসেবা। ভার্জিনিয়ার গভর্নর টেরি ম্যাকলিফে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে নাগরিকদের সতর্ক থাকতে বলেছেন।

নিউ ইয়র্কের গভর্নর অ্যান্ড্রু কুয়োমো বলেন, ‘তীব্র বাতাসের মধ্যে রাস্তা থেকে বরফ সরানো প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। কারণ সরানোর পরপরই বাতাসে পাশের বরফগুলো ফের রাস্তায় জমছে।’ সূত্র : এএফপি, বিবিসি।


মন্তব্য