kalerkantho


হ্যারডস থেকে সরছে ডায়ানা-দোদির ভাস্কর্য

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



হ্যারডস থেকে সরছে ডায়ানা-দোদির ভাস্কর্য

লন্ডনের অভিজাত ডিপার্টমেন্টাল স্টোর হ্যারডস থেকে প্রয়াত প্রিন্সেস ডায়ানা ও তাঁর বন্ধু দোদি আল ফায়েদের ‘ইনোসেন্ট ভিকটিমস’ শীর্ষক ব্রোঞ্জের ভাস্কর্যটি সরিয়ে ফেলা হচ্ছে। হ্যারডস কর্তৃপক্ষ গতকাল শনিবার জানিয়েছে, ভাস্কর্যটি এবার তারা মোহামেদ আল ফায়েদের কাছে ফিরিয়ে দেবে।

ডায়ানা ও দোদি ফ্রান্সের প্যারিসে ১৯৯৭ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হওয়ার পর দোদির বাবা মিসরের ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ও হ্যারডসের সাবেক মালিক মোহামেদ আল ফায়েদ ব্রোঞ্জের ভাস্কর্যটি নির্মাণ করান। মোহামেদ ২০১০ সালে কাতার হোল্ডিংসের কাছে হ্যারডস বিক্রি করে দিলেও ভাস্কর্যটি সেখানেই ছিল।

উল্লেখ্য, মোহামেদ ব্রিটিশ রাজপরিবারের বিরুদ্ধে ডায়ানা-দোদি হত্যার নীলনকশা প্রণয়নের অভিযোগ আনার পর ২০০০ সালে হ্যারডস রয়াল ওয়ারেন্টি হারায়।

হ্যারডসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাইকেল ওয়ার্ড বলেন, ‘প্রিন্সেস অব ওয়েলস ডায়ানা ও দোদি আল ফায়েদের জীবনকে সম্মানিত করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পেরে এবং গত ২০ বছর ধরে সারা বিশ্বের মানুষকে এ স্মারক পরিদর্শনে স্বাগত জানাতে পেরে আমরা ভীষণ গর্বিত। কেনসিংটন প্যালেসে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রিন্সেস অব ওয়েলস ডায়ানার ভাস্কর্য নির্মাণের ঘোষণা আসায় আমরা মনে করছি, এ স্মারকটি আল ফায়েদের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার এবং প্রাসাদে গিয়ে নিজেদের শ্রদ্ধা জানাতে জনগণকে আহ্বান জানানোর এখনই সময়।’ উল্লেখ্য, ডায়ানার ছেলে প্রিন্স উইলিয়াম ও হ্যারি কেনসিংটন প্রাসাদে তাঁদের মায়ের ভাস্কর্য নির্মাণ করাচ্ছেন।

আল ফায়েদ পরিবারের এক মুখপাত্র টাইমস সংবাদপত্রকে বলেন, ‘তাদেরকে বাড়ি ফিরিয়ে আনার সময় হয়ে গেছে।’ মালিকানা বদল সত্ত্বেও এত দিন ওই ভাস্কর্য হ্যারডসে রাখায় কাতার হোল্ডিংসের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানায় আল ফায়েদ পরিবার।

ব্রিটিশ রাজবধূ ডায়ানার জীবনযাপন পদ্ধতি নিয়ে মতানৈক্যের জেরে ১৯৯৬ সালে স্বামী প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে তাঁর বিচ্ছেদ ঘটে। পরের বছর প্যারিসে বন্ধু দোদিসহ এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান ডায়ানা। তাঁর মৃত্যুর পেছনে ব্রিটিশ রাজপরিবারের হাত থাকা নিয়ে বিশ্বজুড়ে আজও বিতর্ক আছে। তাই মৃত্যুর দুই দশক পরও আলোচনায় আছেন প্রিন্সেস ডায়ানা। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য