kalerkantho


তিউনিসিয়া সরকারকে ‘হলুদ কার্ড’ দেখাচ্ছে বিক্ষোভকারীরা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দারিদ্র্য আর ভয়াবহ বেকারত্বের মধ্যে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও নতুন করারোপের প্রতিবাদে উত্তর আফ্রিকার দেশ তিউনিসিয়ায় সরকারবিরোধী আন্দোলন অব্যাহত আছে। দেশটির রাজধানী তিউনিস ও উপকূলীয় শহর স্ফ্যাক্স থেকে শুক্রবার শত শত বিক্ষোভকারীকে আটক করা হয়েছে।

চলতি মাসের শুরু থেকে দেশটির বিভিন্ন অঞ্চলে আন্দোলন চালিয়ে আসছে বিক্ষুব্ধ তিউনিসিয়ানরা। সাবেক একনায়ক বেন আলির ক্ষমতাচ্যুতির বার্ষিকী উদ্‌যাপনের ঠিক আগ মুহূর্তে এ আন্দোলন শুরু হলো। ২০১১ সালের ১৪ জানুয়ারি বিক্ষোভের মুখে ২৩ বছর ধরে থাকা প্রেসিডেন্ট বেন আলি ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হন। আর এর মধ্য দিয়েই সূচনা হয় আরব বসন্তের। যদিও পরবর্তী সময়ে দেশটিতে দারিদ্র্য আর বেকারত্ব নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি শাসকরা।

শুক্রবার তিউনিসের রাস্তায় দুই শতাধিক তরুণ বড় আন্দোলনের জন্য ‘আমরা কিসের জন্য অপেক্ষা করছি?’ শিরোনামে সমাবেশ করেছে। এ সময় সরকারকে হলুদ কার্ড দেখায় আন্দোলনকারীরা। তাদের স্লোগানে স্লোগানে সরকারের প্রশাসন ভবন প্রকম্পিত হয়। ‘জনগণ নতুন অর্থনৈতিক নীতি বাতিল চায়’, ‘নতুন নীতিতে জনগণ বিরক্ত’ প্রভৃতি স্লোগান দেয় তারা।

আন্দোলনকারীদের একজন হেন্দা চেননাওই বলেন, ‘অর্থনৈতিক মন্দা ও জীবনযাপনের উচ্চব্যয়ের মতো বাস্তবধর্মী সমস্যায় আমরা কয়েক বছর ধরে ভুগছি।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি, এখনো আলোচনার সুযোগ আছে। এর মাধ্যমে সংস্কার সম্ভব।’

তিউনিস থেকে ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণের শহর স্ফ্যাক্সে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে ২০০ মানুষ বিক্ষোভ দেখায়। প্ল্যাকার্ডে ‘জনগণের অর্থ প্রাসাদে, তাদের সন্তানরা জেলখানায়’ লেখা দেখা যায়। শহরটিতে গ্রেপ্তার ব্যক্তির সংখ্যা শুক্রবার নাগাদ ৮০০ ছাড়িয়েছে বলে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

এদিকে উত্তরের শহর সিলিয়ানায় এক দল তরুণ পাথর ছুড়লে পুলিশ টিয়ার শেল ছোড়ে। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য