kalerkantho


তিউনিসিয়ায় বিক্ষোভের মুখে সংস্কারের ঘোষণা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



টানা কয়েক দিনের বিক্ষোভের মুখে সামাজিক সংস্কারের ঘোষণা দিয়েছে তিউনিসিয়া সরকার। এ নিয়ে এরই মধ্যে জরুরি বৈঠক করেছেন সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তারা। সংস্কার প্রস্তাব তোলা হয়েছে পার্লামেন্টেও।

গত মাসে তিউনিসিয়াকে বাজেট ঘাটতি কমাতে কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানায় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল—আইএমএফ। এর পরিপ্রেক্ষিতে নতুন বছরে কর বাড়িয়ে দেয় সরকার। পাশাপাশি দাম বাড়ানো হয় অনেক সেবার। মূলত সরকারের এসব পদক্ষেপের বিরুদ্ধে চলতি মাসের শুরুতে বিক্ষোভে নামে সাধারণ মানুষ। তবে এ ক্ষোভের পেছনে দেশটির ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব ও দারিদ্র্যতাও আছে। এ ছাড়া ২০১৫ সালে বিদেশি নাগরিকদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার পর ধস নামে দেশটির পর্যটনশিল্পেও।

গত কয়েক দিনের বিক্ষোভে প্রায় ৮০০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আহত হয়েছে কয়েক শ মানুষ। এ অবস্থায় সামাজিক সংস্কারের ঘোষণা দিল সরকার।

গত শনিবার এ বিষয়ে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শীর্ষ ব্যবসায়ী ও সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসেন প্রেসিডেন্ট বেজি কায়েদ এসেবসি। দুই ঘণ্টার ওই বৈঠকে সম্ভাব্য সামাজিক সংস্কার নিয়ে আলোচনা হয়।

সমাজকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মেদ ত্রাবেলসি জানান, সংস্কারের মধ্যে কল্যাণ ভাতার একটি প্রস্তাব আছে। এ জন্য দরকার প্রায় সাত কোটি ডলার। এই ভাতার মাধ্যমে গরিব ও মধ্যবিত্তরা উপকৃত হবে। তিনি আরো জানান, আবাসন ও চিকিৎসা খাতেও সংস্কার আনা হবে। তবে এসব বিষয়ে তিনি বিস্তারিত জানাননি।

এদিকে গতকাল ছিল তিউনিসিয়ার ২০১১ সালের গণ-আন্দোলনের সাত বছর পূর্তি। দিনটিকে উপলক্ষ করে বিক্ষোভকারীরা চলমান আন্দোলনকে আরো বেগমান করার চেষ্টা চালায়। গতকাল রাজধানী তিউনিসে কয়েক শ বিক্ষোভকারী জড়ো হয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এ সময় তাদের কণ্ঠে ছিল ২০১১ সালের সেই স্লোগান—‘কাজ, স্বাধীনতা, মর্যাদা’ চাই। সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য