kalerkantho


ইয়েমেন

ত্রাণের আশায় সোয়া দুই কোটি মানুষ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেনের বেশির ভাগ নাগরিকের মানবিক সহায়তা দরকার বলে জাতিসংঘ গতকাল মঙ্গলবার জানিয়েছে। সৌদি সরকার সমর্থিত বাহিনী এবং বিদ্রোহীদের মধ্যে প্রায় চার বছর ধরে চলা যুদ্ধে দেশটির বেশির ভাগ মানুষ দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে রয়েছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার দপ্তর ওসিএইচএ জানিয়েছে, ২০১৭ সালে দেশটিতে দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে পড়া মানুষের সংখ্যা ৬৮ লাখ থেকে বেড়ে ৮৪ লাখ হয়েছে।

ইয়েমেনের দুই কোটি ৯০ লাখ মানুষের ৭৬ শতাংশ দুই কোটি ২২ লাখ মানুষ বর্তমানে সহায়তার ওপর নির্ভর করছে। গত ছয় মাসে সহায়তার ওপর নির্ভর করা মানুষের সংখ্যা ১৫ লাখ বেড়েছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে জাতিসংঘ ইয়েমেনের নাগরিকদের সবচেয়ে বেশি মানবিক বিপর্যয়ের শিকার বলে বর্ণনা করেছে।

সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনী বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত বন্দরে অবরুদ্ধ করে রাখায় জাতিসংঘের ত্রাণকার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এ ছাড়া গত নভেম্বরে রিয়াদ বিমানবন্দরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর জোট বাহিনী জাতিসংঘের ত্রাণসামগ্রী পরিবহনে বাধা সৃষ্টি করছে। এ কারণে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আনা চারটি চলমান ক্রেনবাহী একটি জাহাজ বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত বন্দর হোদেইদাতে আটকা পড়ে আছে। ইয়েমেনের আমদানীকৃত পণ্যের ৭০ শতাংশের এই বন্দরে ওঠানামা করে। জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেছেন, ‘এই চারটি ক্রেন ছাড় পেলে ত্রাণসামগ্রী পরিবহন কার্যক্রম অনেক গতিশীল হবে।’ ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধে ২০১৫ সালে সৌদি আরব হস্তক্ষেপ করার পর এ পর্যন্ত ৯ হাজার ২৪৫ জন নিহত হয়েছে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে। ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ আহত হয়েছে এবং কয়েক লাখ মানুষ ঘরবাড়ি ছাড়া হয়েছে। গৃহযুদ্ধের কারণে ইয়েমেনের স্বাস্থ্য কার্যক্রম ধ্বংসের মুখে পড়েছে।  সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য