kalerkantho


‘আত্মঘাতী হামলা অনৈসলামিক’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



পাকিস্তানে প্রায় দুই হাজার ধর্মীয় নেতার জারি করা এক ফতোয়ায় বলা হয়েছে, ইসলামের প্রকৃত বাণীর সঙ্গে আত্মঘাতী হামলা চালানো, নির্দেশ দেওয়া এবং এ উদ্দেশ্যে প্রশিক্ষণ দেওয়ার কোনো সম্পর্ক নেই। এই বিষয়গুলো পুরোপুরি ইসলাম পরিপন্থী। এই ফতোয়াসহ ‘পাকিস্তানের বার্তা নামে একটি নথি গতকাল মঙ্গলবার উন্মোচন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহসান ইকবাল।

সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় প্রকাশিত এই নথিতে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট মামনুন হোসেন বলেন, ‘আধুনিক ইসলামী সমাজের স্থিতিশীলতার জন্য এই ফতোয়া একটি শক্তিশালী ভিত্তি দেবে।’ বইয়ের ফতোয়া থেকে নেওয়া নির্দেশনা রাষ্ট্রজুড়ে উগ্রবাদ কমিয়ে ইসলামের ‘স্বর্ণালি মূলনীতি’ অক্ষুণ্ন রাখতে ভূমিকা রাখবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

এ নথিতে পাকিস্তানের ধর্মীয় নেতারা বলছেন, ‘কোনো ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠীর জিহাদ ডাকা কিংবা তা পরিচালনার এখতিয়ার নেই।’ আত্মঘাতী বোমা হামলা ইসলামের মূল শিক্ষার সঙ্গে সাংঘর্ষিক, সে কারণে এটি নিষিদ্ধ বলেও মন্তব্য করেছেন তাঁরা। এর আগে মধ্যপ্রাচ্যের ধর্মীয় নেতারাও ইসলামিক স্টেট (আইএস) ও অন্যান্য জঙ্গিগোষ্ঠীর ডাকা জিহাদ ও আত্মঘাতী হামলার বিরুদ্ধে এ ধরনের ফতোয়া দিয়েছিলেন।

এক হাজার ৮০০ ধর্মীয় নেতার সই করা এই নথি ছাপিয়েছে পাকিস্তানের ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটি। পাকিস্তান বছরের পর বছর ধরে ইসলামী জঙ্গিদের লাগাতার সহিংসতার শিকার। দেশটিতে ইসলামী শাসন কায়েম করতে চাওয়া এ জঙ্গিগোষ্ঠীগুলো তাদের তত্পরতা ও ধারাবাহিক আত্মঘাতী বোমা হামলাকে ‘জিহাদ’ বা ‘ধর্মযুদ্ধ’ হিসেবে আখ্যায়িত করে আসছে। সূত্র : জং টিভি।


মন্তব্য