kalerkantho


জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তর

নেতানিয়াহুর দাবি নাকচ করে দিলেন ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



নেতানিয়াহুর দাবি নাকচ করে দিলেন ট্রাম্প

এক বছরের মধ্যে জেরুজালেমে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস স্থানান্তরিত হবে বলে যে দাবি করেছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু, সেটা অস্বীকার করেছেন তাঁরই ঘনিষ্ঠতম মিত্র মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এদিকে যুক্তরাষ্ট্র ফিলিস্তিনিদের জন্য অর্থ সহায়তা আশঙ্কাজনক হারে কমিয়ে দেওয়ার পর সহায়তার হাত বাড়িয়েছে বেলজিয়াম। ফিলিস্তিন ও জেরুজালেম নিয়ে এসব টানাহেঁচড়ার মধ্যে ইসরায়েলি সেনার হামলায় প্রাণ হারিয়েছে এক ফিলিস্তিনি।

ভারত সফররত ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু গত বুধবার তাঁর সফরসঙ্গী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার নিরেট মূল্যায়ন হলো (যুক্তরাষ্ট্রের) দূতাবাস আপনাদের চিন্তার চেয়ে অনেক দ্রুত জেরুজালেমে সরানো হবে, এখন থেকে এক বছরের মধ্যে।’ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট গত ৬ ডিসেম্বর জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করেন এবং ইসরায়েলের বাণিজ্যিক রাজধানী তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেন। এ ঘোষণার পর মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তরের সময়সীমা নিয়ে নানা আলোচনার মধ্যে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন জানিয়েছিলেন, এক বছরের মধ্যে দূতাবাস সরানো সম্ভব হবে না।

মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তর প্রসঙ্গে নেতানিয়াহুর দাবি গত বুধবারই প্রত্যাখ্যান করেন ট্রাম্প। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্সকে সাক্ষাৎকার প্রদানকালে নেতানিয়াহুর মন্তব্যের ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘এ বছরের শেষে? আমরা অন্য পরিস্থিতি নিয়ে কথাবার্তা চালাচ্ছি, মানে আমি বলতে চাচ্ছি সেটা হবে অস্থায়ী ভিত্তিতে। সত্যি বলতে কী, ওদিকে আমরা দৃষ্টিই দিচ্ছি না। একদম না।’ জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থাপন প্রসঙ্গে তিনি অবশ্য এটাও বলেছেন, ‘একটা সুন্দর দূতাবাস হবে, তবে সেটার জন্য ১২০ কোটি ডলার খরচ হবে না।’ লন্ডনে নতুন মার্কিন দূতাবাস নির্মাণে ১২০ কোটি ডলার ব্যয়ের প্রসঙ্গ টেনে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগের দিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর জানায়, ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের সহায়তায় নিয়োজিত জাতিসংঘ সংস্থা ইউএনআরডাব্লিউএর জন্য প্রতিশ্রুত সাড়ে ১২ কোটি ডলারের মধ্যে মাত্র ছয় কোটি ডলার দেওয়া হবে। এ নিয়ে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সৃষ্ট আশঙ্কা এবং নিন্দাবাদের মধ্যে ফিলিস্তিনিদের জন্য সহায়তা প্রদানের অঙ্গীকার করেছে বেলজিয়াম। গত বুধবার বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী ডি ক্রু দুই কোটি ৩০ লাখ ডলার সহায়তা দেওয়ার অঙ্গীকার করেন। আগামী তিন বছরে এ অর্থ ছাড় করা হবে বলে তিনি বিবৃতিতে জানান। তুরস্কও সহায়তা প্রদানের কথা বলেছে, তবে অর্থের পরিমাণ নিয়ে তারা কিছু জানায়নি।

বেলজিয়ামের সরকারপ্রধান ক্রু জানান, ইউএনআরডাব্লিউএর প্রধান পিয়েরে ক্রাহেনবুলের জরুরি সহায়তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে তিনি হাত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন। বুধবারের বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘গাজা, সিরিয়া, পশ্চিম তীর এবং ওই অঞ্চলের অন্যান্য জায়গায় জীবনযাপন পরিস্থিতি খুবই কঠিন। অনেক ফিলিস্তিনি শরণার্থীর জন্য ইউএনআরডাব্লিউএ হলো জীবনের শেষ ভরসা। ইউএনআরডাব্লিউএর সহায়তার কারণে পাঁচ লাখ ফিলিস্তিনি শিশু স্কুলে যেতে পারে। এর মধ্য দিয়ে তারা মৌলবাদ আর চরম সহিংসতার শিকার হওয়া থেকে রক্ষা পাচ্ছে।’

ফিলিস্তিনি তরুণ নিহত : পশ্চিম তীরের জেনিন এলাকায় ইসরায়েলের নিরাপত্তা বাহিনীর গত বুধবার দিবাগত রাতের অভিযানে আহমেদ জারার নামে ২২ বছরের এক তরুণ নিহত হয়েছে। অভিযানকালে ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষ হয় এবং দুই ফিলিস্তিনিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পশ্চিম তীরে গত ৯ জানুয়ারি রাজিয়েল শেভাহ নামের ৩৫ বছর বয়সী এক ইহুদি ধর্মীয় নেতাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। হত্যাকারীকে ধরতে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর অব্যাহত তত্পরতার অংশ হিসেবে গত বুধবার জেনিনে অভিযান চালানো হয়, যা গতকাল বৃহস্পতিবার সকালেও অব্যাহত ছিল। অভিযানে জারার পরিবারের ঘরবাড়ি একেবারে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। সূত্র : এএফপি, রয়টার্স, আলজাজিরা।


মন্তব্য