kalerkantho


ট্রাম্প নন, লন্ডন সফরে যাচ্ছেন টিলারসন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



লন্ডনে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন দূতাবাস পরিদর্শনে আগামী সপ্তাহে ইংল্যান্ড সফরে যাবেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন। সুইজারল্যান্ডের ডাভোসে অনুষ্ঠেয় বিশ্ব অর্থনীতি ফোরামে যোগ দেওয়ার আগে টিলারসন প্যারিস ও ওয়ারশ সফর করবেন। ব্যস্ত এই সফর শুরুর আগে আগামী সোমবার তিনি লন্ডন যাওয়ার প্রত্যাশা করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরসূচি এখনো চূড়ান্ত হয়নি—তবে গত বুধবার তিনি নিজেই দূতাবাস পরিদর্শনের কথা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। টিলারসন সাংবাদিকদের বলেছেন, ব্রিটেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন তাঁর জন্য ব্যস্ত এক কর্মসূচি তৈরি করেছেন। সে সময়ে দূতাবাস পরিদর্শন করার আশা করছি।

১০ বছরের চলমান প্রক্রিয়া শেষে এক বিলিয়ন ডলার খরচে লন্ডনে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন দূতাবাসের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। দূতাবাস পরিদর্শনে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আসবেন বলে কয়েক দিন আগে সংবাদ প্রকাশিত হলেও ট্রাম্প ক্রুদ্ধভাবে তা প্রত্যাখ্যান করেন। ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে টুইটারে ট্রাম্প বলেন, ‘আমি ওবামা প্রশাসনের সমর্থক নই। সম্ভবত লন্ডনে তারা সেরা ও সুন্দর স্থানটি বিক্রি করে দিয়ে ১.২ বিলিয়ন ডলার খরচ করে নতুন দূতাবাস তৈরি করেছে। খুবই খারাপ কাজ। আমি সেখানে গিয়ে ফিতা কেটে উদ্বোধন করব—কখনো না।’

যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস জানিয়েছে, বারাক ওবামা দায়িত্ব নেওয়ার আগে এই প্রকল্পটি ২০০৭ সালে হাতে নেওয়া হয়েছিল।

নতুন দূতাবাস তৈরিতে ব্যয়ের পরিমাণ এবং এর অবস্থান নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করায় প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের ইংল্যান্ড সফর দেরি হচ্ছে বলে অনেকে মনে করছেন। তবে ব্রিটেনের সংবাদমাধ্যম ভিন্ন কথা বলছে। তারা জানিয়েছে, ট্রাম্প ভালো করেই জানেন ইংল্যান্ডে যেকোনো সফরে তিনি প্রতিবাদের মুখে পড়বেন। এদিকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিদার নাউর্ত বিপুল ব্যয় ও উদ্বোধনের সময়ের সমর্থনে বলেছেন, ‘আগের স্থানে এখনো কর্মকাণ্ড অব্যাহত রয়েছে। আমরা আসলে দূতাবাস উদ্বোধনে একটু তাড়াহুড়া করে ফেলেছি। যাহোক এটা নির্ধারিত সময়ে উদ্বোধন করতে পারাটা বিশেষ ঘটনা। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরের সময় কোনো উদ্বোধনের ঘটনা থাকছে না।’ টিলারসন লন্ডন সফরে বরিস জনসন এবং জাতীয় নিরাপত্তা পরামর্শক মার্ক সেডউইলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য