kalerkantho


‘চীন-রাশিয়াকে’ সামলাতে শক্তি বাড়াচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



‘চীন-রাশিয়াকে’ সামলাতে শক্তি বাড়াচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

চীন ও রাশিয়ার দিক থেকে ‘হুমকি ক্রমেই বাড়ছে’ মন্তব্য করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জিম ম্যাটিস নিজেদের সামরিক শক্তি ‘সার্বক্ষণিক প্রস্তুতির’ পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। জাতীয় প্রতিরক্ষা কৌশল শীর্ষক পরিকল্পনার বিস্তারিত উপস্থাপন বিষয়ক নিবন্ধে গত শুক্রবার তিনি একথা বলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনা সদর দপ্তর পেন্টাগনের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা উপস্থাপনকালে ম্যাটিস বলেন, ‘আমরা চীন ও রাশিয়ার মতো বিভিন্ন সংশোধনবাদী শক্তির ক্রমবর্ধমান হুমকির মুখে রয়েছি। এসব দেশ তাদের স্বৈরাচারী শাসনব্যবস্থার অনুরূপ এক পৃথিবী গড়তে চায়।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের সেনাবাহিনী এখনো শক্তিশালী। তবে জল, স্থল, আকাশ, অন্তরীক্ষ আর সাইবার জগৎ, সব ক্ষেত্রে আমাদের প্রতিযোগিতার ধার ক্ষয়ে গেছে, সেই ক্ষয় অব্যাহত আছে।’

বিশ্বের অন্যান্য শক্তির হুমকির মুখে নিজেদের সেনাবাহিনীর বহর বাড়ানো, যুদ্ধের জন্য সার্বক্ষণিক প্রস্তুতির সক্ষমতা তৈরি এবং এশিয়া, ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে সব মিত্র দেশগুলোর সঙ্গে সামরিক সহযোগিতা বৃদ্ধির কৌশল হাতে নিয়েছে পেন্টাগন। এ ব্যাপারে ম্যাটিস বলেন, ‘এ কৌশলের মধ্য দিয়ে জরুরি ভিত্তিতে বড় ধরনের পরিবর্তনের প্রতি আমার তত্পরতা প্রমাণিত হয়েছে।’ তিনি মনে করেন, এ কৌশল বাস্তবায়নের স্বার্থে সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে অর্থ ব্যয়ের পরিবর্তে সামরিক শক্তি বৃদ্ধির দিকে যুক্তরাষ্ট্রের মনোযোগ দেওয়া দরকার। সামরিক খাতে বরাদ্দ বাড়াতে এবং আর অকারণ কাটছাঁট বন্ধ করতে কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানান প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

চীনের ব্যাপারে ম্যাটিসের আলাদা মন্তব্য হলো, ‘চীন হচ্ছে কৌশলগত প্রতিযোগী, যারা প্রতিবেশী দেশগুলোতে অনুপ্রবেশের জন্য শিকারি অর্থনীতিকে কাজে লাগাচ্ছে, অন্যদিকে দক্ষিণ চীন সাগরে সামরিকীকরণের কাজ চালাচ্ছে।’ রাশিয়ার ব্যাপারে তাঁর মন্তব্য, ‘রাশিয়া নিকটবর্তী দেশগুলোর সীমানা লঙ্ঘন করেছে এবং তাদের প্রতিবেশীদের অর্থনীতি, কূটনীতি ও নিরাপত্তা বিষয়ক সিদ্ধান্তে নিজেদের ভেটো প্রদানক্ষমতা কাজে লাগায়।’

যুক্তরাষ্ট্রের এ নতুন সমর কৌশলের নিন্দা জানিয়েছে রাশিয়া। জাতিসংঘে এক সংবাদ সম্মেলনে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেন, ‘স্বাভাবিক আলোচনা করার পরিবর্তে, আন্তর্জাতিক আইনের মূলনীতি কাজে লাগানোর পরিবর্তে যুক্তরাষ্ট্র এ রকম সাংঘর্ষিক কৌশল আর পরিকল্পনার মধ্য দিয়ে আদতে নিজেদের নেতৃত্ব প্রমাণের যে চেষ্টা চালাচ্ছে, সেটা পরিতাপের বিষয়।’ যুক্তরাষ্ট্রকে ‘সাম্রাজ্যবাদী চরিত্র’ অ্যাখ্যা দিয়েছে মস্কো। এ ছাড়া চীন যুক্তরাষ্ট্রের ‘ঠাণ্ডা যুদ্ধকালীন মানসিকতার’ নিন্দা জানিয়েছে।

মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটের আর্মড সার্ভিসেস কমিটির চেয়ারম্যান রিপাবলিকান নেতা জন ম্যাককেইন নতুন সমরনীতির প্রশংসা করেছেন। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য