kalerkantho


এইচএসসি প্রস্তুতি

সমাজবিজ্ঞান প্রথম পত্র

গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্ন

শামীমা ইয়াসমিন, প্রভাষক, রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ, ঢাকা   

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সমাজবিজ্ঞান প্রথম পত্র

অঙ্কন : মাসুম

উদ্দীপকটি পড়ে সংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :

সমাজবিজ্ঞান ক্লাসে স্যার বোর্ডে দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্ব সম্পর্কে লিখলেন :

i. শ্রেণি সম্পর্কের মূলে রয়েছে অর্থনৈতিক উৎপাদন

ii. শ্রেণি সমাজের মূলে রয়েছে শোষণ

iii. উৎপাদন সম্পর্কের মালিকানা, যা হলো উৎপাদনের উদ্বৃত্ত আত্মসাৎ

ক) কোন দার্শনিক দাসদের উৎপাদনের মানবরূপী হাতিয়ার হিসেবে চিহ্নিত করেছেন?

খ) স্তরবিন্যাস মূলত সামাজিক বিষয়—ব্যাখ্যা করো।

গ) বোর্ডে উল্লিখিত দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বটি মার্ক্স না কি ডরেন ডর্ফের তত্ত্বকে নির্দেশ করছে? ব্যাখ্যা করো।

ঘ) উদ্দীপকে উল্লিখিত তত্ত্ব ও ডরেন ডর্ফের দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বের তুলনামূলক বিশ্লেষণ করো।

 

উত্তর : ক) গ্রিক দার্শনিক অ্যারিস্টটল দাসদের উৎপাদনের মানবরূপী হাতিয়ার হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।

 

খ) স্তরবিন্যাস মূলত সামাজিক বিষয়। কারণ সমাজের সদস্যরাই স্তরবিন্যাসে বিশ্বাসী অথবা তাদের মনোভাব, মতামত বা মূল্যায়নই স্তরবিন্যাসের ভিত্তি।

স্তরবিন্যাসের জৈবিক উপাদান যথা—বয়স, লিঙ্গ, উচ্চতা, শক্তি, নরবংশ ইত্যাদি সামাজিক মর্যাদার অবস্থান নির্ণয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এগুলো এ কারণেই গুরুত্বপূর্ণ যে সমাজের সদস্যদের বিচারে তা গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত। কেননা, সমাজ এগুলোর প্রভাব ও গুরুত্ব স্বীকার করে। অনেক সমাজে বেটের চেয়ে লম্বা, অতিশয় মোটার চেয়ে হালকা-পাতলা গড়নের মানুষকে বেশি মর্যাদা দেয়।

 

গ) বোর্ডে উল্লিখিত দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বটি মার্ক্সের দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বকে নির্দেশ করছে। একসময় এই দুই শ্রেণির মধ্যকার দ্বন্দ্বে সামাজিক পরিবর্তন সাধিত হবে। সুতরাং তত্ত্বটি মার্ক্সের।

দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্ব সমাজের স্তরবিন্যাস বিশ্লেষণে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। এ তত্ত্ব প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সমাজের অর্থনৈতিক সম্পর্কের সঙ্গে যুক্ত। সামাজিক স্তরবিন্যাসের মার্ক্সীয় তত্ত্বে উৎপাদন যন্ত্রের মালিকানা ও অমালিকানার ভিত্তিতে সামাজিক শ্রেণিগুলোকে সংজ্ঞায়িত করা হয় এবং এভাবে ইতিহাসের প্রত্যেক শ্রেণিসমাজে পরস্পরবিরোধী দুটি প্রধান শ্রেণির অস্তিত্ব থাকে। একটি শ্রেণি গঠিত হয় তাদের দ্বারা, যারা উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত নয় অর্থাৎ শোষক শ্রেণি আবার অন্যটি হলো উৎপাদন সম্পর্কের সঙ্গে যারা জড়িত অর্থাৎ শোষিত শ্রেণি।

সুতরাং বলা যায়, দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বের মাধ্যমে সমাজের স্তরবিন্যাস বিশ্লেষণে দ্বান্দ্বিক মতবাদীদের মধ্যে কার্ল মার্ক্সের নাম অন্যতম।

 

ঘ) উদ্দীপকে কার্ল মার্ক্সের দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্ব আলোচিত হয়েছে। ডরেন ডর্ফের দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বের মূল ভিত্তি হলো তিনি মার্ক্সের তত্ত্বকে খণ্ডন ও গ্রহণ করতে চেয়েছেন। ডরেন ডর্ফ দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বে দলীয় স্বার্থের কথা বলেন। মার্ক্সও দলীয় স্বার্থের কথা বলেন। তবে মার্ক্স যে শ্রেণিদ্বন্দ্বের কথা বলেন, ডরেন ডর্ফ তা স্বীকার করেন না।

মার্ক্স বলেন, শ্রেণিসংগ্রাম একটি পর্যায়ে এসে থাকবে না। এ ক্ষেত্রে ডর্ফ বলেন, শুধু অর্থনীতিকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব থাকে না। দ্বন্দ্বের আরো অনেক উপাদান রয়েছে। কারণ শিল্পসমাজের প্রেক্ষাপটে দেখা যায় উচ্চ শ্রেণির লোকেরা বেশিদিন উৎপাদন সম্পর্ক ধরে রাখতে পারে না। শ্রেণিদ্বন্দ্বের কথা বলতে গিয়ে ডর্ফ বলেন, দ্বন্দ্ব বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে থাকবে। মার্ক্স শুধু শিল্পপ্রতিষ্ঠানের কথা বলেছেন; কিন্তু ডর্ফ তাঁর তত্ত্বে সব প্রতিষ্ঠানের মধ্যকার দ্বন্দ্বের কথা বলেছেন। 

সুতরাং বলা যায়, ডরেন ডর্ফের তত্ত্বে মার্ক্সের প্রভাব থাকলেও মার্ক্স ও ডরেনের তত্ত্বের মধ্যে অনেক পার্থক্য বিদ্যমান।


মন্তব্য