kalerkantho


ডিএনসিসি উপনির্বাচন

আ. লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত বিএনপি-জামায়াত সমঝোতা হয়নি

শফিক সাফি ও তৈমুর ফারুক তুষার   

১২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



আ. লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত বিএনপি-জামায়াত সমঝোতা হয়নি

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদের উপনির্বাচনে প্রার্থী ঘোষণা করতে শেষ পর্যায়ের প্রস্তুতিতে আছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও তাদের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপি।

আগামীকাল শনিবার বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে তাদের প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। এ বৈঠকেই সিদ্ধান্ত হবে ২০ দলীয় জোটের একক প্রার্থী দেওয়া হবে কি না। আর আগামী মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ তাদের প্রার্থী ঘোষণা করবে। এদিন আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ডের সভায় প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

তবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী অনেকটা নিশ্চিত করে ফেলেছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে; যদিও বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের একক প্রার্থী এখনো নিশ্চিত হয়নি। কেননা জোটের শরিক জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী এখনো মাঠে আছেন।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো জানায়, বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম আতিকই আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে যাচ্ছেন। সাধারণ ভোটার ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের প্রতিক্রিয়া যাচাইয়ের জন্য আতিকুল ইসলামকে বেশ কিছুদিন আগেই প্রার্থী হিসেবে সবুজ সংকেত দিয়ে মাঠে নামানো হয়। আতিক গত কয়েক সপ্তাহে নির্বাচনী প্রস্তুতির কাজ সফলতার সঙ্গেই সম্পন্ন করেছেন। মাঠে নামার পর ভোটারদের মধ্যে আতিকের বিরুদ্ধে নেতিবাচক কোনো প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও আতিককে গ্রহণ করেছে। এ ছাড়া দ্রুততার সঙ্গে আতিকের জয়ের সম্ভাবনা নিয়ে একাধিক জরিপও করা হয়েছে। জরিপে আতিকের পক্ষে ইতিবাচক ফলও এসেছে। এতে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে আতিককেই প্রার্থী ঘোষণার মনোভাব জানানো হয়েছে। ডিএনসিসিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনোনয়ন প্রসঙ্গে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ডিএনসিসি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ঘোষণা করবে আগামী ১৬ জানুয়ারি। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড এই ঘোষণা দেবে।’

আতিকুল ইসলামের প্রার্থিতার বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “প্রার্থী ঘোষণার আগে কেউ প্রার্থী নন। অনেকে নিজের মতো করে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন। এতে প্রমাণিত হয় না যে প্রার্থী নির্বাচন হয়ে গেছে। তবে আতিকুল ইসলাম দলের সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন। সে সময় শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘কাজ করো, সিদ্ধান্ত পরে।”

প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ ব্যবসায়ীদের দিকে ঝুঁকছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল বলেন, ‘দলের প্রার্থী, দলীয় নেতা আর নির্বাচন এটার মধ্যে পার্থক্য আছে। এটা রাজনৈতিক কৌশল। কৌশলগত ঐক্য। নির্বাচনে কৌশলগত ঐক্য হয়।’ তিনি আরো বলেন, ‘একজন রাজনীতিবিদ কি ব্যবসা করতে পারেন না? তাঁরা চাঁদাবাজি করে খাবেন?’

ওবায়দুল কাদের গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর বৈঠক শেষে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মুহম্মদ ফারুক খান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘১৫ তারিখের পর আমাদের দলের মনোনয়ন বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। এর আগে আমরা প্রার্থীদের কার কী অবস্থা, তা জানতে বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে জরিপ চালাচ্ছি। মনোনয়ন বোর্ডে সেসব জরিপের ফলাফল বিবেচনায় নিয়ে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।’

জানা গেছে, ডিএনসিসির মেয়র পদে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমাদানের জন্য ১৩ থেকে ১৫ জানুয়ারি সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দলীয় এ মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা যাবে। জমা দেওয়া যাবে ১৫ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত। প্রতিটি ফরমের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ হাজার টাকা।

এদিকে ২০ জোটের একক প্রার্থী ঘোষণার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে আগামীকাল। এদিন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পরই মূলত পরিষ্কার হবে কে হচ্ছেন প্রার্থী। তবে জোটপ্রধান খালেদা জিয়ার কাছ থেকে ‘সবুজ সংকেত’ পেয়ে এরই মধ্যে নির্বাচনী কর্মকাণ্ড শুরু করেছেন তাবিথ আউয়াল। গত মঙ্গলবার নির্বাচনী অফিস নির্ধারণ করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে সেখানে গিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে খোঁজখবর নিয়েছেন। আগামীকাল প্রার্থী ঘোষণা হলে পুরোদমে নির্বাচনী প্রচারণার কাজে এই অফিসকে ব্যবহার করবেন তিনি।

তবে নির্বাচনী মাঠে এখনো বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের শরিক জামায়াতের প্রার্থী সেলিম উদ্দিন সক্রিয় রয়েছেন। প্রার্থী হিসেবে শেষ পর্যন্ত তিনি থাকবেন কি না সে বিষয়ে জামায়াতের সাংগঠনিক সিদ্ধান্তই শেষ কথা বলে জানিয়েছেন সেলিম।

সূত্রগুলো বলছে, খালেদা জিয়ার কাছ থেকে পরামর্শ পেয়ে নির্বাচনী কর্মকাণ্ড শুরু করেছেন তাবিথ আউয়াল। নির্বাচন পরিচালনার জন্য রাজধানীর তেজগাঁও শিল্প এলাকায় ৪১৯-৪২০ হোল্ডিংয়ে অফিস নেন তিনি। গতকাল বিকেলে সেখানে অফিসও করেন। যেহেতু প্রার্থী আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা হয়নি, তাই সামাজিক কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়েই তিনি সময় কাটিয়েছেন।

তাবিথ আউয়াল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে আমার কোনো কর্মকাণ্ড হবে না। দলের সিদ্ধান্তগুলো এবং নির্বাচনী আচরণবিধি সব কিছু মেনেই আমি এগিয়ে যেতে চাই। দল আনুষ্ঠানিকভাবে আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি আমার কাজ পুরোদমে শুরু করব।’

এদিকে জামায়াতে ইসলামীর মনোনীত প্রার্থী মহানগর উত্তরের সভাপতি মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন গতকাল সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য আমার দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে। উত্তরা, বনানী, গুলশান, মোহাম্মদপুর, আদাবর, বাড্ডাসহ বিভিন্ন স্থানে আমি ইতিমধ্যে গণসংযোগ শুরু করেছি। ঘরোয়া বৈঠক করছি। আমাদের নেতাকর্মীরা কাজ করছে।’

মেয়র পদের জন্য আগামী রবিবার রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় থেকে ফরমও কিনবেন জানিয়ে জামায়াত নেতা সেলিম দাবি করেন, ‘উত্তর সিটির ভোটাররা মনে করেন যোগ্যতম প্রার্থী হিসেবে জোট নেত্রী আমাকেই চূড়ান্ত মনোনয়ন দেবেন ইনশাআল্লাহ।’

জোটের একক প্রার্থী হিসেবে বিএনপির মনোনয়ন না পেলে শেষ পর্যন্ত প্রার্থী থাকবেন কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘জনগণের প্রত্যাশা অনুযায়ী ইনশাআল্লাহ আমিই মনোনয়ন পাব। তবে এ ক্ষেত্রে দলীয় সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত।’

সেলিম উদ্দিন জামায়াতের ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র শিবিরের দুই দফা সভাপতি ছিলেন। তিনি বর্তমানে দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এবং মহানগর উত্তরের সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন।

তা ছাড়া ২০ দলীয় জোটের আরেক শরিক বাংলাদেশ লেবার পার্টির একাংশের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ইরান জানান, তাঁর দলের মহানগর উত্তরের সভাপতি এস এম ইউসুফ আলীকে এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। রবিবার তাঁরও ফরম কেনার কথা রয়েছে।

তবে ২০ দলীয় জোটের একক প্রার্থী চূড়ান্ত করতে আগামীকাল বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক ডেকেছেন খালেদা জিয়া। রাত সাড়ে ৮টায় এই বৈঠক হবে গুলশানে তাঁর কার্যালয়ে।

প্রসঙ্গত, প্রয়াত আনিসুল হকের উত্তরসূরি নির্বাচনে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনের তারিখ রেখে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। এই উপনির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হতে আবেদন জমা দেওয়া যাবে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত। তা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৯ জানুয়ারি। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ২১ ও ২২ জানুয়ারি।

বিএনপির ফরম বিতরণ : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা আসনে দলীয় মনোনয়ন নিতে আগ্রহীদের মধ্যে গতকাল ফরম বিতরণ শুরু করেছে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি। আজকের মধ্যে এই ফরম নিতে হবে।

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির দপ্তর সম্পাদক এ বি এম এ রাজ্জাক জানিয়েছেন, গতকাল সংরক্ষিত মহিলা আসনের জন্য ১ থেকে ৫ আসনের প্রার্থীরা মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন। আর ২৩ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ফরম নিয়েছেন। ৩৬ ওয়ার্ডের মধ্যে ২৮টি ফরম বিতরণ হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে মহানগরের এই নেতা জানান, শুধু উত্তরই এ কাজটি করছে। দক্ষিণ মহানগর বিএনপি এখনো এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।


মন্তব্য