kalerkantho


চার জেলায় এক রাতে ৬ গুলিবিদ্ধ লাশ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



চার জেলায় এক রাতে ৬ গুলিবিদ্ধ লাশ

প্রতীকী ছবি

এক রাতে চার জেলায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত ছয়জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুজন, যশোরে দুজন, ঝিনাইদহে একজন ও সাতক্ষীরায় একজন রয়েছে। পুলিশ বলছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দুজন চিহ্নিত ডাকাত; তারা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে। অন্য নিহতদের পরিচয় জানাতে পারেনি পুলিশ।

আমাদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি জানান, জেলার সরাইলে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সন্দেহভাজন দুই ডাকাত নিহত হয়েছে। শনিবার গভীর রাতে উপজেলার শাহবাজপুর-দেওড়া আঞ্চলিক সড়কে এ ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

নিহতরা হলেন—হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার সুজন গ্রামের আনার মিয়ার ছেলে বাদশা (২১) ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা সুতিয়ারা গ্রামের আব্দুল ওহাবের ছেলে এনতা মিয়া (৩২)।

সরাইল থানার ওসি মো. মফিজ উদ্দিন ভূঁইয়া কালের কণ্ঠকে জানান, গত বৃহস্পতি ও শুক্রবার রাতে সড়ক ও বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় তিন ডাকাতকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর মধ্যে দুজনকে নিয়ে শনিবার রাতে অস্ত্র উদ্ধারে বের হয় পুলিশ। পথে দুই ডাকাতকে ছিনিয়ে নিতে তাদের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে দুই ডাকাত গুলিবিদ্ধ হয়। পরে গুলিবিদ্ধ দুজনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।  ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, দুইটি কার্তুজসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

বিশেষ প্রতিনিধি, যশোর জানান, যশোরে গুলিবিদ্ধ চার লাশ পাওয়ার এক দিনের মাথায় আরো দুই গুলিবিদ্ধ অজ্ঞাতপরিচয় লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল সদর উপজেলার রঘুরামপুর গ্রাম থেকে একজনের এবং বাঘারপাড়া উপজেলার ভাঙ্গুরা এলাকা থেকে আরেকজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এর আগে শনিবার সদর ও ঝিকরগাছা উপজেলা থেকে গুলিবিদ্ধ চারটি লাশ উদ্ধার করেছিল পুলিশ।

যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই খবির উদ্দিন কালের কণ্ঠকে জানান, গতকাল ভোরের দিকে সদর উপজেলার রঘুরামপুর গ্রামে দুই দল সন্ত্রাসী বন্দুকযুদ্ধে লিপ্ত হয়েছে—এমন খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে এক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশি ওয়ান শ্যুটার গান, এক রাউন্ড গুলি, পাঁচটি গুলির খোসা, পাঁচটি ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

অন্যদিকে বাঘারপাড়ার স্থানীয় বাসিন্দা বখতিয়ার রহমান জানান, সকালে ভাঙ্গুড়া পুরনো ব্রিজের নিচে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে তিনি প্রথমে বাঘারপাড়া ও পরে নড়াইল থানা পুলিশকে খবর দেন। দুই জেলার সীমান্তবর্তী স্থান হওয়ায় কোনো পুলিশ স্টেশনই প্রথমে দায়িত্ব নিতে চায়নি। পরে দুপুর ১২টার দিকে বাঘারপাড়ার ভিটাবল্যা ক্যাম্প পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়।

বাঘারপাড়া থানার ওসি মঞ্জুরুল আলম বলেন, লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। লাশের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। বয়স আনুমানিক ২৪ বছর।

ভিটাবল্যা ক্যাম্প ইনচার্জ আমির হোসেন বলেন, ধারণা করা হচ্ছে শনিবার রাতে গুলি করে হত্যার পর লাশটি ফেলে রেখে যায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিরা। লাশের ডান কানের কাছে ও বুকের বাঁ পাশে গুলির চিহ্ন রয়েছে। এ ছাড়া তার মুখমণ্ডল বিকৃত অবস্থায় দেখা গেছে।

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানান, জেলার কালীগঞ্জ থেকে এক যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার ফুলবাড়িয়া এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। পুলিশ এখনো ওই যুবকের নাম-পরিচয় জানাতে পারেনি।

কালীগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমান কালের কণ্ঠকে জানান, ঝিনাইদহ-যশোর সীমান্তবর্তী কালীগঞ্জ বারোবাজারের ফুলতলা নামক এলাকায় এক যুবকের লাশ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করে। নিহতের মাথায় ও বুকে গুলির চিহ্ন রয়েছে। তার বয়স আনুমানিক ৩০-৩২ বছর; পরনে ব্লেজার ছিল। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। কে বা কারা হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।  

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, জেলার কলারোয়ায় গুলিবিদ্ধ এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল সকাল ৮টার দিকে উপজেলার ছিতলি গ্রামের চারাবটতলা এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। তবে পুলিশ তার নাম-পরিচয় এখনো জানাতে পারেনি।

কলারোয়া থানার ওসি জিয়ারুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে জানান, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করে। তার মাথার ডানদিকে গুলির চিহ্ন রয়েছে। তার বয়স আনুমানিক ৩২ বছর। পরনে কালো রঙের প্যান্ট ও লাল রঙের সোয়েটার ছিল। ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা (নং-১৮) দায়ের করা হয়েছে।


মন্তব্য