kalerkantho


সেই হলমার্কের জেসমিনের তিন বছর কারাদণ্ড

আদালত প্রতিবেদক   

১২ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



সেই হলমার্কের জেসমিনের তিন বছর কারাদণ্ড

ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় ব্যাপক আলোচিত হলমার্ক গ্রুপের চেয়ারম্যান জেসমিন ইসলামকে তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সম্পদের হিসাব বিবরণী দাখিল না করায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় আদালত তাঁকে তিন বছরের সাজার পাশাপাশি ২০ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন, যা সাত দিনের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে।

গতকাল বুধবার ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান পাঁচ বছর আগের এই দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করেন।

হলমার্ক গ্রুপের ঋণ কেলেঙ্কারির মামলায় ২১ মাস ধরে কারাবন্দি থাকা জেসমিন ইসলামকে এই রায়ের জন্য গতকাল আদালতে হাজির করা হয়। তাঁর উপস্থিতিতেই বিচারক রায় ঘোষণা করেন। সাজা ঘোষণার পর তাঁকে আবার কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

২০১০ থেকে ২০১২ সালের মার্চ পর্যন্ত সময়ে সোনালী ব্যাংকের রূপসী বাংলা শাখা থেকে অনিয়মের মাধ্যমে হলমার্ক গ্রুপের আড়াই হাজার কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার ঘটনা প্রকাশ পেলে ব্যাপক শোরগোল ওঠে। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে ২০১২ সালের আগস্টে আর্থিক খাতে বড় এই কেলেঙ্কারির ঘটনার অনুসন্ধান ও তদন্ত শুরু করে দুদক। প্রাথমিক অনুসন্ধান শেষে ওই বছর ৪ অক্টোবরে মোট ১১টি মামলা করা হয়। এসব মামলার সবটিতেই জেসমিন ও তাঁর স্বামী হলমার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর মাহমুদ আসামি। অভিযোগপত্র হওয়ার পর ২০১৬ সালের নভেম্বরে বংশাল থেকে জেসমিনকে গ্রেপ্তার করে দুদক।

এর আগে ২০১২ সালেও একবার গ্রেপ্তার হয়েছিলেন জেসমিন। বেশ কিছুদিন কারাগারে কাটিয়ে সেবার তিনি উচ্চ আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পান। সে সময় কারাগারে থাকা অবস্থায় ২০১৩ সালের ১৩ নভেম্বর সম্পদের হিসাব বিবরণী চেয়ে তাঁর কাছে নোটিশ পাঠায় দুদক। ওই বিবরণী দাখিল করতে জেসমিন আইনজীবীর মাধ্যমে তিন মাস সময় চেয়ে ২৪ নভেম্বর আবেদন করলে তা নাকচ করে সাত দিন সময় বাড়ানো হয়। দুদকের নির্ধারিত ৪ ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পদের বিবরণী জমা না দেওয়ায় ১১ ডিসেম্বর রাজধানীর রমনা মডেল থানায় এই মামলাটি করেন দুদকের উপসহকারী পরিচালক মুহাম্মদ জয়নাল আবেদীন। তদন্ত শেষে দুদক জেসমিনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় এবং ২০১৬ সালের ১৭ মার্চ অভিযোগ গঠনের মধ্যে দিয়ে আদালত তাঁর বিচার শুরু করে।

জেসমিনের আইনজীবী শফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, এই রায়ের বিরুদ্ধে তাঁরা উচ্চ আদালতে যাবেন।

 

 



মন্তব্য