kalerkantho


মোটরসাইকেলের চাহিদা আরো বাড়বে

নতুন কারখানা স্থাপন করছে টিভিএস : বিপ্লব কুমার রায়

মাসুদ রুমী   

১৩ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০




মোটরসাইকেলের চাহিদা আরো বাড়বে

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে রাস্তাঘাটের উন্নতি হচ্ছে। অবকাঠামো উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে সাশ্রয়ী যানবাহন হিসেবে মোটরসাইকেলের চাহিদা আরো বাড়বে বলে মনে করছেন টিভিএস অটো বাংলাদেশ লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) বিপ্লব কুমার রায়। সম্প্রতি কালের কণ্ঠকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনসংখ্যা অনুযায়ী এখনো মোটরসাইকেলের বাজার সম্প্রসারণের ব্যাপক সম্ভাবনা আছে। এই সম্ভাবনা কাজে লাগাতে টিভিএস অটো বাংলাদেশ নতুন একটি কারখানা স্থাপনের কাজ শুরু করেছে বলে জানান তিনি।

টিভিএস অটো বাংলাদেশ লিমিটেড বাংলাদেশ ও ভারতের একটি যৌথ বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান। টিভিএস সুন্দারাম আইঙ্গার অ্যান্ড সন্স প্রাইভেট লিমিটেড, ইন্ডিয়া আর রিয়ান মোটর্স লিমিটেড (সনি র্যাংগসের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান) এই যৌথ উদ্যোগের যাত্রা শুরু ২০০৭ সালে। এর মূল প্রতিষ্ঠান টিভিএস গ্রুপ ১৯১১ সালে এই ভারতবর্ষে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল অদম্য উদ্যমে, যা আজ ভারত তথা বিশ্বের এক বিশাল শিল্পগোষ্ঠী। ভারতের তৃতীয় এবং বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ টু-হুইলার উৎপাদনকারী হলো এই টিভিএস ২ কোটি ২৭ লাখ বাইক বিক্রির সাফল্য নিয়ে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে টু-হুইলার ইন্ডাস্ট্রিতে সর্বোচ্চ সাফল্যের শিরোপা টিভিএসের। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ২৯ লাখ মোটরসাইকেল বিক্রি করে সর্বোচ্চ বিক্রির মাইলফলক অর্জন করেছে। বিশ্বখ্যাত মোটর কম্পানি বিএমডাব্লিউ টিভিএস মোটর কম্পানির সঙ্গে অংশীদারিতে ভারতে বিএমডাব্লিউ ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল উৎপাদন করে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা শুরু করেছে। বাংলাদেশে টিভিএসের মোটরসাইকেল উৎপাদন সম্পর্কে জানতে চাইলে বিপ্লব কুমার রায় বলেন, ‘আমাদের স্থানীয়ভাবে মোটরসাইকেল উৎপাদনের পরিকল্পনা আছে।

আমরা ইতিমধ্যেই নতুন একটি কারখানা স্থাপনের কাজ হাতে নিয়েছি ও কাজ এগিয়ে চলছে। আমরা দেশে মোটরসাইকেল উৎপাদন শুরু করলে একদিকে গ্রাহকরা যেমন সাশ্রয়ী দামে মোটরসাইকেল কিনতে পারবে, তেমনি আমাদের নতুন কারখানায় অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হবে। মোটরসাইকেলের দাম কমে এলে বাজার আরো সম্প্রসারিত হবে। একই সঙ্গে স্থানীয়ভাবে ভেন্ডর উন্নয়নও হবে। এই শিল্পে স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা খুব জরুরি। সরকার ইতিমধ্যেই বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। ’

মোটরসাইকেল বাজারে টিভিএসের অবস্থান আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক শক্তিশালী বলে জানান বিপ্লব কুমার রায়। তিনি বলেন, ‘গ্রাহক সন্তুষ্টি, নিখুঁত মাননিয়ন্ত্রণ ও টিভিএসের প্রতি গ্রাহকদের আস্থার জন্যই আমরা ইতিমধ্যেই বাংলাদেশে দ্রুত বিকাশমান মোটরসাইকেল কম্পানি হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছি। এই ধারা অব্যাহত রাখার জন্য আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। ’

বিশ্বের আধুনিক অনেক নতুন প্রযুক্তি প্রতিনিয়ত উদ্ভাবিত হচ্ছে, যা মোটরসাইকেল চালনায় ভালো ও আরামদায়ক অভিজ্ঞতাকে বাড়িয়ে দিয়েছে অনেকগুণ। এ জন্য বেশি সিসির মোটরসাইকেল আমদানির সুযোগ অবশ্যই থাকা উচিত বলে মনে করেন টিভিএস অটো বাংলাদেশ লিমিটেডের সিইও। তিনি বলেন, ‘সরকার ইতিমধ্যেই ১৬৫ সিসি পর্যন্ত মোটরসাইকেল আমদানির অনুমতি দিয়েছে। কিন্তু সিসির সীমাবদ্ধতা থাকায় আমরা এই টেকনোলজি আমাদের গ্রাহকদের কাছে পৌঁছাতে পারছি না। শুধু তাই নয়, এই আধুনিক প্রযুক্তি অনেক বেশি পরিবেশবান্ধবও। ডুয়াল অ্যান্টি-লক ব্রেকিং সিস্টেম, ইলেকট্রনিক ফুয়েল ইনজেকশন (ইএফআই), ইলেকট্রনিক ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমসহ সেলফ ব্যালান্সিং মোটরসাইকেল নির্মাণ করা হচ্ছে, যেটি কখনো পড়বে না। বেশি সিসি যে শুধু দ্রুত চালানোর জন্য প্রয়োজন তা নয়, এতে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও অনেক বেশি থাকে। ’

নারীর ক্ষমতায়নে তাদের মোটরসাইকেল ব্যবহারে আগ্রহী করে তুলতে নানা পরিকল্পনা নিয়েছে টিভিএস অটো বাংলাদেশ। প্রতিষ্ঠানের সিইও জানালেন, স্কুটি সেগমেন্টে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি মডেল রয়েছে টিভিএসের। প্রতিষ্ঠানটি ইতিমধ্যে বেশ কিছু ক্যাম্পেইন করেছে যেখানে নারীদের বিনা মূল্যে মোটরসাইকেল চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। নারীদের মোটরসাইকেল চালনায় উদ্ধুদ্ধ করতে একজন নারী সেলিব্রিটিকে শুভেচ্ছা দূত করেছে টিভিএস বাংলাদেশ। নারীরা যদি বেশি বেশি করে মোটরসাইকেল ব্যবহার করে তাহলে সমাজে ব্যাপক উন্নয়ন হবে। এটি দেশের অর্থনীতিতে অনেক ভূমিকা রাখতে পারবে। পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে ইতিমধ্যেই এই বিপ্লব শুরু হয়ে গেছে। এ জন্য কোনো নারী টিভিএস মোটরসাইকেল কিনতে আগ্রহী হলে মোটরসাইকেল চালনা প্রশিক্ষণে বিশেষ সহযোগিতা করা হয় বলে জানালেন বিপ্লব কুমার রায়।

নগদে অনেকের পক্ষে মোটরসাইকেল কেনা সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাদের জন্য কিস্তিতে মোটরসাইকেল বিক্রি সুবিধা দিচ্ছে টিভিএস অটো বাংলাদেশ। নির্দিষ্ট কিছু ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে সহজ কিস্তিতে টিভিএস মোটরসাইকেল কেনা যাবে। এ ছাড়া টিভিএসের প্রায় সব ডিলারই নিজস্ব উদ্যোগে কিস্তির সুবিধা প্রদান করে থাকে বলে জানালেন প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী।

মোটরসাইকেল উৎপাদন একটি ক্রমবর্ধমান শিল্প। বাইকের চাকা দুটি। কিন্তু এর স্বপ্ন-সম্ভাবনা অগণিত। দেশে গড় বার্ষিক চাহিদা এ বছর চার লাখ হতে পারে। এতে বহুজাতিক ব্র্যান্ডগুলো স্থানীয়ভাবে মোটরবাইক উৎপাদনে বিনিয়োগে আগ্রহী হয়ে উঠছে বলে জানালেন টিভিএস অটো বাংলাদেশ লিমিটেডের সিইও বিপ্লব কুমার রায়।

তিনি বলেন, ‘টিভিএস দীর্ঘ সংযোজনী ও বিপণনী অভিজ্ঞতার আলোকে স্থানীয়ভাবে টিভিএস বাইক উৎপাদন করতে পারলে মূল্য, মান, বিতরণ সুবিধা, বিক্রয়োত্তর সেবা এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা স্বাভাবিকভাবেই আরো বাড়াতে পারবে। স্বল্প সময়ে দেশে নতুন কারখানা নির্মাণের কাজ শেষ করতে প্রয়োজনীয় সব কাজই সম্পন্ন করছে টিভিএস। ভেন্ডর উন্নয়ন না হলে মোটরসাইকেল শিল্পের বিকাশ ঘটবে না। আমরাও চাই দেশে ভেন্ডর উন্নয়ন হোক। প্রযুক্তি স্থানান্তর, দক্ষ জনশক্তি তৈরির জন্য ভেন্ডর তৈরি করা অপরিহার্য। ’


মন্তব্য